এইমাত্র
  • বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হলেন আরও ৩ জন
  • বাবা মানে কাটছে ভালো, যাচ্ছে ভালো দিন
  • মারা গেলেন ‘জল্লাদ শাহজাহান’
  • পদ্মা নদীতে গোসলে নেমে দুই ভাইসহ ৩ শিশুর মৃত্যু
  • আজ ফুটবলের ম্যাজিশিয়ান বিশ্বকাপ জয়ী মেসির জন্মদিন
  • খালেদা জিয়াকে খাবারে ওষুধ মিশিয়ে অসুস্থতা করা হয়েছে: রিজভী
  • অভিযুক্তদের বিদেশযাত্রা বন্ধে নির্দেশনা পেলে ব্যবস্থা : আইজিপি
  • বিল বকেয়া থাকায় বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন চট্টগ্রাম মেডিকেল
  • আমাদের তো প্রতিদিন কথা হয়, তাহসান প্রসঙ্গে মিথিলা
  • খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে অভিযোগ হাস্যকর বস্তুতে পরিণত করছে: আইনমন্ত্রী
  • আজ সোমবার, ১০ আষাঢ়, ১৪৩১ | ২৪ জুন, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    সাভার থেকে এক জেএমবি গ্রেপ্তার

    সাদ্দাম হোসেন, সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি প্রকাশ: ২৮ মে ২০২৩, ০১:৪৮ পিএম
    সাদ্দাম হোসেন, সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি প্রকাশ: ২৮ মে ২০২৩, ০১:৪৮ পিএম

    সাভার থেকে এক জেএমবি গ্রেপ্তার

    সাদ্দাম হোসেন, সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি প্রকাশ: ২৮ মে ২০২৩, ০১:৪৮ পিএম

    সাভারের আশুলিয়ায় অভিযান চালিয়ে সংগঠন নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি জামায়াতুল মুজাহেদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) মো. আনারুল ইসলাম (৩০) নামের এক সক্রিয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট (এটিইউ)।

    শনিবার (২৭ মে) দুপুর ২টার দিকে বাংলাদেশ পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের মিডিয়া অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস উইংয়ের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আসলাম খান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

    এর আগে, শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে আশুলিয়ার জিরাবো ম্যাগপাই বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

    গ্রেপ্তারকৃত, মো. আনারুল ইসলাম নীলফামারী জেলার সদর থানার সুটিপাড়া ফুলতলা গ্রামের মো. মফিজ উদ্দিনের ছেলে। তিনি ঢাকার আশুলিয়ার বিভিন্ন কারখানায় ওয়েলডিং মিস্ত্রি হিসেবে চাকরি করতেন। এর আড়ালে গত দেড় বছর নাম পরিচয় গোপন করে জেএমবির সাংগঠনিক কাজ করে আসছেন। তিনি মূলত ২০১৫ সাল থেকে অর্থাৎ দীর্ঘ আট বছর ধরে নিষিদ্ধ জেএমবির সদস্য হয়ে বাংলাদেশের অখণ্ডতা, সংহতি ও জননিরাপত্তা বিপন্ন করার জন্য সাংগঠনিকভাবে সক্রিয় আছেন।

    জিজ্ঞাসাবাদে আনারুল জানান, তিনি প্রথমে হানাফি মাযহাবের তরিকায় নামাজ পড়তেন পরবর্তীতে মাযহাব পরিবর্তন করে আহলে হাদিসের তরিকায় নামাজ পড়া শুরু করেন। তখন নীলফামারী ইপিজেড এলাকায় চাকরি করার সময় জেএমবি সদস্য আহিদুলের সাথে তার পরিচয় হয়। আর পরবর্তীতে তার মাধ্যমে তিনি জেএমবিতে দীক্ষিত হয়।

    প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের পুলিশ সুপার (মিডিয়া) মোহাম্মদ আসলাম খান জানান, গ্রেপ্তারকৃত আনারুল ইসলাম জেএমবির সক্রিয় সদস্য হয়ে সংগঠনকে সমর্থন, চাদাঁ প্রদান, পরিকল্পনা, প্ররোচনায় সহায়তা দিয়ে আসছিলেন। তিনি জেএমবির সদস্যপদ গ্রহণ করে তার সহযোগীদের সাথে পরস্পর যোগসাজোসে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি, প্রজাতন্ত্রের সম্পত্তির ক্ষতিসাধন ও ধর্মীয় উগ্রবাদ মতাদর্শ প্রচার করে নাশকতামূলক কার্যক্রমে উস্কানি দিয়ে আসছেন। তার বিরুদ্ধে নীলফামারী সদর থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০০৯ (সংশোধনী ২০১৩)-এর ৮/৯(৩)/১২/১৩ একটি মামালা হয়। ওই মামলায় তিনি চার্জশিটভুক্ত পলাতক আসামি।

    তিনি আরও জানান, ২০২১ এবং ২০২২ সালে নীলফামারী সদর থানার ইপিজেড এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে তার সহযোগী জেএমবি সদস্য আহিদুল, নুর আমীন, ওয়াহিদ, আপেলসহ বেশ কয়েকজন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে গ্রেপ্তার হন। তখন জেএমবি সদস্য হিসেবে আনারুলের নাম প্রকাশ পেলে তিনি সেখান থেকে কৌশলে পালিয়ে ঢাকায় চলে আসেন। তারপর থেকে তিনি ঢাকার আশুলিয়া থানার বিভিন্ন এলাকায় পলাতক থেকে সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন।

    তার বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইন ২০০৯ (সংশোধনী ২০১৩)- এর ৮/৯(৩)/১০/১২/১৩ ধারায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

    এআই

    ট্যাগ :

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…