🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বৃহস্পতিবার, ১৬ আষাঢ়, ১৪২৯ ৷ ৩০ জুন, ২০২২ ৷

২৫৬ সেনার আত্মসমর্পণ, সুর নরম করলেন জেলেনস্কি

International news
❏ বুধবার, মে ১৮, ২০২২ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:  মারিউপোলের আজভস্টালে আড়াইশর বেশি ইউক্রেনীয় সেনা আত্মসমর্পণ করেছে বলে দাবি করেছে রাশিয়া।

মঙ্গলবার রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ইউক্রেনের ২৫৬ সৈন্য অস্ত্র ফেলে আত্মসমর্পণ করেছে, যাদের মধ্যে ৫২ জন গুরুতর আহত। এমন পরিস্থিতিতে সুর নরম করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

এতদিন তিনি বলে আসছিলেন, তাদের সৈন্যরা শেষপর্যন্ত লড়ে যাবেন, আত্মসমর্পণ করবেন না। কিন্তু এখন অবরুদ্ধ ও আত্মসমর্পনকারী সৈন্যদের জীবন বাঁচাতে সমঝোতায় রাজি তিনি।

এক ভিডিওবার্তায় জেলেনস্কি বলেছেন,‘আমরা আশা করছি, আমাদের লোকদের জীবন বাঁচাতে পারব। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত রয়েছে। তাদের সেবা দেওয়া হচ্ছে। আমি বলতে চাই, আমাদের নায়কদের (সৈনিক) জীবিত দরকার ইউক্রেনের, সেটাই আমাদের নীতি। তাদের ঘরে ফেরানোর কাজ চলছে। তবে এতে সময় দরকার।’

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, আজভস্টালের এক স্টিল কারখানায় অবরুদ্ধ ছিলে এসব ইউক্রেনীয় সেনারা। তাদের মধ্যে আহত ৫২জনকে একটি হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। অন্যদিকে আত্মসমর্পণকারী সেনাদের আরেকটি আলাদা স্থানে বন্দি করা হয়েছে। হাসপাতাল ও ওই এলাকায় দুটোই রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

ইউক্রেনীয় উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী হান্না মালিয়ার জানান, আহত সেনাদের মারিউপোল থেকে প্রায় ৩০ মাইল পূর্বে রাশিয়া-নিয়ন্ত্রিত শহর নোভোয়াজভস্কের  একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বাকিদের মানবিক করিডোরের মাধ্যমে প্রায় ৫৫ মাইল উত্তরে ওলেনিভকায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। রুশ সামরিক বন্দিদের সঙ্গে বিনিময়ের মাধ্যমে এসব সেনাদের ঘরে ফিরিয়ে আনা হবে জানান তিনি।

যদিও আজভস্টালের সেনাদের রাশিয়া যুদ্ধবন্দি হিসেবেই শুধু আটক করেছে নাকি তাদের যুদ্ধপরাধের অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি করবে সেটি এখনো নিশ্চিত নয়।

তবে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেস্কভ বলেছেন, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন আত্মসমর্পণ করা ইউক্রেনীয় সেনাদের সঙ্গে ‘আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী’ আচরণ করার গ্যারান্টি দিয়েছেন।

ইউক্রেনের ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী ইরইয়ানা ভেরেসচুক বলেছেন, জীবন বাঁচানোর বিষয়টি মাথায় রেখে, গতকাল আমাদের গুরুতর আহত ৫২ জন সেনাকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের অবস্থা স্থিতিশীল হওয়ার পর, আমরা তাদেরকে রাশিয়ার যুদ্ধ বন্দিদের সঙ্গে বিনিময় করব।