এইমাত্র
  • জামিনে বের হলেন সেই পাপিয়া
  • মৌলভীবাজারে নদীতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
  • ১৪ বছর বয়সী এক মাদক কারবারি আটক, ১ লাখ ৩০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার
  • মহাকাশে ঘটতে পারে আশ্চর্যজনক ‘নোভা’ বিস্ফোরণ, দেখা মিলবে খালি চোখেই
  • দেশে নিবন্ধিত ও সক্রিয় সিম কতগুলো, জানালেন পলক
  • গাজায় নিখোঁজ ২১ হাজার শিশু
  • মতিউরকে সরিয়ে সোনালী ব্যাংকে নতুন পরিচালক নিয়োগ
  • চীনে চালু হলো বিশ্বের প্রথম এআই হাসপাতাল
  • ঈদযাত্রার ১৩ দিনে সড়কে ২৬২ প্রাণহানি
  • সাপে কাটলে করা যাবে না যে ৫ কাজ
  • আজ সোমবার, ১০ আষাঢ়, ১৪৩১ | ২৪ জুন, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    মুক্তি পেলেন বিচারককে জুতা নিক্ষেপকারী পঞ্চগড়ের সেই তরুণী

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১২ ডিসেম্বর ২০২৩, ১২:৩২ এএম
    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১২ ডিসেম্বর ২০২৩, ১২:৩২ এএম

    মুক্তি পেলেন বিচারককে জুতা নিক্ষেপকারী পঞ্চগড়ের সেই তরুণী

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১২ ডিসেম্বর ২০২৩, ১২:৩২ এএম

    পঞ্চগড়ে জমি নিয়ে বিরোধে এক ব্যক্তির ‘মৃত্যু’র পর তার মেয়ের দায়ের করা একটি হত্যা মামলায় আসামিদের জামিন দেওয়ায় জেলা জজ আদালতের এক বিচারককে লক্ষ্য করে জুতা নিক্ষেপ করেন বাদী মিনারা আক্তার (২৫)। পরে তাকে আটক করে রাখার পৌনে ৭ ঘণ্টা পর মামলা দায়ের শেষে জামিনে মুক্তি দিয়েছেন ওই আদালতের বিচারক।

    সোমবার রাত ৮টায় জামিনে মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন পঞ্চগড় জেলা জজ আদালত পুলিশের পরিদর্শক জামাল হোসেন। এর আগে আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পঞ্চগড়ে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের আমলী আদালত-১ এর বিচারক অলরাম কাজীর আদালতে জুতা নিক্ষেপের এ ঘটনাটি ঘটে।

    জানা গেছে, ঘটনার পর থেকে ওই তরুণীকে আদালতে পুলিশি হেফাজতে রাখা হয়। পরে তার বিরুদ্ধে একটি সিআর মামলা দায়েরে পর সন্ধ্যায় মেজবা ওয়ানুল করিম বসুনিয়া ওরফে বাবু নামের একজন অ্যাডভোকেট ৫ হাজার টাকার বেল্ড বন্ডের মাধ্যমে নিজ জিম্মায় জামিন আবেদন করলে জামিন মঞ্জুর করে তাকে মুক্তি দেন আদালত। মূলত আদালত অবমাননা ও হট্টগোল করার অভিযোগ তুলে তার বিরুদ্ধে সিআর মামলা দায়ের করা হয়।

    পুলিশ পরিদর্শক জামাল হোসেন বলেন, ঘটনার পর মিনারা নামে ওই নারীর বিরুদ্ধে তাজুল ইসলাম নামের একজন কর্মচারী বাদী হয়ে সিআর মামলা দায়ের করেন। এর পর ৫ হাজার টাকার বেল্ড বন্ডের মাধ্যমে তাকে জামিন দেওয়া হয়।

    এর আগে গত ৫ ডিসেম্বর জমি নিয়ে বিরোধে মৃত্যু হয় মিনারার বাবা ইয়াকুব আলীর। ওই দিনই রাতেই মিনারা বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। আজ আসামিদের মধ্যে প্রধান আসামিসহ তিনজন বাদে ১৬ আসামি আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে আদালত তাদের জামিন মঞ্জুর করেন।

    এ বিষয়ে মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী হাবিবুল ইসলাম হাবিব এর আগে বলেন, ‘গত কয়েক দিন আগে বাদী মিনারার বাবা মারা গেছেন। আজকে তাদের বাড়িতে কুলখানি হচ্ছে। এ অবস্থায় একটি হত্যা মামলায় সব আসামিকে জামিন দেওয়া কোনোভাবে কাম্য নয়। বিচারকের এমন অর্ডারে আমরা আদালত ত্যাগ করে চলে এসেছি।

    আসামিপক্ষের আইনজীবী রাকিবুত তারেক বলেন, ‘আসামিদের আগামী ২৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত অন্তবর্তীকালীন জামিন দিয়েছেন আদালত। আর মামলার যারা মূল আসামি, তারা আত্মসমর্পণ করেননি। যারা আত্মসমর্পণ করেছে, তাদের অধিকাংশই নারী ছিল। এছাড়া আসামিদের বক্তব্য ছিল, ওই ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়নি বরং হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন। আর যেহেতু মামলার জব্দ তালিকায় এবং সুরতহাল রিপোর্টে নথিতে এই তথ্য নেই, তাই হয়তো সার্বিক বিবেচনা করে এই জামিন দেওয়া হয়েছে।’

    এ বিষয়ে জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল বারী বলেন, ‘আদালতে চলাকালীন একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার খবর শুনেছি। এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে কেউ এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ করেনি। যে কারণে সমিতির পক্ষ থেকে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

    এফএস

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…