• আজ বুধবার, ২৬ শ্রাবণ, ১৪২৯ ৷ ১০ আগস্ট, ২০২২ ৷

পদ্মা সেতু সরকারের একটি ভেল্কিবাজি: রিজভী


❏ সোমবার, জুন ২০, ২০২২ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা: দেশের সবচেয়ে বড়-পদ্মা সেতু সরকারের একটি ভেল্কিবাজি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

সোমবার (২০ জুন) বেলা ১১টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার স্বার্থে অবিলম্বে বিদেশে প্রেরণ এবং বন্যা দুর্গত অঞ্চলে পর্যাপ্ত সহায়তা পৌঁছানোর দাবিতে গণতন্ত্র ফোরাম আয়োজিত প্রতিকী অবস্থান কর্মসূচিতে তিনি এ কথা বলেন।

রিজভী বলেন, ‘সিলেটের বন্যা আমরা যা দেখছি সকালে হাঁটুপানি দুপুরে মধ্যে কোমর পানি। গোটা সুনামগঞ্জ শহর রীতিমতো পানিতে ভাসছে। আর আপনি ভাসছেন আনন্দে আত্মহারা হয়ে পদ্মা সেতু দেখিয়ে। পদ্মা সেতু যে ভেলকিবাজি এটা জনগণ জানে যে তামাশা করছেন। জনগণের সাথে একটা মশকরা করছেন, ভেলকিবাজি দেখাচ্ছেন।’

তিনি বলেন, সিলেট ও সুনামগঞ্জে ৫০ লাখ লোক পানিবন্দি। তাদের জন্য এক থেকে দেড় টাকা, আর পদ্মা সেতুর বিচিত্রা অনুষ্ঠানে ভারত থেকে আসা একজন নৃত্যশিল্পী তাঁকে নাকি দেবেন তিন কোটি টাকা। আর সিলেটে বন্যার্ত মানুষ, সুনামগঞ্জে বন্যার্ত মানুষ, নেত্রকোনার বন্যার্ত মানুষ, কুড়িগ্রামের বন্যার্ত মানুষের জন্য এক থেকে দেড় টাকা।

রিজভী হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘জনগণের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দি করে তাকে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর দিকে আপনি ঠেলে দেবেন, এটা আর এদেশের মানুষ সহ্য করবে না। সময় এসেছে আপনার সরকারের গলায় গামছা দিয়ে রাজপথে নামাবে বাংলার মানুষ। সেই প্রত্যয় সেই অঙ্গীকার নিয়ে এখন মানুষ রাজপথে নেমে পড়বে।’

সরকারের উদ্দেশ্যে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আপনারা নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দিবেন তাহলে আজকে কেন রাত আটটা থেকে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের জন্য নির্দেশ দিচ্ছেন। কারণ কোথাও নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নেই। ঢাকায় এখন এক থেকে দেড় ঘণ্টা বিদ্যুৎ চলে যাচ্ছে। আপনি যে সকল আইন করেছেন শুধু আপনার লোকজনদের ধনী করার জন্য, আঙুল ফুলে কলাগাছ হওয়ার জন্য। আপনাদের লোকজন যাতে বাংলার মানুষের ভাগ্য হরণ করে নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারে এবং এই টাকা বিদেশে পাচার করতে পারে, আপনি সেই সুযোগ করে দিচ্ছেন।’