এইমাত্র
  • পানামাকে হারিয়ে উরুগুয়ের কোপা আমেরিকা শুরু
  • কুমিল্লায় মায়ের কুড়ালের আঘাতে মেয়ের মৃত্যুর অভিযোগ
  • কুমিল্লায় ট্রেনের ধাক্কায় প্রাণ গেল আওয়ামী লীগ নেতার
  • আবারো ডিমের বাজারে উত্তাপ শুরু হয়েছে
  • ভালুকায় কৃষি উদ্যোক্তা তৈরির কারিগর সাইদুল ইসলাম
  • গন্ধরাজ চিংড়ির রেসিপি
  • যশোর হাসপাতালে প্যাথলজি পরীক্ষার টাকা লোপাট
  • বিয়ে করলেন সোনাক্ষী-জাহির, প্রকাশ্যে এলো ছবি
  • কুমিল্লায় ডাক্তারের ভুল চিকিৎসার শিক্ষার্থীর মৃত্যুর অভিযোগ
  • কুমিল্লায় মাইক্রোবাস চাপায় পথচারী নিহত
  • আজ সোমবার, ১০ আষাঢ়, ১৪৩১ | ২৪ জুন, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    পাইলট হতে চায় বিমানে ওঠা সেই জুনায়েদ

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৩:৫৬ পিএম
    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৩:৫৬ পিএম

    পাইলট হতে চায় বিমানে ওঠা সেই জুনায়েদ

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৩:৫৬ পিএম

    শিকলমুক্ত হয়েছে ভিসা পাসপোর্ট ছাড়াই বিমানে ওঠা আলোচিত সেই জুনায়েদ মোল্লা। না বলে আর কোথাও যাবে না, এমন প্রতিশ্রুতি দিলেই শিকল খুলে দেওয়া হয়। তবে পড়াশোনা খরচ দিতে না পারায় বারবার পালিয়ে যেত বলে জানায় ওই শিশুটি। পড়ালেখা করে পাইলট হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে জুনায়েদ।

    শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জুনায়েদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, খুলে দেওয়া হয়েছে জুনায়েদের পায়ের শিকল। এরপরই সে মুক্ত পরিবেশে ঘুরে বেড়িয়েছে। তবে এখনও তাকে দেখতে বাড়িতে ভিড় করছে উৎসুক জনতা।

    জুনায়েদ গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার পারইহাটি ইমরান মোল্লার ছেলে।

    এর আগে গত বুধবার বিমানবন্দর থানা থেকে বের হয়ে বাড়ি ফিরে আবারও পালিয়ে যায় জুনায়েদ। এরপর অনেক খোঁজাখুঁজি করে ধরে এনে জুনায়েদকে শিকলবন্দি করা হয়। শিশুটিকে শিকলবন্দি করা নিয়ে বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় খুলে দেওয়া হয় জুনায়েদের পায়ের শিকল।

    গত সোমবার ১১ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ৯টি গেটের নিরাপত্তা কর্মীদের চোখ ফাঁকি দিয়ে কুয়েত এয়ারওয়েজের একটি বিমানে উঠে যায় জুনায়েদ মোল্লা নামে এক শিশু। যা নিয়ে তোলপাড় হয় সারাদেশে। পরদিন মঙ্গলবার রাতে শিশুটিকে অভিভাবকের কাছে হস্তান্তর করে বিমানবন্দর থানা পুলিশ।

    জানা যায়, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের পারইহাটি গ্রামের সবজি ব্যবসায়ী ইমরান মোল্লার প্রথম পক্ষের ছেলে জুনায়েদ মোল্লা। বেশ কয়েকবছর আগে মা অন্যত্র চলে যাবার পর সৎ মায়ের কাছে বড় হয় সে। তাকে ভর্তি করে দেওয়া হয় উপজেলার উজানী হাফিজিয়া মাদরাসায়। তবে বিভিন্ন সময় বাড়ির কাউকে না বলে বাইরে চলে যেত জুনায়েদ।

    জোনায়েদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত রোববার সে বাসা থেকে বের হয়ে প্রথমে ইজিবাইকে করে মুকসুদপুর যায়। সেখান থেকে বাসে উঠে চলে যায় ঢাকার সায়েদাবাদ বাসস্ট্যান্ডে। সেখান থেকে বসুন্ধরা হয়ে যায় এয়ারপোর্টে। পরে এয়ারপোর্টের ৯টি গেটের নিরাপত্তাকর্মীদের চোখ ফাঁকি দিয়ে অন্যান্য যাত্রীদের সাথে সোজা উঠে পড়ে কুয়েতগামী কুয়েত এয়ারওয়েজের (কেইউ-২৮৪) রাত ৩টা ১০ মিনিটের একটি ফ্লাইটে। প্রায় ১ ঘণ্টার মত বিমানের সিটে বসে থাকার পর জুনায়েদ প্লেনের ভেতরে করিডোরে হাঁটাচলা করছিল। এ সময় কেবিন ক্রু জুনায়েদকে সিটে বসার পরামর্শ দেন। তখন শিশুটি একটি সিটে বসে পড়ে।এক পর্যায়ে জুনায়েদ যেই সিটে বসেছিল পাশের সিটের যাত্রী শিশুটিকে তার বাবা-মায়ের কাছে গিয়ে বসতে বলে। কিন্তু শিশুটি তার বাবা-মায়ের বিষয়ে কোনোকিছু বলতে পারেনি।

    এদিকে বিমানে উঠতে পেরেও উড়তে না পেরে আক্ষেপ নিয়ে জোনায়েদ বলে, বিমানে উড়তে পারলে ভালো লাগতো, বড় হয়ে একদিন বিমানে উড়ব। তিনি আরও বলে, এখন থেকে ঠিকভাবে পড়াশোনা করব। পড়লেখা করে বড় হয়ে একদিন বিমানের পাইলট হব। আর সেদিন পরিবারের সবাইকে নিয়ে বিমানে উড়ব।

    বাড়ি থেকে পালিয়ে ঢাকায় কেন গিয়েছিল জানতে চাইলে জুনায়েদ বলে, পড়াশোনার জন্য টাকা চাইলে বাড়ি থেকে মারত, তাই বিভিন্ন সময়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যেতাম। রোববার একটা কারণে আমার বাবা আমাকে মারধর করে পরে আমি বাড়ি থেকে পালিয়ে প্রথমে মায়ের (আপন মা) কাছে যাই। কিন্তু মা আমাকে বসতেও বলে নাই। পরে সেখান থেকে ঢাকায় চলে যায়। ঢাকা পৌঁছে প্রথমে বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরি করি। পরের দিন সোমবার সন্ধ্যায় বসুন্ধরা থেকে এয়ারপোর্টে যাই। পরে সেখানে সবার চোখ ফাঁকি দিয়ে প্লেনে উঠে বসে পড়ি। আমি কোনো কিছু না বুঝেই শখের বসে বিমানে উঠে পড়ছিলাম। বিমানে উঠার পর আমি কিছুই বুঝতে পারছিলাম না। এজন্য প্লেনের মধ্যে হাঁটাচলা করেছিলাম। পরে আমাকে প্লেন থেকে নামিয়ে প্রথমে একটা অফিসে পরে থানায় পাঠানো হয়।

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…