🕓 সংবাদ শিরোনাম

ফতুল্লায় মাথা থেঁতলে স্ত্রীকে হত্যা, স্বামী গ্রেফতার * তেলের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে আধা বেলা হরতালের ডাক * নজরদারির অভাব: শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ এলাকায় অপরাধীদের আনাগোনা * মুখ ফসকে অনাকাঙ্ক্ষিত শব্দ বেরিয়ে গেছে: গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী * মাধবপুরে নিখোঁজের ৩ দিন পর গাছে মিলল ঝুলন্ত দেহ * জিয়া কখনই প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না: হানিফ * প্রতিরোধ নারায়ণগঞ্জ থেকে শুরু হবে, খেলায় আমরাই জিতব: শামীম ওসমান * সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত * স্কুলছাত্রের ঘরে ঢুকে দরজা আটকালেন কলেজছাত্রী, রাত গভীরে গ্রাম্য সালিসে হলো বিয়ে * সালথায় আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরে চাঁদাবাজি, আটক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের স্বামী *

  • আজ মঙ্গলবার, ১ ভাদ্র, ১৪২৯ ৷ ১৬ আগস্ট, ২০২২ ৷

‘মানুষ এখন স্বার্থপর, বিপদে এগিয়ে আসে না সাহায্যের পরিবর্তে ভিডিও করে’

Jaganath university news
❏ রবিবার, জুলাই ২৪, ২০২২ ঢাকা

এস এম শাহাদাত হোসেন অনু, জবি: ‘মানুষ এখন অনেক স্বার্থপর হয়ে গেছে। একজনের বিপদে আরেকজন এগিয়ে আসে না। সবাই দেখে তার পাশের মানুষটা বিপদে পড়েছে, কিন্তু না দেখার ভান করে থাকে। যেন সে কিছুই জানে না। আরেক শ্রেণির মানুষ আছে যারা ছবি তুলে, ভিডিও করে কিন্তু সাহায্য করে না।’

ক্ষুব্ধ মনে গণমাধ্যমকে এসব কথা বলেন সম্প্রতি আলোচিত ‘সাহসি কন্যা’ আখ্যা পাওয়া জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থী পারিসা আক্তার।

পারিসা আক্তার বলেন, ‘একটা কালো টিশার্ট পরা ছিনতাইকারী এসে যখন আমার ফোন ছিনিয়ে নেয় তখন শুধু আমিই দৌড়ে গেছি। রাস্তায় আমার পাশে অনেক মানুষ ছিল। আমি চিৎকার করেছি কিন্তু তারা আমাকে সাহায্য করেনি। একটু পরেই আরেকজন ছিনতাইকারী যখন একই জায়গা থেকে অন্যজনের ফোন ছিনতাই করে আমি নিজে দৌড়ে গিয়ে তাকে পাকড়াও করি। কিন্তু আমার সাহায্যে কেউ আসলো না।’

পারিসা আক্তার জবির প্রাণিবিদ্যা বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের শিক্ষার্থী। তিনি প্রাণিবিদ্যা বিভাগ থেকে স্নাতক শেষে করেছেন। স্নাতকোত্তরে গবেষণার (থিসিস) কাজে গত বৃহস্পতিবার মিরপুর চিড়িয়াখানায় যান। ফেরার পথে সন্ধ্যা ৬টার দিকে কারওয়ান বাজারে তার মোবাইল ফোন ছিনতাই হয়। পারিসার ওই মোবাইলেই ছিলো তার গবেষণার সকল গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। তা হারিয়ে পাগল প্রায় এখন পারিসা।

মোবাইল ও তথ্যাদি হারিয়ে গবেষণা (থিসিস) থেকে ড্রপআউটের শঙ্কায় আছেন তিনি। পারিসা বলেন, ‘দীর্ঘ এক বছর আমি হাতি নিয়ে গবেষণা করছি। সেই সূত্রে মিরপুর চিড়িয়াখানায় আমার দীর্ঘদিনের যাওয়া-আসা। কিন্তু একদম শেষে এসে ফোন হারিয়ে আমি সব হারিয়েছি। ফোন এবং গবেষণার (থিসিস) তথ্যাদি না পেলে আমার বড় ক্ষতি হয়ে যাবে।’

পারিসার গবেষণাপত্র জমা দিতে হবে ২৫ থেকে ২৮ জুলাইয়ের মধ্যে। দীর্ঘদিনের এ গবেষণার তথ্যাদি তার পক্ষে মাত্র দুদিনে সংগ্রহ করা সম্ভব নয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘স্যারদের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। উনারা বললেন, প্রথম দিন জমা দিতে না পারলেও শেষ দিনে জমা দিতে হবে। অন্যথায় ড্রপআউট হয়ে যাবে।’

তবে এই মুহূর্তে একটাই চাওয়া পারিসার। দেশের চুরি ও ছিনতায়ের স্থায়ী সমাধান চান তিনি। সময়ের কণ্ঠস্বরকে তিনি বলেন, ‘আমি এখনও ট্রমার ভিতর আছি। সেই স্মৃতিগুলো আমার চোখের সামনে ভাসছে। আমি শান্তিতে ঘুমাতে পারছি না। কি নির্মমভাবে আমার ফোন ছিনতাই হয়েছে আমিই জানি। ওরা (ছিনতাইকারীরা) ধরা পড়ে আবার জামিন হয়। আবার ছিনতাই করে। ভুক্তভোগী হই আমরা সাধারণ মানুষেরা। আমি এই চুরি-ছিনতাইয়ের স্থায়ী সমাধান চাই।’

তিনি বলেন, ‘শুধু আমার ফোন পাওয়াটাই বড় কথা না। আমি চাই আমার মতো কেউ যেন এমন ঘটনার শিকার না হয়, আমি সেই নিশ্চয়তা চাই। এই চুরি ছিনতাইয়ের স্থায়ী সমাধান চাই।’

এদিকে ছিনতায়ের দুই দিন পার হলেও মোবাইলটি উদ্ধার করতে পারেনি তেজগাঁও থানা পুলিশ। মোবাইলটি উদ্ধারের সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে বলে জানান তেজগাঁও থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শাহ আলম। ঢাকা মেইলকে তিনি বলেন, ‘ছিনতাইয়ের শিকার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রীকে সহযোগিতার জন্য আমাদের পুরো টিম কাজ করছে। আমরা বেশ কিছুদূর এগিয়েছি। খুব দ্রুতই এ চক্রকে গ্রেপ্তার করতে পারবো এবং ফোন উদ্ধার হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড.মোস্তফা কামাল বলেন, ‘আমরা বিষয়টি জেনেছি। আইনি কোনো সহায়তা প্রয়োজনে আমরা সব সময় পাশে আছি।’