তামিমকে হারানোর ক্ষত নিয়ে দ. আফ্রিকার বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে নামবে বাংলাদেশ

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক: ইনজুরির কারণে খেলতে না পারা ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবালকে ছাড়াই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ব্লয়েমফন্টেইনে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে প্রোটিয়াদের মুখোমুখি হতে হচ্ছে টাইগারদের। পচেফস্ট্রুমে প্রথম টেস্ট বড় ব্যবধানে জিতে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। আগামীকাল ব্লয়েমফন্টেইনে টেস্টটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বেলা দু’টায়।

ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় সিরিজের প্রথম টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৩৩৩ রানের বড় ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ। টাইগারদের ক্রিকেট ইতিহাসে রান বিবেচনায় এটি দ্বিতীয় বৃহত্তম হার । দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৯০ রানে গুটিয়ে গিয়ে এমন লজ্জার হারকে নিজেদের সঙ্গী করেছে মুশফিকুর রহিমের দল।
দ্বিতীয় ইনিংসে চরম ব্যর্থতার প্রমান দিলেও, প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার ৩ উইকেটে ৪৯৬ রানের জবাবে ৩২০ রান করেছিলো বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে ৬ উইকেটে ২৪৭ রান তুলে ইনিংস ঘোষনা করে বাংলাদেশের সামনে জয়ের জন্য ৪২৪ রান ছুঁেড় দেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। সেই টার্গেটে ৩ উইকেটে ৪৯ রান তুলে চতুর্থ দিনের খেলা শেষ করেছিলো বাংলাদেশ।

কিন্তু পঞ্চম দিন মাত্র ৮২ মিনিটের ব্যবধানে তাসের ঘরের মতো ভেঙ্গে পড়ে বাংলাদেশের ইনিংস। এ থেকে শিক্ষা নিয়েই সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট শুরু করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। তবে টাইগারদের জন্য আরো বড় দু:সংবাদ ইনজুরির কারণে এ ম্যাচ থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হয়েছেন তরকা খেলোয়াড় তামিম।তার জায়গায় কে খেলবেন তা এখনো নিশ্চিত করেনি বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট।

এদিকে, ব্লয়েমফন্টেইন ভেন্যু দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য পয়া ভেন্যুই। এখানে চার ম্যাচের সবক’টিতেই জয় পেয়েছে প্রোটিয়ারা। এখানেই বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজেদের সর্বশেষ টেস্ট খেলেছিলো দক্ষিণ আফ্রিকা। ২০০৮ সালের নভেম্বরে সেই ম্যাচটি তারা জিতেছিলো ইনিংস ও ১২৯ রানের ব্যবধানে।
এই ব্লয়েমফন্টেইনে প্রায় ৯ বছর পর অনুষ্ঠিত হবে টেস্ট ম্যাচ। সর্বশেষ ম্যাচটি ছিলো ২০০৮ সালে, বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকার। তাই এই ভেন্যুতে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে বাংলাদেশের। তারপরও দ্বিতীয় টেস্টে ঘুড়ে দাঁড়ানোর প্রত্যয় টাইগার দলপতি মুশফিকের, ‘আমাদের লক্ষ্য সিরিজে ঘুড়ে দাঁড়ানো। আশা করছি, আমরা সফল হবো। অবশ্যই এ ম্যাচে ভাল কিছু করতে হবে নতুবা আমাদের জন্য খারাপ কিছু অপেক্ষা করছে।’

প্রথম টেস্টের মত দ্বিতীয় ম্যাচেও ভালো করার ব্যাপারে আশাবাদি দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফাফ ডু-প্লেসিস, ‘নিখুঁত অলরাউন্ড পারফরমেন্স হয়েছিলো আমাদের। আশা করি এখানেও তা অব্যাহত রাখতে পারবো। আমাদের লক্ষ্য থাকবে নিজেদের সেরাটা বের করে আনা । আমরা ম্যাচ জিততে চাই। পাশাপাশি সিরিজও জিততে চাই।’

বাংলাদেশ দল : মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক/উইকেটরক্ষক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, সাব্বির রহমান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মোমিনুল হক, লিটন কুমার দাস (উইকেটরক্ষক), মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন. শফিউল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও শুভাশিষ রায়।

দক্ষিণ আফ্রিকা দল : ফাফ ডু-প্লেসিস (অধিনায়ক), ডিন এলগার, আইডেম মার্করাম, হাশিম আমলা, টেম্বা বাভুমা, কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), তিউইনস ডি ব্রুইয়ান, কেশব মহারাজ, কাগিসো রাবাদা, ডেন প্যাটারসন, ডুয়ানে অলিভার, ওয়েন পার্নেল ও আন্দিলা ফেলুকুয়াও।