ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে কৌশলে বন্ধুর বাসায় নিয়ে গনধর্ষণ, আদালতে গৃহবধুর জবানবন্দি

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা-

ঢাকার দক্ষিণখান থানা এলাকা থেকে এক গাড়িচালকসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে কৌশলে ধর্ষক বন্ধুর বাসায় নিয়ে গিয়েছিলেন ওই গাড়ি চালক। মামুন (৩০) নামের ওই ব্যক্তিও তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালিয়েছিলেন।

এ ঘটনায় গ্রেপ্তার মামুনের বন্ধু শফিক (৩৮) ওই গৃহবধূকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

পুলিশ জানায়, মামুন ও তার ভাই টিপু (২৬) তুরাগের চন্ডালভোগ এলাকায় বাসা নিয়ে থাকেন। তারা দুজনই গাড়ি চালান। টিপু বিয়ে করলেও মামুন অবিবাহিত। টিপুর স্ত্রী মগবাজারে বাবা-মা’র সঙ্গে থাকে, মাঝে মাঝে স্বামীর কাছে তুরাগের এই বাসায় আসেন।

টিপুর স্ত্রী গত রোববার সকালে স্বামীর সাথে দেখা করতে আসেন। সে সময় মামুন গাড়ি চালানোর উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বেরিয়ে যান। বিকালে মামুন তার ভাইকে ফোনে বলেন, তিনি রাতে ফিরবেন না এবং টিপু যেন তার বউকে নিয়ে বাসায় থাকেন। ভাই এ কথা বলার পর সে (টিপু) তার স্ত্রীকে বাসায় রেখে বাইরে কাজে বের হয়। এর পর সন্ধ্যায় মামুন বাসায় এসে নিজের বিয়ে ঠিক হওয়ার কথা বলে সাক্ষী হতে টিপুর বউকে বাসা থেকে বের করে নিয়ে যায়। সরল বিশ্বাসে তিনি বাসা থেকে বেরিয়ে যান।

এরপর থেকে টিপুর স্ত্রীর মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায় এবং মামুন কৌশলে ভাইয়ের ফোন না ধরে এড়িয়ে যায়। ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে দক্ষিণখান থানা এলাকার আজমপুরে তার বন্ধু শফিকের বাসায় নিয়ে যায় মামুন।

দক্ষিণখান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রোকনুজ্জামান জানান, শফিকের কাছে টিপুর স্ত্রীকে রেখে মামুন বের হয়ে যায়। শফিক এসময় তাকে ধর্ষণ করে এবং কিছু পরে মামুন বাসায় এসে সেও ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। সারা রাত রেখে দুইজনে মিলে তার উপর নির্যাতন চালায় এবং সোমবার ভোরবেলা তাকে বাসা থেকে বের করে দেয়।

সেখান থেকে বেরিয়ে ওই গৃহবধূ একজনের মোবাইল থেকে স্বামীকে বিষয়টি জানালে টিপু গিয়ে স্ত্রীকে উদ্ধার করে থানায় এসে মামলা করেন। সোমবার মামলা দায়েরের পরপরই পুলিশ ওই দুজনকে গ্রেপ্তার করে।

দুজনই পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে অপরাধের কথা স্বীকার করার পাশাপাশি মঙ্গলবার আদালতে ১৬৪ জবানবন্দি দিয়েছেন বলে পরিদর্শক রোকনুজ্জামান জানান।