এইমাত্র
  • আজ দে‌শের স‌র্বোচ্চ তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গায়
  • বাংলাদেশি পর্যটকদের ৩ দিন ভারত ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা
  • চার বিভাগে হিট অ্যালার্ট জারি আবহাওয়া অফিসের
  • খারকিভে চলছে ‘কঠিন লড়াই’: জেলেনস্কি
  • সবুজবাগে নির্মাণাধীন ভবনের মাচা ভেঙে নিহত ৩ শ্রমিক
  • আবারো চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছুঁই ছুঁই
  • চুয়াডাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাইসাইকেল আরোহী নিহত
  • সিরাজগঞ্জে কভার্ডভ্যানে মিলল ২১৬ কেজি গাঁজা, গ্রেপ্তার ২
  • টাঙ্গাইলের ১৬ সরকারি অফিসে ওড়ে না জাতীয় পতাকা
  • ১০ হাজারের বেশি বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাজ্য
  • আজ শনিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ১৮ মে, ২০২৪
    ধর্ম ও জীবন

    রোজা রেখে কি নখ, চুল ও দাড়ি কাটা যাবে?

    ধর্ম ও জীবন ডেস্ক প্রকাশ: ২৭ মার্চ ২০২৩, ০৩:২৯ পিএম
    ধর্ম ও জীবন ডেস্ক প্রকাশ: ২৭ মার্চ ২০২৩, ০৩:২৯ পিএম

    রোজা রেখে কি নখ, চুল ও দাড়ি কাটা যাবে?

    ধর্ম ও জীবন ডেস্ক প্রকাশ: ২৭ মার্চ ২০২৩, ০৩:২৯ পিএম

    এই প্রশ্নের উত্তর হলো- রোজা অবস্থায় নখ কাটাতে বা চুল কাটতে কোনো অসুবিধা নেই। এগুলোর সঙ্গে রোজার কোনো সম্পর্ক নেই। আর রোজা রেখে দাড়ি সেভ করলে রোজা ভাঙবে না। তবে পবিত্র রমজানের উদ্দেশ্য পূর্ণতা পাবে না।

    কেননা, রমজানের রোজার উদ্দেশ্য হলো- আল্লাহ ও তার রাসুল (সা.)-এর প্রতি আনুগত্য করা। আল্লাহর হুকুম অনুযায়ী চলা ও রাসুল (সা.)-এর সুন্নত নিজের ব্যক্তিজীবনে নিয়ে আসা।

    কিন্তু শেভ করার মাধ্যমে আমরা নবীর একটা সুন্নতের উপর আঘাত করি। অথচ দাড়ি কামানোর মাধ্যমে আল্লাহর রাসুল (সা.)-এর সুন্নতের বিপরিত করা মুমিন মুসলমানের জান্য উচিত নয়। অবশ্য এটা ভিন্ন কথা; এতে রোজা ভেঙে যাবে না, বরং রোজা— রোজার জায়গা থেকে আদায় হয়ে যাবে। তবে রমজানের উদ্দেশ্য পরিপূর্ণভাবে আদায় হচ্ছে না। মানে আল্লাহর পরিপূর্ণ আনুগত্য ও রাসুল (সা.)-এর সুন্নত অনুযায়ী নিজের জীবন সাজানোর বিষয়টি পূর্ণতা পাচ্ছে না।

    তথ্যসূত্র: সহিহ বুখারি, হাদিস : ৩/৩৩; সুনানে কুবরা, বায়হাকি, হাদিস : ৮২৫৩; মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, হাদিস : ৯৩১৯)

    প্রসঙ্গত, রমজানে রোজা রেখে কিছু কাজ না করা উচিত। সেগুলোর মধ্যে কয়েকটি হলো-

    এক. বিলম্বে ইফতার করা। দুই. সাহরি না খাওয়া। তিন. কেনা-কাটায় ব্যস্ত থাকা। চার. মিথ্যা বলা ও অন্যান্য পাপ কাজ করা। পাঁচ. অপচয় ও অপব্যয় করা। ছয়. হক আদায় না করে কোরআন খতম করা। সাত. বেশি বেশি খাওয়া। আট. রিয়া বা লোক দেখানো ইবাদাত করা। নয়. বেশি বেশি ঘুমানো। দশ. পণ্যের দাম বাড়াতে সংকট তৈরি করা। এগারো. অশ্লীল ছবি-নাটক ইত্যাদি দেখা। বারো. বেহুদা কাজে রাত জাগরণ করা। তের. দুনিয়াবী ব্যস্ততায় মগ্ন থাকা। চৌদ্দ. বিদআত করা।

    ট্যাগ :

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…