🕓 সংবাদ শিরোনাম

যে নেতার নিজের মা মরে মরে, তাকে দেখতে আসে না আর আপনার জন্য আসবে কোন দুঃখে: শামীম ওসমান * কেরানীগঞ্জে প্যাকেজিং কারখানায় আগুন, ৩ ঘন্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে * পুলিশের উদ্ধার করা মাদক ছিনিয়ে নিয়ে প্রকাশ্যে খেল মাদকসেবীরা! * চাঁদা না দেয়ায় দোকানে হামলা ভাংচুর, ব্যবসায়ীকে মারধর * ধরাছোঁয়ার বাইরে মূল আসামিরা, মামলা তুলে নিতে হত্যার হুমকি * ভারতকে অনুরোধ করার দায়িত্ব কাউকে দেয়া হয়নি : ওবায়দুল কাদের * বঙ্গবন্ধু ভ্রাম্যমাণ রেলওয়ে জাদুঘর এখন ফরিদপুরে * কোটালীপাড়ায় একদিনে দু’জনের আত্মহত্যা * রাজবাড়ীতে মারামারি মামলায় সাংবাদিকসহ ২জন গ্রেফতার * নারায়ণগঞ্জে প্রাইভেটকারচাপায় পথচারীর মৃত্যু *

  • আজ শনিবার, ৫ ভাদ্র, ১৪২৯ ৷ ২০ আগস্ট, ২০২২ ৷

ন্যায় বিচার পাইনি, রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করব: তারেকের আইনজীবী


❏ বৃহস্পতিবার, জুলাই ২১, ২০১৬ Breaking News, জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর– তারেক রহমানের আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বলেছেন, আমরা হাইকোর্টের রায়ে ন্যায়বিচার পাইনি। তাই সর্বোচ্চ আদালতে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার ব্যাপারে চিন্তা ভাবনা করছি।IMG_93481আজ বৃহস্পতিবার হাইকোর্টে অর্থপাচার মামলায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার বন্ধু ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের রায় ঘোষণার পর প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন।

কায়সার কামাল বলেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়েই এবং রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপণ্ণ করার জন্য তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছিল, যেন তাকে রাজনীতি থেকে বিতাড়িত করা যায়। মিথ্যা মামলা দিয়ে তারেক রহমানকে রাজনীতি থেকে নিবৃত্ত করা যাবে না।

তিনি আরও বলেন, নিম্ন আদালতে এই মামলায় খালাস পেলেও হাইকোর্ট তারেক রহমানকে সাজা দিয়েছে। আমরা আশা করি আপিলে ন্যায়বিচার পাব।

এর আগে সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে মামুনের আপিল খারিজ এবং দুদকের আপিল মঞ্জুর করে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন  বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আমির হোসেনের হাই কোর্ট বেঞ্চ ।

নিম্ন আদালতের খালাসের রায়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা আপিলে তারেক রহমানের ৭ বছরের কারাদণ্ড ও সেই সাথে ২০ কোটি টাকা জরিমানা করেছে হাইকোর্ট।

এ মামলার অপর আসামি তারেকের বন্ধু ও ব্যবসায়িক অংশীদর গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের সাত বছরের কারাদণ্ডও বহাল রাখা হয়েছে। তবে তাকে বিচারিক আদালতের দেওয়া ৪০ কোটি টাকা অর্থদণ্ড কমিয়ে ২০ কোটি টাকা করা হয়েছে।

সকাল ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে রায় পড়া শুরু করেন বিচারপতি ইনায়েতুর রহিম। এর আগে অর্থ পাচার মামলায় তারেক রহমানের খালাসের রায়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা আপিলের রায় পড়া শুরু হয়।

নিম্ন আদালতে তারেকের খালাসের রায়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের আপিল এবং দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে মামুনের করা আপিলের ওপর শুনানি শেষে গত ১৬ জুন এই বেঞ্চ মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান (সিএভি) রাখেন। বিচারিক আদালতের সাজার রায়ের বিপক্ষে গিয়াস উদ্দিন আল মামুন আপিল করেছিলেন। আপিলে সাজা বাতিলের আবেদন জানানো হয়।

ঘুষ হিসেবে আদায়ের পর ২০ কোটি টাকা বিদেশে পাচারের অভিযোগে ২০০৯ সালের ২৬ অক্টোবর ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট থানায় এই মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

২০১৩ সালের ১৭ নভেম্বরে বিচার কার্যক্রম শেষে ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ মো. মোতাহার হোসেনের আদালত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমানকে বেকসুর খালাস দেন। তার বন্ধু ও ব্যবসার অংশীদার গিয়াসউদ্দিন আল মামুনকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। একই সঙ্গে ৪০ কোটি টাকা জরিমানা করেন মামুনকে।