এইমাত্র
  • জয়পুরহাটে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া
  • ছাত্রলীগ আক্রমণ করেনি, গণমাধ্যমে ভুল শিরোনাম হয়েছে: কাদের
  • মহাখালীতে অবরোধ, ঢাকার সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ
  • কোটা আন্দোলনে গিয়ে নাশকতার মামলায় কারাগারে দুই শিক্ষার্থী
  • পরিস্থিতি বুঝে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে: প্রতিমন্ত্রী পলক
  • বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া
  • মেসিকে ক্ষমা চাইতে বলায় ক্রীড়া কর্মকর্তা বরখাস্ত
  • ভারতীয় ভিসা সেন্টার ও মার্কিন দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা
  • বিভিন্ন স্থানে মোবাইল ইন্টারনেটে ধীরগতি
  • যাত্রাবাড়ীতে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষ, ২ পথচারী গুলিবিদ্ধ
  • আজ বৃহস্পতিবার, ৩ শ্রাবণ, ১৪৩১ | ১৮ জুলাই, ২০২৪
    ছাত্রলীগ আক্রমণ করেনি, গণমাধ্যমে ভুল শিরোনাম হয়েছে: কাদের
    কোটা সংস্কার আন্দোলনে ছাত্রলীগ আক্রান্ত হয়েও আক্রমণ করেনি; তারা ধৈর্য ধারণ করেছে; কিন্তু গণমাধ্যমে ভুল শিরোনাম হয়েছে বলে জানালেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। যা সত্যি, গণমাধ্যম তাই প্রকাশ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণার পর আজ থেকে শিক্ষার্থীদের পরিবর্তে কোটাবিরোধী আন্দোলনের বিপরীতে বিএনপি-জামায়াত তাদের পুরনো আগুন সন্ত্রাস নিয়ে মাঠে নেমেছে। তিনি বলেন , সন্ত্রাসী গোষ্ঠী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অসংখ্য স্থানে ছাত্রলীগের ওপর নির্যাতন করেছে। ৩০০ মত আহত হয়েছে, যেখানে অনেকে আশঙ্কাজনক অবস্থায়। ছাত্রলীগের নারী শিক্ষার্থীদের ওপরও হামলা চালিয়েছে। মেয়েদের বেধড়ক পিটিয়েছে। পুলিশ, সাংবাদিকদের ওপরও হামলা চালিয়েছে।তিনি আরও বলেন, এই সন্ত্রাসী গোষ্ঠি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে নিরাপদ জায়গা হিসেবে ব্যবহার করে ইতোমধ্যে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে। সেতুমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিধানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থান গ্রহণ করেছে। প্রথম থেকেই পুলিশ সহনীয় ভূমিকা পালন করেছে। যার কারণে রাষ্ট্রপতি বরাবর শিক্ষার্থীরা তাদের স্বারকলিপি সরাসরি প্রদান করতে পেরেছেন।তিনি জানান, বিএনপি মধ্যযুগীয় কায়দায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করছে।  জনগণের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি করা কোনোভাবেই বরদাস্ত করা হবে না বলেন হুঁশিয়ারি দেন কাদের। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগসহ সকল সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সকল শক্তিকে সাথে নিয়ে অপশক্তি মোকাবিলারও আহ্বান জানান কাদের। বিএনপির দুর্নীতিবাজ পলাতক নেতা তারেক রহমানের নির্দেশেই ছাত্রদল সাধারণ ছাত্রদের সাথে মিশে দেশকে অস্থিতিশীল করেছে বলেও দাবি করেন কাদের। বলেন, সারা দেশে চট্টগ্রাম, বগুড়াসহ গতকালও যাত্রাবাড়ীতে হামলা করা হয়েছে, অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। নিশ্চিতভাবে বিশ্বাস করি, রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্যই তারেক রহমানের ক্যাডার বাহিনী সরাসরি যুক্ত। সাধারণ শিক্ষার্থীদের এমন সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করা সম্ভব নয়।
    রাজধানীসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন
    কোটা আন্দোলনকারীদের ঘোষিত দেশব্যাপী ‘কমপ্লিট শাটডাউনকে’ কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ঢাকাসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।গতকাল দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সংঘে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশসদস্যসহ অনেক শিক্ষার্থী আহত হয়।  এ ঘটনায় নিরাপদ ক্যাম্পাস নিশ্চিত ও এক দফা দাবিতে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনের প্লাটফর্ম ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’। বুধবার (১৭ জুলাই) সন্ধ্যা ৭টা ৫৫ মিনিটে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এই কর্মসূচির ঘোষণা দেন কোটাবিরোধী আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক আসিফ মাহমুদ।তিনি বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ, বিজিবি, র‍্যাব, সোয়াটের ন্যক্কারজনক হামলা, খুনের প্রতিবাদ, খুনিদের বিচার, সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস নিশ্চিত ও এক দফা দাবিতে ১৮ জুলাই সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা করছি।আসিফ মাহমুদ বলেন, কর্মসূচি চলাকালে শুধু হাসপাতাল ও জরুরি সেবা ব্যতীত কোনো প্রতিষ্ঠানের দরজা খুলবে না, অ্যাম্বুলেন্স ব্যতীত সড়কে কোনো গাড়ি চলবে না। সারা দেশের প্রতিটি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদরাসার শিক্ষার্থীদের আহ্বান জানাচ্ছি আগামীকালকের কর্মসূচি সফল করুন। এআই 

