মা-ছোট ভাইয়ের বসতঘর দখলে নিতে বড় ভাইয়ের সন্ত্রাসী হামলা!

Cox's Bazar news
❏ সোমবার, জুলাই ২৫, ২০২২ চট্টগ্রাম

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, কক্সবাজার: কক্সবাজার সদরের খরুলিয়ায় মা-ছোট ভাইয়ের বসতঘর দখলে নিতে দিনেদুপুরে সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে আপন বড় ভাইসহ স্বজনদের বিরুদ্ধে। এতে মা-ভাই ও ভাগিনাসহ ৪ জন মারাত্মকভাবে আহত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহতদের একজন মাথায় ও বাকিরা শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত পেয়েছেন বলে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

রবিবার (২৪ জুলাই) বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে ঝিলংজা ইউনিয়নের খরুলিয়া কোনারপাড়া এলাকার ডাক্তার আবুল খাইরের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

হামলায় আহতরা হলেন, নুর আয়েশা (৬৫), আব্দুল্লাহ (৩০), বোরহান উদ্দিন (১৬), কায়সার ইসলাম (১৫)। তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় কক্সবাজার সদর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

তাদের অভিযোগ, কোনারপাড়া এলাকার মৃত আবুল খাইরের ছেলে সাবের আহমদ (৩৭) ও তারা শ্বশুর বাড়ির লোকজনসহ ভাড়াটিয়া ৮/১০ জন সন্ত্রাসী বাহিনীর লোকজন এ হামলায় অংশ নেন।

ভুক্তভোগী নুর আয়েশা অভিযোগ করে বলেন, কোনারপাড়া এলাকায় আমার ভোগ দখলীয় জায়গায় বসতঘর দখলের উদ্দেশ্যে একদল সন্ত্রাসী দখলবাজ চক্র বসতবাড়িতে এলোপাতাড়ি মারধর, হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। বিয়ের পর থেকে ছেলে-মেয়েরকে নিয়ে কোনারপাড়া সড়কের পাশে লাগোয়া আমার বসতবাড়িটি নির্মাণ করে দীর্ঘ ৫০ বছর ধরে ওই জায়গা ভোগ দখল করে আসছি। কয়েকবছর ধরে ওই জমিসহ বসতঘরটির উপর ছেলে সাবের আহমদ ও তার শ্বশুরবাড়ির লোকজনের লুলোপ দৃষ্টি পড়ে। এরপর থেকে ভূমিদস্যু সাবেরের নেতৃত্বে একদল দখলবাজ সন্ত্রাসী জায়গা দখলে নিতে অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এমনকি বসতঘরসহ জায়গা ছেড়ে দেয়ার জন্য তারা প্রতিনিয়ত আমাকে নানা হুমকি দিয়ে আসছে। নিরুপায় হয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ শালিসকারদের ধারস্থ হয়েও কোন প্রতিকার পাচ্ছিনা। এমনকি সাবের স্থানীয় কারো কথাও কর্ণপাত করছেনা।

তার ধারাবাহিকতায় গতকাল আমার বসতঘরের জায়গা দখলে নিতে ওই দখলবাজ সন্ত্রাসীরা হামলা ও ভাংচুর চালায়। প্রতিবাদ করতে গেলেই আমার ছেলে আব্দুল্লাহ, নাতী বোরহান উদ্দিন ও কায়সার ইসলামের উপর অতর্কিত হামলা চালায় সাবের ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা। এসময় আমাদেরকে হামলা করতে গিয়ে সাবেরের মাথায় তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের আঘাত লাগে। এটা নিয়ে উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে জোর ততবির চালাচ্ছে সাবের। বর্তমানে আমি আমার ছেলেদেরকে নিয়ে তাদের ভয়ে মানুষের বাড়িতে বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে রাত যাপন করতেছি। এই নিয়ে বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছি।

নুর আয়েশা আরো বলেন, আমি একজন বিধবা অসহায় মহিলা হিসেবে ছোট ছেলেদের নিয়ে আমার স্বামীর দখলে রাখা এ ভিটামাটি আগলে ধরে বেঁচে থাকতে চাই। এনিয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

স্থানীয় বাদশামিয়া, শহিদুল্লাহ শকুসহ শালিসকাররা জানান, সাবের একজন খারাপ প্রকৃতির লোক, তার উদ্দেশ্য মা-ভাইদের বাড়ি থেকে বের করে দিয়ে পুরো জমিসহ বসতঘরটি দখলে নেওয়া। একাধিকবার শালিসকাররা বৈঠকে বসে সুরাহা করতে চেষ্টা করলেও সাবের কারো কথা কর্ণপাত করেনা। তারা সাবেরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্রিষ্ট প্রসাশনের হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন।

এবিষয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) সেলিম উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় দুইপক্ষের অভিযোগ নেয়া হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।