এইমাত্র
  • পানিতে তলিয়ে গেছে ভোলার নিচু এলাকা
  • এখন একটাই কাজ, তারেক জিয়ার সাজা বাস্তবায়ন: প্রধানমন্ত্রী
  • চোখ’ ফুটেছে ঘূর্ণিঝড় রেমালের, ব্যাপক তাণ্ডবের আশঙ্কা
  • বেঁচে যাওয়া বাছুরটিই বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ষাঁড়
  • সাভারে ডেইলি স্টারের সাংবাদিকের ‍উপর হামলা
  • স্বাস্থ্য খাতে বাংলাদেশকে সহযোগিতার আশ্বাস ডব্লিউএইচওর
  • প্লাবনের তোড়ে বাঁধ ভেঙে রাঙ্গাবালীর ২০ গ্রাম প্লাবিত
  • এবার বেনজীরের কোম্পানি-ফ্ল্যাট ক্রোকের নির্দেশ
  • পেনশন প্রজ্ঞাপন বাতিলের দাবিতে যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন
  • বিয়ে করলেন শরিফুল রাজ ও বুবলী
  • আজ রবিবার, ১২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ২৬ মে, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    এক সঙ্গে জন্ম নেয়া চার নবজাতকের তিনজনকে বাঁচানো গেলো না

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১৫ মে ২০২৪, ০৬:২০ পিএম
    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১৫ মে ২০২৪, ০৬:২০ পিএম

    এক সঙ্গে জন্ম নেয়া চার নবজাতকের তিনজনকে বাঁচানো গেলো না

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ১৫ মে ২০২৪, ০৬:২০ পিএম

    জামালপুরে এক সঙ্গে চার সন্তানের জন্ম দিয়েছেন এক প্রসূতি। তবে নবজাতকদের মধ্যে তিনজনকে বাঁচানো যায়নি। অপর শিশুর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

    বুধবার (১৫মে) সকালে জেলার ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে শিশুগুলোর জন্ম দেন খুশি বেগম নামে এক নারী।

    তিনি উপজেলার নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের উলিয়া গ্রামের শফিকুল ইসলামের স্ত্রী।

    উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.এ এ এম আবু তাহের জানান, ওই নারী তিন পুত্র ও এক কন্যা সন্তান প্রসব করেন। নবজাতকগুলোর ওজন কম হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

    জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিভাগের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. মাসুদুর রহমান জনান, দুই ছেলে ও এক কন্যা শিশুর রেসপন্স পাওয়া যায়নি। বাকি এক শিশুর অবস্থাও ভাল নয়। তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে, তবে ঝুঁকি মুক্ত নয়। মৃত তিনটি শিশু পরিবারে হস্তান্তর করা হয়েছে।

    চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, একটি সুস্থ নবজাতকের স্বাভাবিক ওজন ২.৮ থেকে ২.৯ কেজি হওয়ার কথা। তবে উন্নত বিশ্বে তা ৩.৪ কেজির মতো হয়ে থাকে। নবজাতকের ওজন যেসব কারণে প্রভাবিত হয়। তার মধ্যে রয়েছে- মায়ের ওজন (৪৫ কেজির কম হলে), উচ্চতা (১৪৫ সেন্টিমিটারের কম হলে), রক্তে অ্যালবুমিন (২.৫ গ্রাম/ডেসিলিটারের কম থাকলে) প্রসূতির নবজাতক আড়াই কেজি কম ওজন নিয়ে জন্ম নিতে পারে। সেক্ষেত্রে নবজাতকটি ঝুঁকির মধ্যে থাকে।

    এমন শিশুগুলো শরীরের তুলনায় মাথা বড়, মুখমণ্ডল ছোট ও গোলাকার, বুকের খাঁচা গোলাকৃতি ও পেট উঁচু দেখায়। তুলনায় হাত-পা ছোট থাকে এবং নাভি দেহের মধ্যবিন্দু ধরে শরীরের ওপরের অংশ শরীরের নিচের অংশের চেয়ে বড় থাকে।

    পূর্ণ গর্ভকাল পাওয়া সুস্থ নবজাতকের দৈর্ঘ্য সাধারণভাবে ৫০ সেন্টিমিটারের মতো হয়।

    এসএফ

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…