    জাতীয়

    সব দেখুন
    পরিস্থিতি বুঝে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে: প্রতিমন্ত্রী পলক
    কোটা সংস্কার আন্দোলন ঘিরে উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে রাজধানীসহ সারাদেশে সাময়িকভাবে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। হস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ‘দীক্ষা-দক্ষতা উন্নয়নে শিক্ষা অনলাইনে’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় নির্মিত কোর্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান তিনি।।মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধের কথা উল্লে করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ঘিরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্বার্থান্বেষী মহলের নানা গুজব আর অস্থিতিশীল পরিস্থিতির জন্য সাময়িকভাবে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে। এর জন্য পূর্বে কোনো ঘোষণা দেয়া হয়নি, পরিস্থিতি বুঝে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দ্রুত সংযোগ দেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।পলক বলেন, ‘ফেইসবুক, গুগল, ইউটিউব, টিকটকের সঙ্গে সরকারের যোগাযোগ হয়েছে। কিন্তু বিতর্কিত কনটেন্ট অপসারণ নিয়ে তাদের প্রাইভেসি পলিসি সন্তোষজনক না। এরপর তাদের কারণে যদি একটি প্রাণহানি ঘটে তাহলে এসব কোম্পানিকে ছাড় দেয়া হবে না। তাদেরকে বাংলাদেশে ডেটা সেন্টার স্থাপন করে বাংলাদেশের আইন মেনে ব্যবসা পরিচালনা করতে হবে।’ গত ২৪ ঘণ্টা ধরে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারছেন না। এতে ফেসবুক ও মেসেঞ্জারে অনেকে প্রবেশ করতে পারছেন না। দীর্ঘ চেষ্টায় প্রবেশ করতে পারলেও কোনো বার্তা, ছবি ও ভিডিও পোস্ট করা যাচ্ছে না। তবে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট স্বাভাবিকই আছে। সরকারি নির্দেশে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে বুধবার (১৭ জুলাই) নিশ্চিত করেছে অপারেটর কোম্পানিগুলো। তারা জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ও গুরুত্বপূর্ণ কলেজ এলাকায় ফোরজি সেবা সীমিত করা হয়। পরবর্তীতে গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন এলাকায় পর্যায়ক্রমে নেটওয়ার্ক কাভারেজ সীমিত করা হয়েছে।এইচএ
    কমপ্লিট শাটডাউনেও চলবে মেট্রোরেল
    চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনে ছাত্রলীগের হামলা, সাধারণ শিক্ষার্থীদের হত্যা এবং ঢাবি প্রশাসনের নির্দেশে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের নির্বিচার হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন। মেট্রোরেলের বিষয়ে স্পষ্ট কিছু না বললেও সড়ক, রেল ও নৌপথসহ সব ধরনের যোগাযোগ পথ বন্ধ রাখার কথা জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। তবে এ কর্মসূচির মধ্যেও যথারীতি মেট্রোরেল চলবে বলে জানিয়েছে মেট্রোরেল পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)।আন্দোলনে রাজধানীতে গত কয়েকদিন ধরে গণপরিবহনের সংখ্যা কমে গেছে। ফলে নগরবাসীসহ অফিসগামী চাকরিজীবীরা ব্যাপক ভোগান্তিতে পড়ছেন। এ পরিস্থিতিতে তাদের একমাত্র ভরসার যানবাহন হয়ে উঠেছে এই মেট্রোরেল।ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) কোম্পানি সচিব (যুগ্ম সচিব) মোহাম্মদ আবদুর রউফ বলেন, আমাদের সিদ্ধান্ত মেট্রোরেল নিয়মিত সময়সূচি অনুযায়ী চলবে। মেট্রোরেল ও যাত্রীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছি যেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিরাপত্তা দেয়। বাকিটা সময় বলে দিবে।বুধবার (১৭ জুলাই) রাতে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক হাসনাত বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ, বিজিবি, র্যাব, সোয়াটের ন্যক্কারজনক হামলা, খুনের প্রতিবাদ, খুনিদের বিচার, সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস নিশ্চিত ও এক দফা দাবিতে এই ঘোষণা দেওয়া হয়। সকাল থেকে সম্ভব কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি শুরু হবে। আর চলবে সন্ধ্যা পর্যন্ত।তিনি জানান, ‘শুধু হাসপাতাল ও জরুরি সেবা ছাড়া কোনো প্রতিষ্ঠানের দরজা খুলবে না, অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি সেবা বাদে সড়কে কোনো গাড়ি চলবে না।’রেলপথ ও নৌপথও এই কর্মসূচির মধ্যে পড়বে বলে জানান হাসনাত। সারা দেশের প্রতিটি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়, মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের আহ্বান জানান তিনি।মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সাধারণত প্রতিদিন মেট্রোরেলে প্রায় তিন লাখ যাত্রী চলাচল করেন। কিন্তু গত কয়েক দিনে প্রতিদিন সাড়ে তিন লাখ থেকে তিন লাখ ৬০ হাজার যাত্রী মেট্রোতে চলাচল করেছেন। এর মধ্যে মতিঝিল, সচিবালয়, কারওয়ান বাজার ও উত্তরা উত্তর স্টেশনে সবচেয়ে বেশি যাত্রী ছিল।এইচএ
    ভারতীয় ভিসা সেন্টার ও মার্কিন দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা
    সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে চলমান আন্দোলন ঘিরে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ায় বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সবগুলো ভারতীয় ভিসা অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার (আইভিএসি) বন্ধ ঘোষণা করা হয়। একই কারণে আজ ঢাকার মার্কিন দূতাবাসেও সাধারণ মানুষের জন্য প্রবেশ বন্ধ থাকবে। বুধবার (১৭ জুলাই) রাতে আইভিএসি-এর ওয়েবসাইটে এক বার্তায় ও ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের ওয়েবসাইটে বন্ধ রাখার এ তথ্য জানানো হয়েছে।আইভিএসি-এর ওয়েবসাইটে দেয়া বার্তায় বলা হয়েছে, অস্থিতিশীল অবস্থার কারণে ১৮ জুলাই সব আইভিএসি বন্ধ থাকবে। আবেদনের পরবর্তী তারিখ এসএমএসের মাধ্যমে জানানো হবে। এদিকে মার্কিন দূতাবাসের ভ্রমণ সতর্কতার হালনাগাদ তথ্যে বলা হয়েছে, সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার নিয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ গত কয়েকদিন ধরে বিস্তৃত হয়ে ঢাকা ও এর পাশের এলাকা এবং অন্যান্য শহরে ছড়িয়ে পড়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। দূতাবাস বলেছে, এ আন্দোলন ঘিরে কয়েকজনের মৃত্যু এবং শতাধিক আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি ক্রমশ অস্থিতিশীল হয়ে উঠছে। এ ধরনের বিক্ষোভ স্থানীয় পরিবহন পরিষেবাগুলোকে প্রভাবিত করতে পারে এবং ঢাকায় আসা-যাওয়া কঠিন হতে পারে।দূতাবাস আরও জানিয়েছে, মার্কিন নাগরিকদের সতর্কতা পালন করা উচিত এবং মনে রাখা উচিত বিক্ষোভ সংঘর্ষে পরিণত হতে পারে এবং সহিংসতায় রূপ নিতে পারে। সেজন্য বিক্ষোভ এড়িয়ে চলার পাশাপাশি কোনো বড় সমাবেশের আশপাশে থাকলে সতর্কতা অবলম্বন করুন। এ ধরনের পরিস্থিতি বিবেচনায় বৃহস্পতিবার ঢাকার মার্কিন দূতাবাস সাধারণ মানুষের জন্য বন্ধ থাকবে। পাশাপাশি মার্কিন দূতাবাসের কর্মীদের কূটনৈতিক এলাকার বাইরে অন্যত্র চলাচল সীমিত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার (১৭ জুলাই) এক বিবৃতিতে, দেশজুড়ে কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে কোটা সংস্কার আন্দোলনে যুক্ত শিক্ষার্থীদের প্ল্যাটফর্ম বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন। প্রসঙ্গত, চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বেশ সহিংস রূপ নেয়। এদিন ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে ৬ জন মারা যান। আহত হন কয়েকশ আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। এ অবস্থায় মঙ্গলবারই সারা দেশের স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বুধবার বন্ধ ঘোষণা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়।এইচএ
    কমপ্লিট শাটডাউনে রাজধানীতে গণপরিবহন সংকট, দুর্ভোগে মানুষ
    সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীরা বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ রেখেছে। এই কর্মসূচিতে সকালে রাজধানীতে গণপরিবহনের সংকট দেখা দিয়েছে। তাতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন কর্মজীবী মানুষ। সড়কে ছিলো না ব্যক্তিগত গাড়িও। সরেজমিনে দেখা যায়, রাজধানীর মিরপুর, আগারগাঁও, মহাখালী, শ্যামলী, গাবতলী ও অন্যান্য সড়কগুলোতে তেমন কোনো গণপরিবহন ছিলো না। রাস্তায় দাঁড়িয়ে বাসের জন্য অপেক্ষা করছেন যাত্রীরা। কিন্তু যাও বাস আসছে খুবই কম। এর মধ্যে কোনো কোনো এলাকায় বেসরকারি পরিবহনের বাস একেবারে নেই বললেই চলে। মাঝে মাঝে দু-একটি বাস আসলেও তাতেও তিল ধারণের ঠাঁই নেই। বাধ্য হয়ে রিকশায় অনেকেই রিকশা, হেঁটে, সিএনজি ও পাঠাও দিয়ে নিজ নিজ গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আন্দোলনকারীদের অবস্থানের কারণে কোনো যানবাহন ঢাকা থেকে বের হতে পারছে না। আবার কোনো যানবাহন ঢুকতেও পারছে না। এমনকি রিকশা, মোটরসাইকেল, বাইসাইকেলও যেতে দেওয়া হচ্ছে না। ফলে অনেক গাড়ি মূল পয়েন্টে আটকা পড়েছে। এর মধ্যে পণ্যবাহী গাড়ির সংখ্যা বেশি। পাশাপাশি দূরপাল্লার বাস, সিএনজিচালিত অটোরিকশাও রয়েছে।এদিকে আন্দোলনকারীদের কোনো উপস্থিতি চোখে পড়েনি। একই সঙ্গে পুলিশের উপস্থিতিও সেভাবে চোখে পড়েনি।তবে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের পর এখনও স্বাভাবিক হয়নি যাত্রাবাড়ী-শনিরআখড়া এলাকা। আজ বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল ১০টা পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের এই অংশে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়নি। মহাসড়কের শনিরআখড়া এলাকায় যানবাহন আটকে শিক্ষার্থীরা সেখানে ক্রিকেট খেলছেন।গতকাল বুধবার বেলা ১১টা থেকেই আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা। সন্ধ্যার পর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন এবং পুলিশ  আক্রমণ করলে শিক্ষার্থীরাও পাল্টা আক্রমণ করেন। একপর্যায়ে বিক্ষুব্ধরা মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের কাজলা অংশের টোলপ্লাজায় আগুন ধরিয়ে দেন।যদিও রাত সোয়া ৩টার দিকে পুলিশ-র্যাব-বিজিবির যৌথ টহলের পর যাত্রাবাড়ী-শনিরআখড়া এলাকায় যান চলাচল শুরু হলেও ফের তা দখলে নেয় আন্দোলনকারীরা। বর্তমানে মহাসড়কের উভয় পাশে যান চলাচল বন্ধ আছে।গতকাল থেকে দফায় দফায় এ সংঘর্ষে দুই বছরের এক শিশুসহ অন্তত ৬ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। একজন নিহত হয়েছেন।এদিকে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।আন্দোলনের মুখে ২০১৮ সালের কোটাপদ্ধতি বাতিল করে পরিপত্র জারি করে সরকার। সরকারের এই কোটা বাতিলের পরিপত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালে রিট করেন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান অহিদুল ইসলামসহ সাতজন। রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০২১ সালের ৬ ডিসেম্বর রুল দেন হাইকোর্ট। চূড়ান্ত শুনানি শেষে গত ৫ জুন রুল অ্যাবসলিউট (যথাযথ) ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট।পরে হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন চেম্বার আদালত হয়ে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য ওঠে ৪ জুলাই। রিট আবেদনকারীপক্ষ সময় চেয়ে আরজি জানালে সেদিন আপিল বিভাগ শুনানি পিছিয়ে দেন। পাশাপাশি রাষ্ট্রপক্ষকে নিয়মিত লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করতে বলা হয়। এ অবস্থায় কোটা পুনর্বহালসংক্রান্ত হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে গত ৯ জুলাই আবেদন করেন দুই শিক্ষার্থী।দুই শিক্ষার্থী ও রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন শুনানির জন্য ১০ জুলাই আপিল বিভাগে ওঠে। শুনানি শেষে সরকারি চাকরিতে নিয়োগে কোটার বিষয়ে পক্ষগুলোকে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে আদেশ দেন আপিল বিভাগ। কিছু পর্যবেক্ষণ, নির্দেশনাসহ এ আদেশ দেয়া হয়। এই স্থিতাবস্থা চার সপ্তাহের জন্য উল্লেখ করে আপিল বিভাগ আগামী ৭ আগস্ট পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেন। আন্দোলনকারীরা আদালতের আদেশ মানে না দাবি করে নির্বাহী বিভাগের আদেশের দিকে তাকিয়ে বিক্ষোভ-সমাবেশ চালিয়ে আসছেন। এইচএ
    রাজধানীসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন
    কোটা আন্দোলনকারীদের ঘোষিত দেশব্যাপী ‘কমপ্লিট শাটডাউনকে’ কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ঢাকাসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।গতকাল দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সংঘে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশসদস্যসহ অনেক শিক্ষার্থী আহত হয়।  এ ঘটনায় নিরাপদ ক্যাম্পাস নিশ্চিত ও এক দফা দাবিতে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনের প্লাটফর্ম ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’। বুধবার (১৭ জুলাই) সন্ধ্যা ৭টা ৫৫ মিনিটে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এই কর্মসূচির ঘোষণা দেন কোটাবিরোধী আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক আসিফ মাহমুদ।তিনি বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ, বিজিবি, র‍্যাব, সোয়াটের ন্যক্কারজনক হামলা, খুনের প্রতিবাদ, খুনিদের বিচার, সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস নিশ্চিত ও এক দফা দাবিতে ১৮ জুলাই সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা করছি।আসিফ মাহমুদ বলেন, কর্মসূচি চলাকালে শুধু হাসপাতাল ও জরুরি সেবা ব্যতীত কোনো প্রতিষ্ঠানের দরজা খুলবে না, অ্যাম্বুলেন্স ব্যতীত সড়কে কোনো গাড়ি চলবে না। সারা দেশের প্রতিটি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদরাসার শিক্ষার্থীদের আহ্বান জানাচ্ছি আগামীকালকের কর্মসূচি সফল করুন। এআই 
    হানিফ ফ্লাইওভারে সংঘর্ষ : গুলিতে যুবক নিহত
    ঢাকা যাত্রাবাড়ীর হানিফ ফ্লাইওভারে সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিতে সিয়াম (১৮) নামে এক তরুণ নিহত হয়েছেন।বুধবার (১৭ জুলাই) দিবাগত রাত ১২টার দিকে মৃত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে নিয়ে আসেন কয়েকজন। পরে তার মরদেহ হাসপাতালের ভেতরে নিয়ে গিয়ে অটোরিকশায় করে নিয়ে চলে যান তারা।সিয়ামের খালাতো ভাই রাসেল বলেন, সিয়াম গুলিস্তানের একটি ব্যাটারির দোকানের কর্মচারী। রাতে বাসায় ফেরার পথে হানিফ ফ্লাওয়ারে সংঘর্ষ চলাকালে সে গুলিবিদ্ধ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই সিয়াম মারা যায়। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসলেও আমরা আর ভেতরে ঢুকিনি। মরদেহ অটোরিকশায় করে বাসায় চলে যাচ্ছি। তিনি জানান, সিয়ামের গ্রামের বাড়ি ভোলার চরফ্যাশনে। বর্তমানে সে মাতুয়াইলে থাকতো।ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, যাত্রাবাড়ী হানিফ ফ্লাইওভারে গুলিতে এক যুবককে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে নিয়ে আসেন স্বজনরা। পরে তারা বুঝতে পারেন যে, সিয়াম মারা গেছে। এ জন্য তারা আর হাসপাতালের ভেতরে না ঢুকে মরদেহ নিয়ে চলে যান। এফএস
    যাত্রাবাড়ী থানায় আন্দোলনকারীদের হামলা
    ঢাকার যাত্রাবাড়ীতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী ও পুলিশের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ চলছে। বুধবার (১৭ জুলাই) রাতে এ সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। এক পর্যায়ে আন্দোলনকারীরা যাত্রাবাড়ী থানায় হামলা চালান। আগুন দেয়া হয় বেশ কয়েকটি গাড়িতে।সংঘর্ষ চলাকালে মুহুর্মুহু ককটেল এবং টিয়ারশেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ, র‍্যাব এবং এপিবিএন- এই তিন বাহিনী একত্রে অভিযানে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। আন্দোলনকারীরা এর আগে মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের টোল প্লাজায় আগুন দেন। ফায়ার সার্ভিস কন্ট্রোল রুম এ তথ্য জানায়। জানা যায়, কোটা সংস্কারের দাবিতে যাত্রাবাড়ীতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছিলেন আন্দোলনকারীরা। এ ঘটনায় হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। তবে টোল প্লাজা বন্ধ থাকায় হানিফ ফ্লাইওভার দিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এফএস
    পুলিশ-আন্দোলনকারী সংঘর্ষে রণক্ষেত্র কাজলা থেকে শনিরআখড়া
    কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের দফায়-দফায় সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে রাজধানীর হানিফ ফ্লাইওভারের দক্ষিণ অংশ কাজলা থেকে শনিরআখড়া পর্যন্ত এলাকা।এ সময় যাত্রাবাড়ী টোল প্লাজায়ও আগুনের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (১৭ জুলাই) সন্ধ্যা থেকে দফায় দফায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।এর আগে দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করেন কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। রাতে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের দফায়-দফায় সংঘর্ষ হয়। উপস্থিত থাকা একজন আন্দোলনকারী বলেন, পুলিশের জন্যই সবকিছু হলো। আমরা ছাত্ররা শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করছিলাম। পরে পুলিশ গুলি, গ্যাস মারে। শিক্ষার্থীদের অবরোধের কারণে বাইরে থেকে ঢাকায় যানবাহনের প্রবেশ বন্ধ রয়েছে। আবার ঢাকা থেকেও যানবাহনের বাইরে যাওয়া বন্ধ রয়েছে।এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের ছোড়া গুলিতে এখন পর্যন্ত ছয়জন গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এফএস

