• আজ সোমবার, ৩১ শ্রাবণ, ১৪২৯ ৷ ১৫ আগস্ট, ২০২২ ৷

বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেক পোষ্ট দিয়ে ভারতীয় ভিসার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

Panchagarh Press Confarence For Indian Visa News
❏ সোমবার, জুন ২৭, ২০২২ রংপুর

নাজমুস সাকিব মুন, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: বাংলাবান্ধা-ফুলবাড়ি ইমিগ্রেশন রুটে ভারতীয় ভিসা চালুর দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার দুপুরে পঞ্চগড় চেম্বার অব কমার্স ভবনে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর আমদানি রপ্তানীকারক গ্রুপ।

সংগঠনটির সভাপতি আব্দুল লতিফ তারিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সাধারন সম্পাদক কুদরত-ই-খুদা মিলন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০১৬ সালে বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট চালু হয়। ভারতীয় দূতাবাস ফুলবাড়ি রুটে ভিসা প্রদান শুরু করলে ভারতের সাথে ব্যবসার পাশাপাশি যাতায়াতও শুরু হয়। কিন্তু ২০১৯ সালে কোভিট ১৯ সংক্রমন ঠেকাতে ভারতে বিদেশী নাগরিকদের যাতায়াত বন্ধ করে দেয়া হয়। করোনা সংক্রমন কমে গেলে ২০২১ সালের শুরুর দিকে পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন রুটে ভিসা দেয়া শুরু করে ভারতীয় সরকার। গত মার্চ মাস থেকে সবধরনের ভিসা দেয়া শুরু করেন তারা। কিন্তু ভিসায় রুট নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন দেশের একমাত্র চতুর্দেশীয় বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর সংশ্লিষ্ট ভারত, নেপাল এবং ভূটানের যাত্রীরা।

তিনি বলেন, এই স্থলবন্দরের সাথে সংশ্লিষ্ট ভারতের ফুলবাড়ি স্থলবন্দর রুটে ভারতীয় ভিসা দেয়া হচ্ছেনা। তাই দেশের অন্যান্য স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে প্রবেশ করা গেলেও বাংলাবান্ধা দিয়ে যেতে পারছেনা বাংলাদেশীরা।

এই ইমিগ্রেশন দিয়েই বাংলাদেশী শিক্ষার্থী, রোগী, ব্যবসায়ীসহ পর্যটকরা ভারত, নেপাল এবং ভূটানে যাতায়াত করেন। এই রুটে ভিসা না দেয়ায় সমস্যায় পড়েছে স্থানীয়সহ দেশের হাজারো মানুষ। করোনার আগে এই রুটে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ ভারত, নেপাল, ভুটান এবং ভারতের দার্জিলিং, সিকিম সহ বিভিন্ন পর্যটন এলাকায় যাতায়াত করতো। অনেকে চিকিৎসা এবং ব্যবসার নানা কাজে ভারতে ভ্রমণ করতো। কিন্তু ভিসা না দেয়ার কারণে নানা সমস্যায় পড়েছেন বাংলাদেশীরা। বিশেষ করে ব্যবসায়িরা সংকটে পড়েছেন। তারা অতিদ্রুত ফুলবাড়ি বন্দর দিয়ে ভিসা দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন পঞ্চগড় চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি শরিফ হোসেন, সাবেক সভাপতি আব্দুল হান্নান শেখ, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারন সম্পাদক আবু তোয়বুর রহমান প্রমুখ। এসময় পঞ্চগড় জেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সংবাদ কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।