🕓 সংবাদ শিরোনাম

‘পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীরা দেশবিরোধী, এদের খুঁজে বের করতে হবে’ * পদ্মা সেতুর জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছে এশিয়ার ৫ দেশ * সাম্প্রতিক বন্যায় ৭ কোটি টাকার বেশি নগদ বরাদ্দ * সিলেটে আশ্রয়কেন্দ্রে এখনও ৫০ হাজার বন্যার্ত মানুষ * গত ২৪ ঘন্টায় পদ্মা সেতুতে টোল আদায় ২ কোটি ৯ লাখ * গর্ভপাতের অধিকার রক্ষার দাবিতে আমেরিকার বিভিন্ন প্রদেশে বিক্ষোভ * এবার পাবনায় একসঙ্গে ৩ সন্তানের জন্ম, নাম পদ্মা-সেতু-উদ্বোধন * নীলফামারীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যু * সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে কোস্ট গার্ড মহাপরিচালকের ত্রাণ বিতরণ * চার দফা দাবিতে পাবিপ্রবির ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ *

  • আজ সোমবার, ১৩ আষাঢ়, ১৪২৯ ৷ ২৭ জুন, ২০২২ ৷

জঙ্গি নির্মূলে যুক্তরাষ্ট্রের দেয়া সহযোগিতার প্রস্তাবের বিষয়ে ঝুঁকির আশঙ্কা বিশ্লেষকদের


❏ বুধবার, জুলাই ১৩, ২০১৬ আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক –   সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের দেয়া সহযোগিতার প্রস্তাবের বিষয়ে বাংলাদেশকে সতর্ক পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকদের।

তারা বলছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশটির সহযোগিতা নেয়া গেলেও দীর্ঘমেয়াদে জোট গঠন কিংবা কোনো ধরনের সামরিক চুক্তি বাংলাদেশের নিরাপত্তা ঝুঁকি আরও বাড়াতে পারে। তবে, নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, বৈশ্বিক জঙ্গিবাদ নির্মূলে বাংলাদেশকে জোটভুক্ত হয়েই কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

amirica

দীর্ঘদিন ধরেই বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ দমনে সহযোগিতার প্রস্তাব দিয়ে আসা পশ্চিমা বেশকটি দেশ আবারও সক্রিয় হয় গুলশান ও শোলাকিয়ায় সন্ত্রাসী হামলার পর।

চলতি সপ্তাহে মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দুই দিনের ঢাকা সফরেও গুরুত্ব দেয়া হয় এ বিষয়ে। স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে সরাসরি কারিগরি ও বিশেষজ্ঞ সহযোগিতা দেয়ার প্রস্তাব দেন তিনি। জবাবে বিষয়টি বিবেচনা করার কথা জানায় বাংলাদেশ।

তবে পররাষ্ট্র বিশ্লেষকরা মনে করেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উচ্চতর প্রশিক্ষণ, আধুনিক তথ্য- প্রযুক্তিগত সহযোগিতা নেয়া গেলেও নির্দিষ্ট কোন দেশের সঙ্গে দীর্ঘ মেয়াদের চুক্তিতে যাওয়া ঠিক হবে না বাংলাদেশের।

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত আকরামুল কাদের বলেন, ‘উন্নত যন্ত্রপাতি, টেকনোলজি এবং সাইবার সিকিউরিটি দিয়ে তারা আমাদের সাহায্য করতে পারে, প্রয়োজনে আমাদের লোকদের তারা প্রশিক্ষণ দিতে পারে কিন্তু আমি কোনভাবেই মনে করি না আমাদের উচিত হবে তাদের সঙ্গে কোন রকম চুক্তিতে যাওয়া।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক মুহা. রুহুল আমীন বলেন, ‘এখানে যেহেতু দেশের নিরাপত্তার বিষয় সেহেতু আমার মনে হয় সরকার বিষয়টি নিয়ে খুব সতর্কভাবে এগুবে।’

তবে, জঙ্গিবাদের বিষয়টি বৈশ্বিক বলে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা ছাড়া তা মোকাবেলা কঠিন বলে মনে করছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা। এক্ষেত্রে কোনরকম ছাড় বিপদ বাড়াতে পারে বলে আশঙ্কা তাদের।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক আব্দুর রশীদ বলেন, ‘এ ঝুঁকির ভয়ে জড়োসড়ো ভাবে জঙ্গিবাদ দমন করা যাবে না। দুধ-কলা দিয়ে তো আর সাপ পোষা যাবে না। উন্নত দেশের সহযোগিতা থেকে দূরে থাকাকে আমি মনে করি না আমাদের নিরাপদ থাকার রাস্তা।’

বিশ্লেষকরা বলছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা নিতে হবে বিবেচনা করে। একই সঙ্গে বাড়াতে হবে সক্ষমতা, পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রয়োজনে গঠন করতে হবে বিশেষায়িত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।