🕓 সংবাদ শিরোনাম

সিলেটে আশ্রয়কেন্দ্রে এখনও ৫০ হাজার বন্যার্ত মানুষ * গত ২৪ ঘন্টায় পদ্মা সেতুতে টোল আদায় ২ কোটি ৯ লাখ * গর্ভপাতের অধিকার রক্ষার দাবিতে আমেরিকার বিভিন্ন প্রদেশে বিক্ষোভ * এবার পাবনায় একসঙ্গে ৩ সন্তানের জন্ম, নাম পদ্মা-সেতু-উদ্বোধন * নীলফামারীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যু * সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের মাঝে কোস্ট গার্ড মহাপরিচালকের ত্রাণ বিতরণ * চার দফা দাবিতে পাবিপ্রবির ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ * বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেক পোষ্ট দিয়ে ভারতীয় ভিসার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন * শাহজাদপুরে জোড়পূর্বক সহবাস করায় স্বামীর গোপনাঙ্গ কর্তনের অভিযোগ * ফরিদপুরে ১০০০ পিচ ইয়াবাসহ তিন মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার *

  • আজ সোমবার, ১৩ আষাঢ়, ১৪২৯ ৷ ২৭ জুন, ২০২২ ৷

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে যুবকের লাশ উদ্ধার


❏ বুধবার, জুলাই ২০, ২০১৬ খুলনা, দেশের খবর

kushtia news pic

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে হাসান চৌধুরী (২৩) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এলাকা সূত্রে জানাগেছে গতকাল মঙ্গলবার বেলা ৩ টার দিকে রক্তাক্ত অবস্থায় তার লাশ উপজেলার তারাগুনিয়া ডাক বাংলো চত্বরে পড়ে থাকতে দেয়া যায়। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। হাসান চৌধূরী উপজেলার সোনাইকুন্ডি পশ্চিমপাড়া গ্রামের আবুল কাশেম চৌধূরীর ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা ও স্থানীয়রা জানান, স্থানীয় সাংসদ রেজাউল হক চৌধুরীর আত্বীয় হাসান চৌধূরীকে এলাকার লোকজন চুরির অভিযোগে মঙ্গলবার সকালে ধরে গণপিটুনি দিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে পুলিশে সোর্পাদ্দ করে। হাসানের অবস্থা খারাপ হওয়ায় সকাল ১০ টার দিকে দৌলতপুর থানা পুলিশ তাকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করে। অবস্থা আংশকাজনক হওয়ায় জরুরী বিভাগের ডাক্তার তাকে ভর্তি না করে ফেরত পাঠায়। অবস্থা বেগতিক দেখে, নেশার জন্য এমন করছে ভেবে, পুলিশ তাকে একটি ভ্যানে করে হেরোইন সেবনের জন্য ছেড়ে দেয়। ভ্যান চালক তাকে সাবেক সংসদ আফাজ উদ্দীনের বাড়ীর পাশে হেরো পট্টিতে নিয়ে গেলে তার মৃত্যু হয় । পরে তার লাশ ভ্যান চালক তারাগুনিয়া ডাক বাংলো চত্বরে ফেলে পালিয়ে যায়, পথ চারীরা একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। তারাগুনিয়া বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, বেলা ৩ টার দিকে একটি ভ্যানে করে তাকে তারাগুনিয়া ডাক বাংলো চত্বরে ফেলে যায়। তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার পায়ে ব্যান্ডেজ ছিল। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। সাংসদের ভাই মিন্টু চৌধুরী হাসান চৌধূরীকে পিটানোর কথা অস্বীকার করে বলেন, “স্থানীয়রা তাকে ধরে গণপিটুনি দিয়ে সকালে আমার বাড়ির সামনে নিয়ে আসলে আমি তাকে পুলিশে সোর্পোদ করি। আমি কোন ধরনের মারধর করিনি”।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিদুল ইসলাম শাহিন জানান, হাসান মাদক সেবন ও চুরি করতো। সকালে স্থানীয় লোকজন তাকে মারপিট করে পুলিশে দেয়। পরে দৌলতপুর হাসপাতালে প্রেরণ করলে ডাক্তাররা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র প্রেরন করতে বলে।

ওসি বলেন, হাসানের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ না থাকায় স্থানীয় ইউপি সদস্যের জিম্মায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।