শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগ

Lalmonirhat news
❏ মঙ্গলবার, মে ১৭, ২০২২ রংপুর

মোঃ ইউনুস আলী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার উত্তর পারুলিয়া বটতলা হাফিজিয়া মাদরাসা ও এতিমখানার শিক্ষক গোলাম রব্বানী (৩৫)কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৭ মে) দুপুরে অভিযুক্ত গোলাম রব্বানীকে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। এর আগে ১৫ মে রবিবার ঐ মাদরাসার হুজুরের কক্ষে শিক্ষার্থীকে বলাৎকারের এ ঘটনা ঘটে।

গোলাম রব্বানী ঐ উপজেলার দক্ষিণ পারুলিয়ার সাতনালা স্কুল এলাকার আব্দুল হকের ছেলে। সে উত্তর পারুলিয়া বটতলা হাফিজিয়া মাদরাসা ও এতিমখানার শিক্ষকের পাশাপাশি সেখানে অবস্থিত মসজিদের ইমামতি করেন। এর আগেও তার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ উঠেছিলো বলে অনেকেই জানান।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, ঐ মাদরাসায় হেফজ বিভাগে পড়ে পশ্চিম বেজগ্রাম এলাকার ১৩ বছরের এক শিক্ষার্থী। সে স্থানীয় লজিং বাড়িতে খাওয়াদাওয়া করে রাতে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সাথে ঐ মাদরাসায় থাকে। এদিকে রবিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে অসুস্থতার অজুহাতে হুজুর গোলাম রব্বানী হাত-প টিপে দেয়ার জন্য ঐ শিক্ষার্থীকে ডেকে তার ব্যক্তিগত রুমে নিয়ে যায়। এরপর কিছুক্ষণ পা টিপে নেয়ার পর শিক্ষার্থীর মুখ চেপে ধরে তাকে জোরপূর্বক বলাৎকার করে ঐ লম্পট শিক্ষক গোলাম রব্বানী। এসময় শিক্ষার্থী চিৎকার করতে চাইলে তাকে প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে চুপচাপ তার রুমে গিয়ে ঘুমাতে বলে।

পরদিন সকালে ঐ শিক্ষার্থীর পায়খানার রাস্তায় ব্যাথা শুরু হলে সে বাড়িতে গিয়ে কান্নাকাটি শুরু করে। শিশুটির কান্নার কারণ পরিবারের লোকজন জানতে চাইলে প্রথমে সে কাউকে কিছু বলতে না চাইলেও পরে পরিবারের চাপে সব কিছুই খুলে বলে। এরপর তার পরিবারের লোকজন বিষয়টি ঐ মাদরাসার সভাপতি মোজাম্মেল হক মোজাকে বললে তিনি বিকালে বসে সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা বলেন।

এদিকে ঐ শিক্ষার্থীর বড় ভাই সিরাজুল ইসলাম পলাশ বাদী হয়ে গোলাম রব্বানীর বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

উত্তর পারুলিয়া বটতলা হাফিজিয়া মাদরাসা ও এতিমখানার সভাপতি মোজাম্মেল হক মোজার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এবিষয়ে মাদরাসার সবাইকে নিয়ে বসে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

হাতীবান্ধা থানার অফিসার্স ইনচার্জ ওসি এরশাদুল আলম বলেন, অভিযুক্ত গোলাম রব্বানীকে আজ দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।