• আজ বৃহস্পতিবার, ১৬ আষাঢ়, ১৪২৯ ৷ ৩০ জুন, ২০২২ ৷

খালেদা জিয়া ও বিএনপির জন্য পদ্মা সেতুর নিচে নৌকা রাখা হবে: শাজাহান খান


❏ শুক্রবার, মে ২০, ২০২২ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা:আগামী মাসের যেকোনো দিন পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হবে। খালেদা জিয়া ও বিএনপির কেউ পদ্মা সেতুতে যাবেন না। আপনাদের জন্য সেখানে নৌকা রাখা হবে। আপনারা নৌকা দিয়ে পার হবেন। নৌকা ছাড়া আপনাদের উপায় নেই বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলির সদস্য শাজাহান খান।

আজ শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ফার্মাসিউটিক্যালস রিপ্রেজেনটেটিভ অ্যাসোসিয়েশন (ফারিয়া) এর কেন্দ্রীয় কমিটির সম্মেলনে শাজাহান খান এসব কথা বলেন।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে শাজাহান খান বলেন, ‘আপনারা নির্বাচনে আসুন। নির্বাচন ই একমাত্র পথ যার মাধ্যমে ক্ষমতার হস্তান্তর হতে পারে। ১৯৯৬ সালে আপনারা ক্ষমতা হস্তান্তর করেছেন। ২০০১ সালে আপনারা বিজয়ী হলে শেখ হাসিনা ক্ষমতা হস্তান্তর করেছে। জনগণ নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতার পরিবর্তন চায় অন্য কোন উপায়ে তারা ক্ষমতা হস্তান্তর চায় না।’

ফারিয়ার সদস্যদের উদ্দেশ্য করে শাজাহান খান আরও বলেন, ‘আপনাদের যৌক্তিক বিষয় আপনাদের সংগঠনকে রেজিস্ট্রেশন করা। শ্রম আইন অনুযায়ী, ছুটিসহ আপনাদের সব সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার দায়িত্ব ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর। আমি মনে করি শ্রম মন্ত্রণালয় আপনাদের সহযোগিতা করবে।’

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ‘বাংলাদেশে ওষুধ শিল্পের অভ্যন্তরীণ বর্তমান বাজার প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা। এর সিংহভাগ চাহিদা মেটায় ছোট বড় বিভিন্ন দেশীয় ওষুধ কোম্পানিগুলো। এই শিল্পের সঙ্গে জীবিকা নির্বাহ করছে দেশের অনেক লোক। তার মধ্যে প্রায় দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজারের বেশি উচ্চ শিক্ষিত যুবক যারা মাঠ পর্যায়ে বিক্রয় প্রতিনিধি হিসাবে কর্মরত আছেন। চাকরিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া থেকে শুরু করে অব্যাহতি পর্যন্ত বিভিন্ন সময় এই বিক্রয় প্রতিনিধিদের সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের অন্যায় ও অবিচার করা হয়।

এছাড়াও তাদেরকে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা যেমন সাপ্তাহিক ছুটি, সরকারি ছুটি থেকে বঞ্চিত করে তাদেরকে দিয়ে কাজ করিয়ে নেওয়া হয়। প্রতি দিন আট ঘণ্টার বেশি প্রায় ১২ থেকে ১৬ ঘণ্টা জোর করে ফিল্ডে কাজ করানো হয় অতিরিক্ত শ্রম ঘণ্টার কোন টাকা প্রদান করা হয় না।’

তারা আরও বলেন, ‘অনেক ওষুধ কোম্পানি ঠিকমতো প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্র্যাচুইটি, চিকিৎসা ব্যয়, আনলিভ প্রদান করে না। চাকরি প্রদানের সময়ে শিক্ষা সনদ/সার্টিফিকেট, ব্যাংক চেক ও জোর পূর্বক অবৈধ চুক্তি সম্পাদন করিয়ে নেওয়া হয়।’

অনুষ্ঠানে ফার্মাসিউটিক্যালস রিপ্রেজেনটেটিভ অ্যাসোসিয়েশন (ফারিয়া) দেশের সরকার ও সকল ওষুধ কোম্পানিকে অনুরোধ করছে তারা যেন তাদের বিক্রয় কর্মীদের শ্রম আইনে প্রাপ্য সকল সুযোগ-সুবিধা প্রদান করেন।