জাতীয় দৈনিকে বিজ্ঞাপন দিয়ে অভিনব কায়দায় যেভাবে চলতো কোটি টাকা হাতিয়ে নেবার প্রতারনা

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা-
দেশের বেশ কয়েকটি জাতীয় দৈনিকে অবসরপ্রাপ্ত চাকুরিজীবীদের জন্য বিজ্ঞাপন দিয়ে তাদের প্রলুব্ধ করত প্রতারক একটি চক্র। তারা অবসরপ্রাপ্ত চাকুরিজীবীদের মোটা অংকের টাকা বেতন ও ব্যবসায়ের অংশীদারের প্রলোভন দেখাত বলে জানিয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনিভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

অবশেষে অভিযোগের প্রেক্ষিতে আত্মসাৎকারী ঐ চক্রের মুল হোতা সহ ৫ প্রতারককে আটক করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। শুক্রবার রাতে রাজধানীর পল্লবীতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে বেশ কয়েকটি মোবাইল ফোন,টাকা এবং একটি ব্যাগ উদ্ধার করা হয়।
পাঁচ থেকে ছয় বছর ধরে চলা চক্রটির কার্যক্রমে ইতিমধ্যে তারা কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। চক্রটি অন্যান্য সদস্যদের ধরতে অভিযান শুরু করেছে পিবিআই।

শনিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে পিবিআই জানায়,চক্রের এই সদস্যরা জাতীয় দৈনিকে বিজ্ঞাপন, প্রাতভ্রমনের কালে চক্রের মাঠ পর্যায়ের সদস্যরা বিভিন্ন সরকারী অবসরপ্রাপ্ত চাকরীজীবীদের টার্গেট করত, প্রথমে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে এবং পরে ব্যবসায়ী অংশীদার করা কথা বলে মোটা অংকের টাকা আত্মসাৎ করতো।

পিবিআই’র ঢাকা মেট্রো অফিসে সংস্থার অতিরিক্ত উপ-মহা পরিদর্শক (ডিআইজি) মাইনুল হাসান বলেন, আমাদের কাছে এমন ১২টি অভিযোগ আসে, প্রতারক চত্রটি এদের কাছ থেকে প্রায় ৩ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে। এর মধ্যে এক অবসর প্রাপ্ত সচিব প্রতারিত হয়েছে ১ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে ২৯ সেপ্টেম্বর মিরপুর পল্লবীর একটি বাসা থেকে তাদের আটক করা হয়।
তিনি বলেন, চক্রের সদস্যরা খুব সূক্ষ্মভাবে টার্গেট করা লোকজনকে সুসজ্জিত ভুয়া অফিস দেখিয়ে চাকরির প্রলোভন দেখাত, পরে কৌশলে ব্যবসায়ী অংশীদার বানানোর কথা বলে টাকা হাতিয়ে নিয়ে অফিস ছেড়ে পালিয়ে যেতো। চক্রটি মাত্র ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে টাকা হাতিয়ে নিত।এমন আরো চার থেকে পাঁচটি চক্র আছে বলেও জানান তিনি।এছাড়াও রাজধানীর বাইরেও চক্রটি সক্রিয় ছিল।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে পিবিআই’র পুলিশ পরিদর্শক মো মনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে রাজধানীর খিলগাওঁ থাকায় একটি মামলা (মামলা নম্বর ৭৭) দায়ের করা হয়। আটক ব্যক্তিরা তাদের সহযোগীদের মাধ্যমে অবসরপ্রাপ্ত সরকারী চাকুরীজীবী ও বয়স্ক লোকদের টার্গেট করে বিভিন্ন বিদেশি সংস্থা বা প্রজেক্টে বেশি টাকা বেতনে চাকুরী দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়।

সংবাদ সম্মেলন জানানো হয়, শুক্রবার পল্লবীর একটি বাসা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এখন পর্যন্ত ১২ জন ব্যক্তি এই চক্রের হাতে প্রতারিত হয়েছেন। এদের মধ্যে অবসরপ্রাপ্ত সচিব, যুগ্ম সচিব, ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছাড়াও উচ্চপদস্থ আরো কর্মকর্তা রয়েছেন। শুধুমাত্র এক যুগ্ম সচিবের কাছ থেকেই এই চক্রটি এক কোটি ৪৮ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।