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    রাজনীতি

    সব দেখুন
    ছাত্রলীগ আক্রমণ করেনি, গণমাধ্যমে ভুল শিরোনাম হয়েছে: কাদের
    কোটা সংস্কার আন্দোলনে ছাত্রলীগ আক্রান্ত হয়েও আক্রমণ করেনি; তারা ধৈর্য ধারণ করেছে; কিন্তু গণমাধ্যমে ভুল শিরোনাম হয়েছে বলে জানালেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। যা সত্যি, গণমাধ্যম তাই প্রকাশ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণার পর আজ থেকে শিক্ষার্থীদের পরিবর্তে কোটাবিরোধী আন্দোলনের বিপরীতে বিএনপি-জামায়াত তাদের পুরনো আগুন সন্ত্রাস নিয়ে মাঠে নেমেছে। তিনি বলেন , সন্ত্রাসী গোষ্ঠী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অসংখ্য স্থানে ছাত্রলীগের ওপর নির্যাতন করেছে। ৩০০ মত আহত হয়েছে, যেখানে অনেকে আশঙ্কাজনক অবস্থায়। ছাত্রলীগের নারী শিক্ষার্থীদের ওপরও হামলা চালিয়েছে। মেয়েদের বেধড়ক পিটিয়েছে। পুলিশ, সাংবাদিকদের ওপরও হামলা চালিয়েছে।তিনি আরও বলেন, এই সন্ত্রাসী গোষ্ঠি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে নিরাপদ জায়গা হিসেবে ব্যবহার করে ইতোমধ্যে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে। সেতুমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিধানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থান গ্রহণ করেছে। প্রথম থেকেই পুলিশ সহনীয় ভূমিকা পালন করেছে। যার কারণে রাষ্ট্রপতি বরাবর শিক্ষার্থীরা তাদের স্বারকলিপি সরাসরি প্রদান করতে পেরেছেন।তিনি জানান, বিএনপি মধ্যযুগীয় কায়দায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করছে।  জনগণের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি করা কোনোভাবেই বরদাস্ত করা হবে না বলেন হুঁশিয়ারি দেন কাদের। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগসহ সকল সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সকল শক্তিকে সাথে নিয়ে অপশক্তি মোকাবিলারও আহ্বান জানান কাদের। বিএনপির দুর্নীতিবাজ পলাতক নেতা তারেক রহমানের নির্দেশেই ছাত্রদল সাধারণ ছাত্রদের সাথে মিশে দেশকে অস্থিতিশীল করেছে বলেও দাবি করেন কাদের। বলেন, সারা দেশে চট্টগ্রাম, বগুড়াসহ গতকালও যাত্রাবাড়ীতে হামলা করা হয়েছে, অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। নিশ্চিতভাবে বিশ্বাস করি, রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্যই তারেক রহমানের ক্যাডার বাহিনী সরাসরি যুক্ত। সাধারণ শিক্ষার্থীদের এমন সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করা সম্ভব নয়।
    ছাত্রলীগ আক্রমণ করেনি, গণমাধ্যমে ভুল শিরোনাম হয়েছে: কাদের
    কোটা সংস্কার আন্দোলনে ছাত্রলীগ আক্রান্ত হয়েও আক্রমণ করেনি; তারা ধৈর্য ধারণ করেছে; কিন্তু গণমাধ্যমে ভুল শিরোনাম হয়েছে বলে জানালেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। যা সত্যি, গণমাধ্যম তাই প্রকাশ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণার পর আজ থেকে শিক্ষার্থীদের পরিবর্তে কোটাবিরোধী আন্দোলনের বিপরীতে বিএনপি-জামায়াত তাদের পুরনো আগুন সন্ত্রাস নিয়ে মাঠে নেমেছে। তিনি বলেন , সন্ত্রাসী গোষ্ঠী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অসংখ্য স্থানে ছাত্রলীগের ওপর নির্যাতন করেছে। ৩০০ মত আহত হয়েছে, যেখানে অনেকে আশঙ্কাজনক অবস্থায়। ছাত্রলীগের নারী শিক্ষার্থীদের ওপরও হামলা চালিয়েছে। মেয়েদের বেধড়ক পিটিয়েছে। পুলিশ, সাংবাদিকদের ওপরও হামলা চালিয়েছে।তিনি আরও বলেন, এই সন্ত্রাসী গোষ্ঠি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে নিরাপদ জায়গা হিসেবে ব্যবহার করে ইতোমধ্যে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে। সেতুমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিধানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থান গ্রহণ করেছে। প্রথম থেকেই পুলিশ সহনীয় ভূমিকা পালন করেছে। যার কারণে রাষ্ট্রপতি বরাবর শিক্ষার্থীরা তাদের স্বারকলিপি সরাসরি প্রদান করতে পেরেছেন।তিনি জানান, বিএনপি মধ্যযুগীয় কায়দায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করছে।  জনগণের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি করা কোনোভাবেই বরদাস্ত করা হবে না বলেন হুঁশিয়ারি দেন কাদের। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগসহ সকল সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সকল শক্তিকে সাথে নিয়ে অপশক্তি মোকাবিলারও আহ্বান জানান কাদের। বিএনপির দুর্নীতিবাজ পলাতক নেতা তারেক রহমানের নির্দেশেই ছাত্রদল সাধারণ ছাত্রদের সাথে মিশে দেশকে অস্থিতিশীল করেছে বলেও দাবি করেন কাদের। বলেন, সারা দেশে চট্টগ্রাম, বগুড়াসহ গতকালও যাত্রাবাড়ীতে হামলা করা হয়েছে, অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। নিশ্চিতভাবে বিশ্বাস করি, রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্যই তারেক রহমানের ক্যাডার বাহিনী সরাসরি যুক্ত। সাধারণ শিক্ষার্থীদের এমন সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করা সম্ভব নয়।
    ছাত্রলীগ নেতারা ক্যাম্পাসে না থাকার কারণ জানালেন সাধারণ সম্পাদক
    কয়েক দিনে তীব্র আকার নিয়েছে কোটা সংস্কার আন্দোলন। গত সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগ ও পুলিশের হামলা হয়। এতে ফুঁসে ওঠেন শিক্ষার্থীরা। গতকাল মঙ্গলবার দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস থেকে ছাত্রলীগ নেতাদের ধাওয়া দিয়ে বের করে দেওয়া হয়।আজ বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের তেমন উপস্থিতি দেখা যায়নি। পুরো ক্যাম্পাস আন্দোলনকারীদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে গতকাল থেকেই ছাত্রলীগ নেতারা ক্যাম্পাস থেকে পালিয়েছেন বলে দাবি করেছেন আন্দোলনকারীরা।তবে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান বলছেন ভিন্ন কথা। তার ভাষ্যমতে, ‘গত রাতে জামায়াত-শিবিরের বহিরাগত সন্ত্রাসীরা অবস্থান নিয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করায় আমরা নিজেরা হল ছেড়ে দিয়েছি। আমাদের কেউ বের করে দেয়নি।’
