এইমাত্র
  • যে ২ ধরনের মানুষকে শরিকে নিলে কারো কোরবানিই হবে না
  • ‘রাফসান দ্য ছোট ভাই’-এর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা
  • হঠাৎ বৃষ্টিতে ভোগান্তি চরমে, ভাড়া নেওয়া হচ্ছে দিগুণ
  • খাগড়াছড়িতে কৃষি গবেষণা কেন্দ্র থেকে শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার
  • রংপুরে মেট্রোপলিটন পুলিশ ও র‍্যাবের সাব কন্ট্রোল রুম উদ্বোধন
  • বাংলাসহ ৫০ ভাষায় অনুবাদ হবে হজের খুতবা
  • ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে নেই যানজট, নির্বিঘ্নে আসছে কোরবানির পশু
  • কুয়াকাটা ৬৫ দিনের অবরোধে জেলেদের মধ্যে সচেতনতা মূলক ক্যাম্পেইন
  • ১৫২ কোটি টাকার মামলা: কমিশনার ওয়াহিদাকে বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা
  • শনিবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ নাকি খোলা, সিদ্ধান্ত ঈদের পর
  • আজ বৃহস্পতিবার, ৩০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ১৩ জুন, ২০২৪
    আন্তর্জাতিক

    ভারতের লোকসভা নির্বাচনে জয়ী হলেন যেসব মুসলিম প্রার্থীরা

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ৫ জুন ২০২৪, ০১:৪০ পিএম
    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ৫ জুন ২০২৪, ০১:৪০ পিএম

    ভারতের লোকসভা নির্বাচনে জয়ী হলেন যেসব মুসলিম প্রার্থীরা

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ৫ জুন ২০২৪, ০১:৪০ পিএম
    তৃণমূলের বিজয়ী প্রার্থী ইউসুফ পাঠান ও আসাদউদ্দিন ওয়াইসি (ফাইল ফটো)

    ভারতের জাতীয় নির্বাচন মানে উৎসবমুখর এক পরিবেশ। সংঘাত আর বিদ্বেষের আনাগোনা থাকলেও নির্বাচনকে ঘিরে উত্তেজনার পারদ থাকে তুঙ্গে। কে হবেন আগামী পাঁচ বছরে ভারতীয়দের জানমালের হেফাজতকারী, তা নিয়ে চলে নানান জল্পনা।

    গত ১৯ এপ্রিল নির্বাচন শুরু হওয়ার পর থেকে সবার ধারণা ছিল, মুসলিম প্রার্থীদের অংশগ্রহণের সংখ্যা হ্রাস পাবে। নরেন্দ্র মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে ভারতীয় মুসলিম সংখ্যালঘুদের ওপর হিংসা ও বিদ্বেষ বেড়ে গেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও তার বক্তব্যে হরহামেশা ভারতকে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের স্থান হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। এরপর থেকে বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু মুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর নজিরবিহীন হামলার ঘটনাও ঘটেছে।

    ২০১৯ সালের ভারতের লোকসভা নির্বাচনে সারা ভারতজুড়ে মুসলিম প্রার্থী ছিল ১১৫ জন। সে জায়গায় এই বছরের জাতীয় নির্বাচনে তা কমে হয়েছে ৭৮ জন। গতকাল মঙ্গলবার (৪ জুন) ঘোষণা করা হয় ভারতের জাতীয় নির্বাচনের ফলাফল। ভারতীয় নির্বাচন কমিশনের হিসাব অনুসারে, ৭৮ জন মুসলিম প্রার্থীর মধ্যে ১৫ জন জয় লাভ করেছেন।

    বিজয়ীদের মধ্যে রয়েছেন ভারতীয় জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক ক্রিকেটার ইউসুফ পাঠান, যিনি পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে বহরমপুর আসন থেকে জয়লাভ করেছেন। এ ছাড়া লাদাখ, জম্মু-কাশ্মীর ও উত্তর প্রদেশ থেকে ইমরান মাসুদ, ইকরা চৌধুরী, আফজাল আনসারী, আসাদউদ্দিন ওয়াইসির মতো মুসলিম প্রার্থীরা জয় নিশ্চিত করেছেন।

