অবশেষে বিয়ের দাবি আদায়ে সার্থক ঠাকুরগাঁওয়ের শিউলি

কামরুল হাসান, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ছোট খোচাবাড়ি গুচ্ছগ্রামে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশনের ৩ দিন পর শিউলি (২০) নামের এক তরুণী দাবি আদায়ে সার্থক হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ভোর রাতে ৩ দিন অতিক্রান্ত হওয়ার পরে প্রেমিক ও প্রেমিকার বাড়ির লোকজন সমঝোতার মধ্য দিয়ে বিবাহ সম্পন্ন হয়েছে বলে ইউপি চেয়ারম্যান পয়গাম আলী নিশ্চিত করেছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলার ছোট খোচাবাড়ি গুচ্ছগ্রামের মতিউর রহমানের (বকমারী) কলেজ পড়ুয়া মেয়ে শিউলীর (২০) সঙ্গে একই গ্রামের সফিকুলের ছেলে নেহারুলের দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক। এক পর্যায়ে মেয়েটিকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায় ছেলেটি।

পরে কোনো উপায় না পেয়ে মঙ্গলবার থেকে ছেলেটির বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেয় মেয়েটি। পরে স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা করা হলে অবস্থার বেগতিক দেখে ছেলেটি আত্মগোপন করে। মঙ্গলবার রাত ১০টা থেকে উভয় পরিবারের উপস্থিতিতে মীমাংসার জন্য আলোচনা হয়। কিন্তু ছেলের পরিবার তা মেনে নিতে রাজি হয়নি।

বুধবার রাতে স্থানীয় সংবাদকর্মীরা বিয়ের দাবিতে তরুণীর অনশনে বসা সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করলে রাতে এলাকাবাসী ও প্রশাসনের চাপে ছেলের পরিবার শিউলির সাথে বিয়ে দিতে রাজি হয়। পরে কলেজ পড়ুয়া শিউলীর (২০) সঙ্গে প্রেমিক নেহারুলের উভয়পরে উপস্থিতিতে কাজী মোকলেস উদ্দিন দেন মোহর ১ লক্ষ ১০ হাজার টাকা ধার্য্য করে বিবাহ সম্পন্ন করেন।

শিউলী জানায়, নেহারুলের সাথে দীর্ঘদিন যাবত প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে তার। সে আমাকে বিয়ের আশ্বাস দেয়। কিন্তু হঠাৎ সে আমাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে উপায় না পেয়ে তার বাড়িতে চলে আসি। ৩ দিন পর অবশেষে আমাদের বিবাহ সম্পন্ন হলো।

ছেলে নেহারুল জানান, শিউলীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু সংসার চালানোর সমতা আপাতত না থাকায় পড়ে বিয়ে করতে চেয়ে ছিলাম। কিন্তু শিউলী সেই কথা মানতে নারাজ হয়ে বাসায় চলে আসে। অবশেষে দুই পরিবারের সমঝোতায় বিবাহ সম্পন্ন হয়।
ছেলের বাবা সফিকুল ও মেয়ের বাবা মতিউর রহমান বিবাহ সম্পন্ন হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল জানান, মঙ্গলবার রাত ১০টা থেকে উভয় পরিবারের উপস্থিতিতে মীমাংসার জন্য আলোচনা হয়। কিন্তু ছেলের পরিবার কোনভাবে বিয়েতে রাজি হয় নাই। অবশেষে স্থানীয়দের চাপে আজ বৃহস্পতিবার ভোর রাতে দুই পরিবারের উপস্থিতিতে শিউলি ও নেহেরুলের বিবাহ সম্পন্ন হয়।