    আগামীকাল ঢাকায় মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশের ডাক
      সারাদেশে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষাথীদের মুক্তিযুদ্ধ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে অবমাননাকর বক্তব্যের বিরুদ্ধে আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) ঢাকায় মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ আহ্বান করা হয়েছে। বিকেল ৩টায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের দক্ষিণ গেটে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।আজ বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুর জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এই ঘোষণা দেন। সংবাদ সম্মেলনে শাজাহান খান জানান, কোটাবিরোধী আন্দোলনের আড়ালে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মূলে আঘাত প্রতিহত করা এবং হত্যা, নাশকতা, অরাজকতা, অগ্নিসংযোগ প্রতিহত করার লক্ষ্যে স্বাধীনতার পক্ষের সব শ্রেণি-পেশার জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে তাদের প্রতিহত করার লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় মুক্তিযোদ্ধা শ্রমিক-কর্মচারী-পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের উদ্যোগে বাইতুল মোকারম মসজিদের দক্ষিণ গেটে বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, শ্রমিক, কর্মচারী, পেশাজীবী, বুদ্ধিজীবীসহ মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারী জনগণের এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।   সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম মোজাম্মেল হক, সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান ও অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধা এবং শ্রমিক-কর্মচারী নেতারা। সমাবেশে দল-মত নির্বিশেষে সবাইকে উপস্থিত হওয়ার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি। এমএইচ 
    কোটা আন্দোলনের কর্মসূচি ঠিক করে দিচ্ছে বিএনপি-জামায়াত: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
    বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টের রায় অনুযায়ী কোটা নেই মন্তব্য করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, কোটা আন্দোলনে বিএনপি-জামায়াত প্রবেশ করে কর্মসূচি ঠিক করে দিচ্ছে।বুধবার (১৭ জুলাই) জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত এক সভায় তিনি একথা বলেন।মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টের রায় অনুযায়ী কোটা নেই। এটি জানার পরও যারা আন্দোলন করছে। দুরভিসন্ধিজনকভাবে আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছে। সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের ভুল বুঝিয়ে সেখানে সম্পৃক্ত করছে। এরপর সেখানে বিএনপি-জামায়াত ঢুকেছে। কোটা আন্দোলনে বিএনপি-জামায়াত প্রবেশ করে কর্মসূচি ঠিক করে দিচ্ছে।’পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা না বুঝেই কোটাবিরোধী আন্দোলন করছে। সরকারি চাকরিতে কোটা সরকার বাতিল করেছে। সরকার এটি বাতিল করেছে তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে, তাদের প্রতি সহানুভূতিশীল হয়ে। গত কয়েকটি বিসিএস পরীক্ষা কোটাবিহীন অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোটার ভিত্তিতে নয়, সরকারি চাকরিতে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে সম্পূর্ণ কোটাবিহীনভাবে।’তিনি আরও বলেন, ‘ওয়ান/ইলেভেনের কুশীলবরা এখনো সক্রিয়। মানে যারা ষড়যন্ত্রকারী। এটি মানুষ বোঝে। তারা নির্বাচনের আগে সক্রিয় ছিল। বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে যুক্ত হয়ে দেশের নির্বাচন পণ্ড করার অপচেষ্টা চালিয়েছিল।’হাছান মাহমুদ বলেন, ‘নির্বাচনের পরে সরকার যেন বিশ্ববাসীর কাছে গ্রহণযোগ্য না হয়, সেজন্য সক্রিয় ছিল। সেই চেষ্টায় তারা ব্যর্থ হয়ে সক্রিয় হয়েছে দেশে একটি গণ্ডগোল পাকানোর জন্য। বিএনপি-জামায়াতের যেমন আন্দোলন করার কোনো ক্ষমতা নেই, ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবদের জনগণের কাছে যাওয়ারও কোনো ক্ষমতা নেই।’ আরইউ
    বিএনপির গায়েবানা জানাজা কর্মসূচিতে পুলিশের বাধা
    কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ৭ জনের স্মরণে বিএনপির পূর্ব ঘোষিত গায়েবানা জানাজা কর্মসূচি বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটে হওয়ার কথা ছিল। যদিও পুলিশি বাধায় তা পালন করতে পারেনি দলটি। একইসঙ্গে কর্মসূচিতে অংশ নিতে আসা বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীকে পুলিশ আটক করেছে বলে বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়।পুলিশের বাধার কারণে বায়তুল মোকাররম মসজিদের বাইরে গায়েবানা জানাজা পড়তে না পারলে বুধবার (১৭ জুলাই) জোহরের নামাজ শেষে মসজিদের ভেতরেই এ নামাজ আদায় করেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা।এ সময় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, গায়েবানা জানাজায় অংশ নিতে মুসল্লিদের বাধা দেওয়া হয়েছে। আমি এ ঘটনার নিন্দা জানাই।তিনি আরও বলেন, সরকার ইচ্ছা করলে আলোচনার মাধ্যমে কোটা সমস্যার সমাধান করতে পারত। তা না করে বর্বরভাবে হামলা করে মানুষ হত্যা করা হয়েছে।গায়েবানা জানাজা শেষে বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট আগে থেকে উপস্থিত গণতন্ত্র মঞ্চ ও বিএনপির কিছু নেতা-কর্মী স্লোগান দিলে পুলিশ তাদের ধাওয়া করে। এরপর তারা ইটপাটকেল ছুড়তে শুরু করেন। পুলিশ পাল্টা রাবার বুলেট ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।