    অন্যদিকে, বিজেপির ১৯৫ জন প্রার্থীর মধ্যে একমাত্র মুসলিম প্রার্থী ছিলেন আবদুল সালাম। কেরালার মাল্লাপুরমের প্রার্থী আবদুল সালাম অবশ্য জয়লাভ করতে পারেননি।

    ২০২৪ সালে ভারতের লোকসভা নির্বাচনে জয়ী মুসলিম প্রার্থীরা

    ইরফান পাঠান

    পশ্চিমবঙ্গের বহরমপুর আসনে তৃণমূলের প্রার্থী প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার ইউসুফ পাঠান কংগ্রেসের দলনেতা এবং ছয়বারের সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরীকে ৮৫ হাজার ২২ ভোটে পরাজিত করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।

    ইমরান মাসুদ

    কংগ্রেসের প্রার্থী ইমরান মাসুদ সাহারানপুর আসনে ৬৪ হাজার ৫৪২ ভোটের বিশাল ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন।

    ইকরা চৌধুরী

    কাইরানার সমাজবাদী পার্টির ২৯ বছর বয়সী প্রার্থী ইকরা চৌধুরী ৬৯ হাজার ১১৬ ভোটে বিজেপির প্রদীপ কুমারকে পরাজিত করেছেন।

    আফজল আনসারি

    গাজিপুর আসনে জয়ী হয়েছেন বহুজন সমাজ পার্টি (বিএসপি)-র আফজল আনসারি।

    আসাদউদ্দিন ওয়াইসি

    এআইএমআইএম প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি তার হায়দ্রাবাদ আসনে ৩ লাখ ৩৮ হাজার ৮৭ ভোটে বিজেপির মাধবী লাথা কমপেল্লাকে পরাজিত করেছেন।

    মহম্মদ হানিফা

    লাদাখে স্বতন্ত্র প্রার্থী মহম্মদ হানিফা ২৭ হাজার ৮৬২ ভোটে জয়ী হয়েছেন।

    আবদুল রশিদ শেখ

    জম্মু ও কাশ্মীরের বারামুল্লা আসনে ৪ লাখ ৭০ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল রশিদ শেখ।

    মহিবুল্লাহ

    উত্তরপ্রদেশের রামপুর আসনে সমাজবাদী পার্টির মহিবুল্লাহ ৪ লাখ ৮১ হাজার ৫০৩ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন।

    জিয়া উর রহমান

    জিয়া উর রহমান এবং সম্বল আসনে ১ লাখ ২ হাজার ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন।

    মিয়া আলতাফ আহমেদ

    জম্মু ও কাশ্মীরের অনন্তনাগ-রাজৌরি আসনে ন্যাশনাল কনফারেন্সের মিয়া আলতাফ আহমেদ জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতিকে ২ লাখ ৮১ হাজার ৭৯৪ ভোটে পরাজিত করেছেন।

    আগা সৈয়দ রুহুল্লাহ মেহেদি

    শ্রীনগরে ন্যাশনাল কনফারেন্স প্রার্থী আগা সৈয়দ রুহুল্লাহ মেহেদি পেয়েছেন ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৮৬৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন।

    রাকিবুল হুসেইন

    আমাসের ধুবড়ি আসন থেকে কংগ্রেস প্রার্থী রাকিবুল হুসেইন ১০ লাখ ১২ হাজার ভোটের ব্যবধানে জিতেছেন। এআইইউডিএফ প্রার্থী বদরুদ্দিন আজমলকে পরাজিত করেছেন তিনি।

    কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইনডিয়া জোট পেয়েছে ২৩১টি আসন। বিজেপি নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স (এনডিএ) পেয়েছে ২৯৫টি আসন।

    এই প্রথম প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে সরকার গঠনের জন্য তার শরিকদের সমর্থনের উপর নির্ভর করতে হবে। ২০১৪ ও ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি পেয়েছিল যথাক্রমে ২৮২ ও ৩০৩টি আসন।

    ইনডিয়া ব্লক সরকার গঠনের জন্য সমর্থন জোগাড় করার আশায় এনডিএ শরিকদের প্রস্তাব পাঠাচ্ছে বলে জানা গেছে।

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…