🕓 সংবাদ শিরোনাম

নজরদারির অভাব: শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ এলাকায় অপরাধীদের আনাগোনা * মুখ ফসকে অনাকাঙ্ক্ষিত শব্দ বেরিয়ে গেছে: গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী * মাধবপুরে নিখোঁজের ৩ দিন পর গাছে মিলল ঝুলন্ত দেহ * জিয়া কখনই প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না: হানিফ * প্রতিরোধ নারায়ণগঞ্জ থেকে শুরু হবে, খেলায় আমরাই জিতব: শামীম ওসমান * সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত * স্কুলছাত্রের ঘরে ঢুকে দরজা আটকালেন কলেজছাত্রী, রাত গভীরে গ্রাম্য সালিসে হলো বিয়ে * সালথায় আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরে চাঁদাবাজি, আটক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের স্বামী * বুড়িগঙ্গা নদীতে নৌকা চলে, মাঝিদের জীবন চলে না * চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডে ও উত্তরায় গার্ডার পড়ে প্রাণহানিতে প্রধানমন্ত্রীর শোক *

  • আজ মঙ্গলবার, ১ ভাদ্র, ১৪২৯ ৷ ১৬ আগস্ট, ২০২২ ৷

চট্টগ্রাম কারাগারে দুই খুনির ফাঁসি কার্যকর


❏ বুধবার, জুলাই ১৩, ২০১৬ Breaking News, আলোচিত বাংলাদেশ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি– চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে এক অটোরিকশা চালককে হত্যার প্রায় ১২ বছর পর মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত দুই খুনির ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে। মঙ্গলবার রাত ১২টা ১ মিনিটে দু’জনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের ডেপুটি জেলার মনিরুল ইসলাম ফাঁসি কার্যকরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ফাঁসির দণ্ড কার্যকর হওয়া দুই খুনি হলেন- মিরসরাই উপজেলার উত্তর হাজী সরাই গ্রামের লেদু মিয়ার বাড়ির কামাল উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ইসলাম ওরফে শহীদ এবং একই উপজেলার মধ্যম সোনাপাড়া গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ওরফে শহীদ।

জানা গেছে, রাত সোয়া ১১টার দিকে সাইফুল ও শহীদের পরিবারের কয়েকজন সদস্য কারাগারে প্রবেশ করেন। দুজনের শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী তারা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।karagarরাত সাড়ে ১১টার দিকে তাদের গোসল করানো হয়। তারা মুরগির গোশত দিয়ে সাদা ভাত খান। এরপর চট্টগ্রাম কারা মসজিদের পেশ ইমাম মো. ইলিয়াছ আজম তাদের তওবা পড়ান। পরে দুজনকে জম টুপি পরানো হয়। ৫ জন জল্লাদ দুজনের ফাঁসি কার্যকর করে।

ফাঁসি কার্যকরের সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন, সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ডিআইজি (প্রিজন) অসীম কান্ত পাল, সিনিয়র জেল সুপার মো.ইকবাল কবীর, জেলার মাহবুবুল ইসলাম, নগর পুলিশের উপকমিশনার (বিশেষ শাখা) মোয়াজ্জেম হোসেন ভূঁইয়া ও অতিরিক্ত উপকমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মো.আবদুর রউফ এবং জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিলুর রহমান।

প্রসঙ্গত, ২০০৪ সালের ১৯ মে রেজাউল করিম ওরফে আজিজ নামে ওই অটোরিকশা চালককে হত্যা শহীদুল্লাহ ও সাইফুলসহ মোট ৩ জন মিলে হত্যা করে।

কারাগার কর্তৃপক্ষের দেয়া তথ্যে জানা যায়, ওইদিন রাতে অটোরিকশার চালক আজিজকে মিরসরাই থেকে ফটিকছড়ির দাঁতমারা যাওয়ার জন্য ভাড়া করে শহীদুল্লাহ ও সাইফুলসহ তাদের আরেক সহযোগী মীর হোসেন। ফটিকছড়ি উপজেলার দাঁতমারা ইউনিয়নের জলন্তি রাবার বাগানে চালককে হত্যা করে অটোরিকশা ছিনতাই করে তারা।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই মিয়াধন বাদী হয়ে ফটিকছড়ি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ এ ঘটনায় শহীদুল্লাহ, সাইফুল ও মীর হোসেনকে গ্রেফতারের পর তারা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। পরের বছরের ২৯ নভেম্বর চট্টগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ আব্দুর রহমান পাটোয়ারি আসামি সাইফুল ও শহীদুল্লাহকে মৃত্যুদণ্ড এবং মীর হোসেনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

আসামিরা উচ্চ আদালতে আবেদন করার পর তা খারিজ হয়ে যাওয়ায় রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন জানান। সেই আবেদন নাকচ হওয়ার পর সোমবার রাতে দুই আসামির রায় কার্যকর করা হয়।