বিএনপির পক্ষে থেকে বলা হয়, বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে বিএনপির এ কর্মসূচি ছিল। সেখানে যাওয়ার পর বিএনপির সংগঠন জি-৯-এর সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেনসহ কয়েকজনকে আটক করে পুলিশ।এদিকে গায়েবানা জানাজায় অংশ নিতে বায়তুল মোকাররম মসজিদ প্রবেশ করতে চাইলে গণতন্ত্র মঞ্চের নেতা সাইফুল হক, জোনায়েদ সাকি, রফিকুল ইসলাম বাবলুসহ কয়েকজনকে বাধা দেয় পুলিশ।জানাজায় অংশ নেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লা বুরু, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, প্রচার সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু প্রমুখ।বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, গায়েবানা জানাজা কর্মসূচিতে ব্যবহারের জন্য বায়তুল মোকাররমে নেওয়া মাইক পুলিশ কেড়ে নিয়েছে।এসএফ    
    নিহতদের মাগফিরাত কামনায় বিকেলে রাজধানীতে আ.লীগের গায়েবানা জানাজা
    বিএনপি-জামায়াতের সশস্ত্র ক্যাডারদের হামলায় নিহত ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের কর্মী সবুজ আলীসহ নিহত ব্যক্তিদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় গায়েবানা জানাজা কর্মসূচি পালন করবে আওয়ামী লীগ। একইভাবে দেশব্যাপী গায়েবানা কর্মসূচি পালনের জন্য সাংগঠনিক নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।বুধবার (১৭ জুলাই) বিকেল ৩টায় বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এ জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। দলটির দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া এ তথ্য জানান।  উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দিনভর কোটা আন্দোলনকে কেন্দ্র করে সারা দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতায় ছয়জন মারা গেছেন। যার মধ্যে রাজধানীতে দুজন, চট্টগ্রামে তিনজন এবং রংপুরে একজন। রংপুরে নিহত শিক্ষার্থীর নাম আবু সাঈদ। তিনি বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন। আহত হয়েছেন কয়েকশ আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।এমএইচ
    'অস্তিত্বে হামলা এসেছে', ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রতিরোধের নির্দেশ কাদেরের
    ছাত্রদল ও ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীরা কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়ে বলেন, ‘আমাদের অস্তিত্বের প্রতি হামলা এসেছে, হুমকি এসেছে। এই পরিস্থিতি মোকাবিলা আমাদের করতেই হবে। কাজেই আপনারা ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রস্তুত হয়ে যান।’বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুরে ঢাকা জেলা ও ঢাকা মহানগর (উত্তর ও দক্ষিণ) আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তেজগাঁও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে মতবিনিময় সভায় অনুষ্ঠিত হয়।ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সাধারণ শিক্ষার্থীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে কেন রাস্তাঘাট দখল করতে যাবে, সহিংসতায় জড়াবে? এই আন্দোলনের নেতৃত্ব নিঃসন্দেহে অশুভ শক্তির হাতে চলে গেছে। সেই অবস্থায় আমরা নিশ্চুপ থাকতে পারি না।’তিনি বলেন, 'এখন কোটা নিয়ে আন্দোলন সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নেই। এখানে সরাসরি বিএনপি-জামায়াত, ছাত্রদল-ছাত্র শিবির জড়িয়ে আন্দোলনকে সরকার উৎখাতের আন্দোলনে পরিণত করতে চাইছে।কাদের বলেন, 'যে কোনো যৌক্তিক দাবির প্রতি শেখ হাসিনার সরকার সহনশীল। কোনো সংঘাত আমরা চাই না। তরুণ প্রজন্ম সংঘাত-সংঘর্ষে লিপ্ত হবে সেটা কাম্য নয় কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতার চেতনাকে আঘাত করলে, নাশকতা করলে, রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করলে, রাস্তা বন্ধ করে জনগণের ভোগান্তির সৃষ্টি করলে, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিঘ্ন হলে সরকারকে সেখানে কঠোর হতেই হয়।'আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, 'বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ওপর আক্রমণ করা হয়েছে, উপাচার্যদের জিম্মি করা হয়েছে, ছাত্রলীগ সাধারণ ছাত্রদের ওপর বিনা উসকানিতে হামলা চালালো; আমরা গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। আমরা জানি, গতকাল অনেক সাংবাদিকও এই বর্বর আক্রমণে আহত হয়েছে। একটা বিষয় আমরা দুঃখের সঙ্গে লক্ষ করি, মিডিয়ার হেডিং দেখলে মনে হয় সব আক্রমণেরই আক্রমণকারী ছাত্রলীগ। অথচ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে খোঁজ-খবর নিয়ে দেখবেন, আক্রান্ত যারা হয়েছে তারাই ছাত্রলীগ। আক্রমণকারী শিবির আর জামায়াত-বিএনপি-ছাত্রদল।'আমরা কিছু পত্রিকার হেডিং দেখলে অবাক হয়ে যাই যে, সব জায়গায় ছাত্রলীগের হামলা। ছাত্রলীগকে ধরে ধরে হল থেকে মধ্যরাতে মেয়েদেরকে বের করে দেওয়া হয়েছে। হলে হলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের পোশাক-পরিচ্ছদ, তাদের বই-পুস্তক পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এখনো এই অবস্থা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এই ঘটনা কোনো গুরুত্বপূর্ণ হেডিং হলো না—কালকে আমরা টেলিভিশনে দেখলাম যে, শহীদ মিনার এলাকায় সহকারী প্রোক্টরকে যেভাবে দৌড়াতে দৌড়াতে লাঠি দিয়ে পেটানো হয়েছে, এটা কত যে বর্বর! চোখে না দেখলে বিশ্বাস হয় না,' যোগ করেন তিনি।কাদের আরও বলেন, 'এসব ঘটনা আমরা আশা করি, আমাদের গণমাধ্যম সত্যিকারভাবে যা ঘটেছে, যা দেখেছেন, তাই তুলে ধরবেন। এটাই আমরা চাই, সত্যকে বিকৃত করা উচিত নয়।'তিনি বলেন, 'আজকে বেশিরভাগ হামলাই ছাত্রলীগের ওপর, এখনো চলছে।'

