🕓 সংবাদ শিরোনাম

লালমনিরহাটে সাংবাদিকদের উপর হামলাকারী সেই সাহেদ আলী মন্ডল গ্রেপ্তার * কক্সবাজারে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ২ জন নিহত * পঞ্চগড়ে হিজাব নিয়ে কটুক্তির অভিযোগে শিক্ষক বরখাস্ত * গাজীপুরে দ্রুতযান এক্সপ্রেসের একাধিক বগি লাইনচ্যুত, উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চলের ট্রেন চলাচল বন্ধ * ঈশ্বরদীতে রেলস্টেশন থেকে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার * আন্দোলন করুক, কাউকে যেন গ্রেফতার করা না হয়: প্রধানমন্ত্রী * পিরোজপুরে জোয়ারের পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত * পাবনায় স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদন্ড * বঙ্গোপসাগরে সুস্পষ্ট লঘুচাপ, পটুয়াখালী পৌর শহরসহ নিম্নাঞ্চল প্লাবিত * বুয়েটে পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে: জয় *

  • আজ সোমবার, ৩১ শ্রাবণ, ১৪২৯ ৷ ১৫ আগস্ট, ২০২২ ৷

কিশোরগঞ্জ কটিয়াদী বাজারে উঠেছে কাঠলিচু

Kishogonj news
❏ সোমবার, জুলাই ৪, ২০২২ ঢাকা

ছাইদুর রহমান নাঈম, কটিয়াদী ( কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি: একসময় গ্রামের বন জঙ্গলে অযত্নে বেড়ে উঠতো কাঠলিচু ( আঁশফল) গাছ। কিন্তু বর্তমান সময়ে এটি দুষ্প্রাপ্য ফল হয়ে যাচ্ছে। পরিবেশ থেকে হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে ফলটি। আঁশফল গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ফল। একে বলা হয় গরীবের লিচু। ফল গোল আকারের, শাঁস সাদা, খুব রসালো ও মিষ্টি। এক সময় দেশের পূর্ব দক্ষিণাঞ্চলের চাষ উপযোগী এই আঁশফল খেয়ে আষাঢ় উদযাপন করেছে বাঙালি

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী বাজারে উঠতে শুরু করেছে লিচুর মত দেখতে রসালো আঁশফল ।  অনেকের কাছে এটি ‘কাঠলিচু’ বা ‘লংগান’ নামে পরিচিতি। এই ফল থোকায় থোকায় লিচুর মতোই ঝুলে থাকে গাছে। এটি দেখতেও অনেকটা লিচুর মতো গোলাকার। তবে আকারে ছোট এবং এর রসাল অংশ খুবই কম।

আঁশফল এক প্রকার লিচু জাতীয় সু-স্বাদু ফল। আঁশফল গাছ মধ্যমাকারের চির সবুজ বৃক্ষ। যা ৬ থেকে ১০ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। বেলে মাটিতে এই গাছ জন্মে। আপেল, কমলা, আঙ্গুর, লিচুতে আশক্ত হয়ে এই ফলটির কদর হারিয়েছে। আঁশফল লিচু পরিবারের একটি সদস্য। ফলের উপেরভাগ মিশ্রণ, ফলের রং বাদামি, আকার গোল। লিচুর চেয়ে অনেক ছোট হলেও ফলের শাঁস অবিকল লিচুর মত। ফল খেতে লিচুর মত বা লিচুর চেয়েও মিষ্টি। ফলের শাঁস সাদা চকচকে। আঁশফলের বিজ গোলাকার চকচকে কালো এবং শাঁস বীজকে আবৃত করে রাখে। যা সহজে আলাদা করা যায়।

আঁশ ফলের বীজ থেকে চারা উৎপাদন করা যায়। বীজ থেকে উৎপাদিত গাছ হুবহ মাতৃগুণ বহন করে না। আর ফল ধরতে দীর্ঘ সময় লাগে। এটি গুটি কলম করে এর বংশ বিস্তার করা যায়। সম্প্রতি বাংলাদেশ আঁশফল বেশ কিছু উন্নত মানের যাত প্রবর্তনের মাধ্যমে বিস্তার লাভ করেছে।

বারি আঁশফল-১ ও বারি আঁশফল-২ নামে উন্নত জাত বাংলাদেশে সর্বত্র মুক্তায়ন করা হয়েছে। আঁশফলে বিভিন্ন খনিজ উপাদান, শর্করাা ও ভিটামিন সি এর প্রচুর উপাদান পাওয়া যায়। আঁশফলের শুকানো শাঁস থেকে ভেজস ঔষধ তৈরী করা যায়। অবসাদ দূর করতে এর দারুণ সু-নাম রয়েছে। হৃদযন্ত্রের সুরক্ষা ও সক্রিয় রাখতে আঁশফল আপকারী ভূমিকা পালন করে।

আঁশফল গ্রামঞ্চাল ও বাজার মিলিয়ে বিক্রি হচ্ছে ১শ টি ফল ৫০ টাকা থেকে ৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এলাকার এক একটি আঁশফল গাছ পাইকারী ৮শ টাকা থেকে আড়াই হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা গাছ থেকে আঁশফল পেড়ে স্থানীয় বাজারে খুচরা বিক্রি করছে।

আঁশফল ব্যবসায়ী উপজেলার বনগ্রাম ইউনিয়নের নদনা গ্রামের জুলহাস মিয়া জানান, আঁশফল পাঁকা শুরু হলে তাড়া তাড়ি না পাড়লে ঝরে পড়ে। তাছাড়া বাদুর একবার টের পেলে দল বেঁধে এক রাতেই সব ফল খেয়ে ফেলে। এ জন্য অনেকেই আঁশফল গাছে নেট দিয়ে ঢেকে রাখছে বাদুরের হাত থেকে রেহায় পেতে। আঁশফলের স্বাদ আগস্ট মাস পর্যন্ত পাওয়া যায় বলে বর্তমানে বাজারে এর কদর বেড়েছে। এর ফলে ব্যবসায়ীরাও লাভবান হচ্ছে।