🕓 সংবাদ শিরোনাম

যে নেতার নিজের মা মরে মরে, তাকে দেখতে আসে না আর আপনার জন্য আসবে কোন দুঃখে: শামীম ওসমান * কেরানীগঞ্জে প্যাকেজিং কারখানায় আগুন, ৩ ঘন্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে * পুলিশের উদ্ধার করা মাদক ছিনিয়ে নিয়ে প্রকাশ্যে খেল মাদকসেবীরা! * চাঁদা না দেয়ায় দোকানে হামলা ভাংচুর, ব্যবসায়ীকে মারধর * ধরাছোঁয়ার বাইরে মূল আসামিরা, মামলা তুলে নিতে হত্যার হুমকি * ভারতকে অনুরোধ করার দায়িত্ব কাউকে দেয়া হয়নি : ওবায়দুল কাদের * বঙ্গবন্ধু ভ্রাম্যমাণ রেলওয়ে জাদুঘর এখন ফরিদপুরে * কোটালীপাড়ায় একদিনে দু’জনের আত্মহত্যা * রাজবাড়ীতে মারামারি মামলায় সাংবাদিকসহ ২জন গ্রেফতার * নারায়ণগঞ্জে প্রাইভেটকারচাপায় পথচারীর মৃত্যু *

  • আজ শনিবার, ৫ ভাদ্র, ১৪২৯ ৷ ২০ আগস্ট, ২০২২ ৷

বিশ্বজুড়ে ভয়াবহ খাদ্যের সংকট হতে পারে, সতর্ক করছে জাতিসংঘ


❏ বৃহস্পতিবার, মে ১৯, ২০২২ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ দ্রুত সমাধান করা না গেলে আগামী মাসগুলোতে বিশ্বজুড়ে খাদ্যের সংকট ভয়াবহ আকার ধারন করতে হতে পারে। আর এই জন্য রাশিয়া-ইউক্রেন সমস্যার দ্রুত সমাধানের তাগিদ দিয়েছে জাতিসংঘ।

নিউইয়র্কে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বুধবার (১৮ মে) রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব কতটা ভয়াবহ সেবিষয়ে কথা বলছিলেন। গুতেরেস বলেন, যুদ্ধের কারণে দামের ঊর্ধ্বগতি দরিদ্র দেশগুলোতে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতাকে আরও বাড়িয়ে তুলছে।

গুতেরেস বলেন, ইউক্রেনের রপ্তানি যদি যুদ্ধ-পূর্ব পর্যায়ে ফিরে না যায়, তবে বিশ্ব দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি হতে পারে; যা বছরের পর বছর ধরে চলতে পারে।

যুদ্ধ ইউক্রেনের বন্দর থেকে সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে, যা দিয়ে একসময় প্রচুর পরিমাণে সূর্যমুখী তেলের পাশাপাশি ভুট্টা ও গমের মতো শস্য রপ্তানি করা হতো।

সংঘাত বিশ্বব্যাপী পণ্যের সরবরাহ হ্রাস করেছে এবং দাম বৃদ্ধি করেছে। জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী খাদ্যের দাম গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি।

গুতেরেস বলেন, এই যুদ্ধ ‘অপুষ্টি, ব্যাপক ক্ষুধা এবং দুর্ভিক্ষ ছাড়াও লাখ লাখ মানুষকে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার দিকে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে।

তিনি বলেন, পৃথিবীতে এখন যথেষ্ট খাবার আছে যদি আমরা একসঙ্গে কাজ করি। কিন্তু আমরা যদি আজ এই সমস্যার সমাধান না করি, তাহলে আগামী মাসগুলোতে বিশ্বব্যাপী খাদ্য ঘাটতি মুখোমুখি হবো।

তিনি সতর্ক করে বলেন, ইউক্রেনের খাদ্য এবং রাশিয়া ও বেলারুশের উৎপাদিত সার বিশ্ব বাজারে পুনরায় না আসা পর্যন্ত খাদ্য সংকটের কোনো কার্যকর সমাধান নেই।

গুতেরেস আরও বলেন, খাদ্য রপ্তানি স্বাভাবিক পর্যায়ে ফিরিয়ে আনতে রাশিয়া ও ইউক্রেনের পাশাপাশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে ‘নিবিড় যোগাযোগ’ রাখছেন তিনি। সূত্র : বিবিসি