এইমাত্র
  • লালমনিরহাটে বিএসএফের গুলিতে ইউপি সদস্য আহত
  • হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি করায় দুই যুবককে ৬ মাসের কারাদণ্ড
  • বিএনপি সাম্প্রদায়িক অপশক্তি, এদের প্রতিহত করতে হবে: কাদের
  • মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
  • লক্ষ্মীপুরে আধিপত্য নিয়ে হামলায় আহত ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু
  • আজ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস
  • সুনামগঞ্জের হাওরে বজ্রপাতে ২ জনের মৃত্যু
  • এক মোটরসাইকেলে ৪ জন, ট্রাকের ধাক্কায় স্ত্রী-সন্তান নিহত
  • দাওয়াত না পেয়ে বিয়েবাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ
  • ‘সমকামিতা’র নাটকে স্পন্সর করে ওয়ালটনের দুঃখ প্রকাশ
  • আজ বুধবার, ৪ বৈশাখ, ১৪৩১ | ১৭ এপ্রিল, ২০২৪
    আইন-আদালত

    ৩৫ বছর আগের সগিরা হত্যা মামলার রায় আবারও পেছালো

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০১:১০ পিএম
    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০১:১০ পিএম

    ৩৫ বছর আগের সগিরা হত্যা মামলার রায় আবারও পেছালো

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০১:১০ পিএম

    ৩৫ বছর আগে রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরীতে চাঞ্চল্যকর সগিরা মোর্শেদ হত্যা মামলার রায় ঘোষণা আবার পিছিয়ে আগামী ১৩ মার্চ ধার্য করা হয়েছে।

    আজ মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার বিশেষ জজ আদালতের (বিশেষ দায়রা জজ) ভারপ্রাপ্ত বিচারক আক্তারুজ্জামান এই তারিখ ধার্য করেন।

    ওই আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী রফিকুল ইসলাম জানান, আজ রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু বিচারক ছুটিতে থাকায় রায় ঘোষণার তারিখ পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

    এর আগে গত ২৫ জানুয়ারি আসামি ও রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে আদালত গত ৮ ফেব্রুয়ারি রায়ের তারিখ ধার্য করেন। ওই দিন রায় প্রস্তুত না হওয়ায় রায়ের তারিখ পিছিয়ে ২০ ফেব্রুয়ারি ধার্য করা হয়।

    মামলার আসামিরা হলেন নিহত সগিরা মোর্শেদের ভাশুর ডা. হাসান আলী চৌধুরী, তার স্ত্রী সায়েদাতুল মাহমুদা ওরফে শাহীন, হাসান আলীর শ্যালক আনাস মাহমুদ ওরফে রেজওয়ান ও ভাড়াটে খুনি হিসেবে চিহ্নিত মারুফ রেজা এবং মন্টু নামের একজন। ডা. হাসান, তাঁর স্ত্রী ও মন্টু জামিনে আছেন। অন্য দুজন কারাগারে আছেন।

    বিচার চলাকালীন মামলায় মোট ১৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়।

    এর আগে ২০২০ সালের ১৬ জানুয়ারি ঢাকার আদালতে সগিরার ভাশুরসহ চারজনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম। এরপর একই বছরের ৯ মার্চ ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ পিবিআইয়ের দেওয়া অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন।

    ২০২১ সালের ২ ডিসেম্বর সগিরা মোর্শেদের ভাশুরসহ চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন একই আদালত। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ৩১ বছর পর এ মামলার আনুষ্ঠানিক বিচারকাজ শুরু হয়। আসামি মন্টুর বিরুদ্ধে যেহেতু আগেই অভিযোগ গঠন করা হয়েছিল, সে কারণে তিনিও এই মামলার আসামি থেকে যান।

    ১৯৮৯ সালের ২৫ জুলাই সিদ্ধেশ্বরীর ভিকারুননিসা নূন স্কুলের সামনে সগিরা মোর্শেদকে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়। ওই ঘটনায় রমনা থানায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন স্বামী সালাম চৌধুরী।

    প্রত্যক্ষদর্শী রিকশাচালক ঘটনায় জড়িত দুজনের কথা বললেও মন্টু নামের একজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। ১৯৯১ সালের ১৭ জানুয়ারি মন্টুর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনও হয়েছিল।

    এরপর হাইকোর্টের আদেশে মামলাটি দীর্ঘদিন ঝুলে ছিল। পরে হাইকোর্ট ৬০ দিনের মধ্যে মামলার অধিকতর তদন্ত করতে পিবিআইকে নির্দেশ দেন।

    ২০১৯ সালের ১৭ আগস্ট এই মামলার তদন্ত শুরু করে পিবিআই। তদন্ত করতে গিয়ে দেখা যায় সগিরা মোর্শেদের ভাশুর ডা. হাসান আলী পরিবারের অন্য সদস্যদের যোগসাজশে পারিবারিক কলহের জেরে ভাড়াটিয়া খুনি দ্বারা এই খুনটা করান।

    তদন্ত কর্মকর্তা অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন, সগিরা মোর্শেদের পরিবারের সঙ্গে আসামি শাহীনের বিভেদ তৈরি হয়েছিল। এ ছাড়া শাশুড়ি সগিরাকে অপছন্দ করতেন এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে সগিরা-শাহীনের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল। সম্বোধন করা নিয়েও ছিল পারিবারিক দ্বন্দ্ব।

    উল্লেখ্য, ১৯৮৯ সালের ২৫ জুলাই সিদ্ধেশ্বরীর ভিকারুননিসা নূন স্কুলের সামনে সগিরা মোর্শেদকে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়। ওই ঘটনায় রমনা থানায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন স্বামী সালাম চৌধুরী।

    প্রত্যক্ষদর্শী রিকশাচালক ঘটনায় জড়িত দুজনের কথা বললেও মন্টু নামের একজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। ১৯৯১ সালের ১৭ জানুয়ারি মন্টুর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনও হয়েছিল।

    এরপর হাইকোর্টের আদেশে মামলাটি দীর্ঘদিন ঝুলে ছিল। পরে হাইকোর্ট ৬০ দিনের মধ্যে মামলার অধিকতর তদন্ত করতে পিবিআইকে নির্দেশ দেন।

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…