কৈতক হাসপাতালসহ তিন উপজেলার ৫টি কমিউনিটি ক্লিনিক প্লাবিত, দুর্ভোগ


❏ রবিবার, মে ২২, ২০২২ দেশের খবর, সিলেট

জাহাঙ্গীর আলম ভুঁইয়া, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার কৈতক ২০ শয্যা হাসপাতালসহ তিন উপজেলার পাচঁটি কমিউনিটি ক্লিনিক উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে প্লাবিত হওয়ায় বিঘ্নিত হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা।

দূর-দূরান্ত থেকে আসা রোগীরা সেই পানিতে ভিজেই হাসপাতাল ও কমিউনিটি ক্লিনিকে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা হাঁটুসমান পানি পাড়ি দিয়ে হাসপাতালের নিতে দেখা গেছে মানুষ জনকে। এছাড়াও নদী উপচে জনবসতিতে পানি প্রবেশ করায় দুর্ভোগ বেড়েছে। এতে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানাযায়, জেলার ছাতক উপজেলার কৈতক ২০ শয্যা হাসপাতালের ভেতরে বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে পানি বৃদ্ধি পাওয়া হাঁটুসমান পানি। কেন্দ্রের সামনের যোগাযোগ সড়কে কোমর সমান পানি। এই অবস্থায় পানিতে ভিজেই হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসছে সেবা গ্রহীতারা। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়ছেন হাসপাতালে আসা অন্তঃসত্ত্বা নারীরা।

কৈতক ২০ শয্যা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. রুবাইয়া ফেরদৌস জানান, এত ভোগান্তির মধ্যেও চিকিৎসাসেবা অব্যাহত রেখেছি। এছাড়া হাসপাতালের পাশাপাশি চিকিৎসক ও নার্সদের আবাসিক ভবনও নিমজ্জিত পাহাড়ি ঢলের পানিতে।

সুনামগঞ্জ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানাযায়, জেলার ছাতক উপজেলার একটি হাসপাতাল ও একটি কমিউনিটি ক্লিনিক, তাহিরপুরে তিনটি কমিউনিটি ক্লিনিক, দোয়ারা বাজারে একটি কমিউনিটি ক্লিনিক প্লাবিত হয়েছে। এতে প্রায় অর্ধলক্ষাধিক মানুষ স্বাস্থ্যসেবা পেতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রহমান মিয়া বলেন, আমার স্ত্রীকে হাসপাতালে নিয়ে আসছি। হাসপাতালের সামনে এসে দেখি কোমর সমান পানি। পরে স্ত্রীকে কোলে নিয়ে হাসপাতালের ভেতরে প্রবেশ করি।

শফিকুল ইসলাম বলেন, কয়েক দিন ধরে হাসপাতালে ছেলেকে নিয়ে ভর্তি আছি। চারদিকে পানি হাসপাতালের নিচতলাও প্লাবিতে হয়েছে। হাসপাতাল থেকে বাইরে যাওয়ার কোনো রাস্তা নেই।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা হামিদা বেগম বলেন, হাসপাতালে এসেছিলাম ডাক্তার দেখাতে এখন হাসপাতালের সামনে কোমর সমান পানি অনেক কষ্টে করে হাসপাতালে এসে ডাক্তার দেখিয়ে বাসায় যাচ্ছি। তবে হাসপাতালে ভেতরে পানি ঢুকে পড়ায় আমাদের অনেক ভোগান্তি হয়েছে।

হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা শিউলি বেগম জানান, হাসপাতালের সড়কে পানি বেশি, আর বিকল্প সড়ক না থাকায় ডাক্তার না দেখিয়ে ফার্মেসী থেকে ঔষধ নিয়ে বাড়ি যাচ্ছি।

সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল্লাহ আল বেরুনি খান বলেন, ছাতকের কৈতক হাসপাতালসহ পাঁচ কমিউনিটি ক্লিনিকে পানি উঠেছে। বিকল্প স্থানে স্বাস্থ্যসেবা চালু রাখা হয়েছে। আমরা আগত সেবা গ্রহীতাদের সর্বোচ্চ সেবা দিতে চেষ্টা করছি।