🕓 সংবাদ শিরোনাম

পদ্মা সেতুর জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছে এশিয়ার ৫ দেশ * সাম্প্রতিক বন্যায় ৭ কোটি টাকার বেশি নগদ বরাদ্দ * সিলেটে আশ্রয়কেন্দ্রে এখনও ৫০ হাজার বন্যার্ত মানুষ * গত ২৪ ঘন্টায় পদ্মা সেতুতে টোল আদায় ২ কোটি ৯ লাখ * গর্ভপাতের অধিকার রক্ষার দাবিতে আমেরিকার বিভিন্ন প্রদেশে বিক্ষোভ * এবার পাবনায় একসঙ্গে ৩ সন্তানের জন্ম, নাম পদ্মা-সেতু-উদ্বোধন * নীলফামারীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যু * সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে কোস্ট গার্ড মহাপরিচালকের ত্রাণ বিতরণ * চার দফা দাবিতে পাবিপ্রবির ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ * বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেক পোষ্ট দিয়ে ভারতীয় ভিসার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন *

  • আজ সোমবার, ১৩ আষাঢ়, ১৪২৯ ৷ ২৭ জুন, ২০২২ ৷

যৌতুকের জন্য পুত্রবধূকে নির্যাতন : ছেলেসহ মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী গ্রেফতার


❏ সোমবার, জুলাই ১৮, ২০১৬ Uncategorized

mohila
সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক – যৌতুকের জন্য পুত্রবধূকে নির্যাতনের মামলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী রোকেয়া বেগম (৪৮) ও তার ছেলে আরাফাত আলম ভূঁইয়া ওরফে রাজীবকে (২৮) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার বিকালে উপজেলার কালিকচ্ছ দত্তপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করে সরাইল থানা পুলিশ। এর আগে আরাফাত আলম ভূঁইয়া ওরফে রাজীবের স্ত্রী মোছা. শারমীন সুলতানা যৌতুকের জন্য নির্যাতনের অভিযোগে সরাইল থানায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় স্বামী রাজীব ও শাশুড়ি রোকেয়া বেগমকে আসামি করা হয়।

মামলায় বলা হয়, ২০১২ সালের ১৪ জানুয়ারি ছয় লাখ টাকা দেনমোহরে শারমীনের সঙ্গে রাজীবের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় যৌতুক হিসেবে একটি মোটরসাইকেল ও ৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ বেশকিছু আসবাবপত্র দেওয়া হয়। পরে মোটরসাইকেল ও স্বর্ণালঙ্কার বিক্রি করে বিদেশে পাড়ি জমান রাজীব। এরপর রাজীবের মা রোকেয়া বেগম বিভিন্ন সময় শারমীনের কাছে যৌতুকের টাকা দাবি করতে থাকেন। এর জন্য শারমীনকে বিভিন্ন সময় মারধর করে বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এ অবস্থায় গত ৫ জুলাই রাজীব বিদেশ থেকে দেশে ফিরে আসেন। এরপর গত ১৪ জুলাই তিন লাখ টাকা দাবি করে না পেয়ে রাজীব তাকে মারধর করে বাপের বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। এ ঘটনায় ১৬ জুলাই সরাইল থানায় মামলা করেন শারমীন। গতকাল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহারের আদালতে গ্রেফতার মা-ছেলের জামিনের আবেদন করা হয়। আদালত রোকেয়াকে জামিন দেয়। আর তার ছেলেকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেয়।