এইমাত্র
  • পবিত্র মক্কায় বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু
  • জাপা জোট করবে কিনা জানতে চায় যুক্তরাষ্ট্র
  • ৯০ হজ এজেন্সিকে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের শোকজ
  • গাজীপুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান হলেন আজমত উল্লা খান
  • ইনশাআল্লাহ, দেশ সংকটে পড়বে না: প্রধানমন্ত্রী
  • কাল থেকে পিয়াজ আমদানির অনুমতি: কৃষি মন্ত্রণালয়
  • সংকট সমাধানে আ.লীগ সরকার দিন-রাত কাজ করছে: ওবায়দুল কাদের
  • তীব্র তাপদাহের কারণে সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা
  • বিএনপি'র কোনো পদে না থাকলেও বহিষ্কার করা হলো স্বতন্ত্র মেয়রপ্রার্থীকে
  • আরও দুই সপ্তাহ লোডশেডিং হতে পারে: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী
  • আজ সোমবার, ২১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ | ৫ জুন, ২০২৩
    আন্তর্জাতিক

    বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন বাধাগ্রস্ত করলে ভিসা দেবে না যুক্তরাষ্ট্র

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৩, ১২:৩৯ এএম
    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৩, ১২:৩৯ এএম

    বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন বাধাগ্রস্ত করলে ভিসা দেবে না যুক্তরাষ্ট্র

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৩, ১২:৩৯ এএম

    বাংলাদেশে যেন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, সে লক্ষ্যে নতুন একটি ভিসা নীতি ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এর আওতায় বাংলাদেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন না হলে তার জন্য দায়ী ব্যক্তি এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ দেওয়া হবে।

    বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন এক টুইটবার্তায় এ ঘোষণা দেন। পরে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ব্রিফিংয়েও এ তথ্য নিশ্চিত করেন মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার।

    বুধবার বাংলাদেশ সময় রাত ১১টা ৮ মিনিটে এক টুইটবার্তায় মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের আগামী জাতীয় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করার লক্ষ্যকে সহায়তা করতে আমি আজ ইমিগ্রেশন অ‌্যান্ড ন্যাশনালিটি অ্যাক্টের ২১২ (এ) (৩) (সি) (৩সি) ধারার আওতায় নতুন ভিসা নীতি ঘোষণা করছি। এই নীতির অধীনে, যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক নির্বাচন প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য দায়ী বা জড়িত বলে মনে করা যেকোনো বাংলাদেশি ব্যক্তির ওপর ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ করতে পারবে।

    বর্তমান ও সাবেক বাংলাদেশি কর্মকর্তা/কর্মচারী, সরকারপন্থি ও বিরোধী রাজনৈতিক দলের সদস্য এবং আইন প্রয়োগকারী, বিচার বিভাগ ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের নতুন এই নীতির আওতায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

    পরে বাংলাদেশের মার্কিন দূতাবাস থেকে দেওয়া এ সম্পর্কিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, গণতান্ত্রিক নির্বাচন প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করে এমন কাজের মধ্যে রয়েছে- ভোট কারচুপি, ভোটারদের ভয় দেখানো, সহিংসতার মাধ্যমে জনগণকে সংগঠিত হওয়ার স্বাধীনতা, শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অধিকার প্রয়োগ করতে বাধা দেওয়া এবং বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে রাজনৈতিক দল, ভোটার, সুশীল সমাজ বা গণমাধ্যমকে তাদের মতামত প্রচার করা থেকে বিরত রাখা।

    ব্লিনকেন বলেন, ‘অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের দায়িত্ব ভোটার, রাজনৈতিক দল, সরকার, নিরাপত্তা বাহিনী, সুশীল সমাজ ও গণমাধ্যমসহ সবার। যারা বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে এগিয়ে নিতে চায় তাদের সকলকে আমাদের সমর্থন দিতে আমি এই নীতি ঘোষণা করছি।’

    গত ৩ মে বাংলাদেশ সরকারকে এই সিদ্ধান্তের ব্যপারে অবহিত করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে বলে বিবৃতিতে।

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…