    দেশজুড়ে

    সব দেখুন
    বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

    ‘কমপ্লিট শাটডাউনে’র অংশ হিসেবে রাজধানীর মেরুল বাড্ডা এলাকায় সরকারি চাকরিতে কোটার বিরোধিতা করে আন্দোলন করছেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়টির কয়েকশ শিক্ষার্থী জড়ো হয়ে রাস্তা অবরোধ করে এই আন্দোলন করছেন। এতে মেরুল বাড্ডা এলাকায় যানচলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে।


    বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টার পর শিক্ষার্থীরা রস্তা অবরোধ করে আন্দোলন করছেন।


    সরেজমিনে দেখা যায়, কয়েকশ শিক্ষার্থী ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে রাস্তা অবরোধ করে রেখেছেন। এ সময় মেরুল বাড্ডা এলাকা দিয়ে যাতায়াতকারী সব যানবাহনের চলাচল বন্ধ রয়েছে। শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধের কারণে রাস্তায় শত শত যানবাহন আটকে আছে। আন্দোলন থেকে শিক্ষার্থীরা নানা স্লোগান দিয়ে যাচ্ছেন।


    ব্র্যাকের শিক্ষার্থীদের অবরোধের এক পর্যায়ে পুলিশ তাদের ধাওয়া দেয়। এ সময় প্রথমবার শিক্ষার্থীরা পিছু হটলেও পরে তারাও পুলিশের দিকে তেড়ে আসেন। শিক্ষার্থীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন, এক পর্যায়ে পুলিশ সাউন্ড গ্রেনেড ফাটায়। বর্তমানে শিক্ষার্থীরা ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির ভেতরে অবস্থান করছেন।



    শিক্ষার্থীদের দাবি, পুলিশ বিনা উস্কানিতে ব্র্যাকে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করেছে। এমনকি তারা ক্যাম্পাসের ভেতরেও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে। পুলিশের হামলায় বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে।


    রহমান আবির নামে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী ঢাকা পোস্টকে বলেন, শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণভাবেই শাটডাউন কর্মসূচি পালন শুরু করেছিল। হঠাৎ করেই পুলিশ এসে কিছু না বলেই আমাদের ওপর চড়াও হয়। এক পর্যায়ে তারা টিয়ারগ্যাস ও গুলি ছুড়তে থাকে। এসময় শিক্ষার্থীরা ভেতর ঢুকে যায়। সেখানেও পুলিশ টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে, যা সম্পূর্ণ অমানবিক পদক্ষেপ। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই।


      

    গতকাল রাজধানীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও শনির আখড়ায় পুলিশের সাথে আন্দোলনকারীদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে তিনি বলেন, উচ্চ আদালত থেকে ছাত্রসমাজ ন্যায়বিচার পাবে এবং তাদের হতাশ হতে হবে না।


    এরপর দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচির ঘোষণা করে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন। কর্মসূচি অনুযায়ী, হাসপাতাল ও জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠান ছাড়া সবকিছু বন্ধ থাকবে এবং রাস্তায় অ্যাম্বুলেন্স ছাড়া কোনো যানবাহন চলবে না বলে জানানো হয়।

    এআই 

    যাত্রাবাড়ীতে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষ, ২ পথচারী গুলিবিদ্ধ

    রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ চলছে। এ সময় পুলিশের গুলিতে দুই পথচারী গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।


    বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ সংঘর্ষ শুরু হয়।


    এর আগে বুধবার সন্ধ্যার পর ওই এলাকায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন এবং পুলিশ আক্রমণ করলে শিক্ষার্থীরাও পাল্টা আক্রমণ করেন। একপর্যায়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের কাজলা অংশের টোলপ্লাজায় আগুন ধরিয়ে দেন। এ ঘটনায় দুই বছরের এক শিশুসহ অন্তত ৬ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। নিহত হয়েছেন একজন।


    পরে রাত সোয়া ৩টার দিকে পুলিশ-র‍্যাব-বিজিবির যৌথ টহলের পর যাত্রাবাড়ী-শনিরআখড়া এলাকায় যান চলাচল শুরু হয়। কিন্তু এরপর আবার তা দখলে নেন আন্দোলনকারীরা। বর্তমানে মহাসড়কের উভয় পাশে যান চলাচল বন্ধ আছে।


    সরেজমিনে দেখা গেছে, আন্দোলনকারীদের ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচির কারণে কোনো যানবাহন ঢাকা থেকে বের হতে পারছে না এবং ঢুকতেও পারছে না। এমনকি রিকশা, মোটরসাইকেল, সাইকেলও যেতে দেওয়া হচ্ছে না। এর ফলে ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। বিশেষ করে অফিসগামী মানুষেরা পড়েছেন চরম ভোগান্তিতে। অনেক মানুষকে হেঁটে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে।


    পথচারীরা জানান, মহাসড়কের রায়েরবাগ অংশে ব্যারিকেড দেওয়ার কারণে ঢাকা থেকে কোনো গাড়ি বের হতে পারছে না। ফলে অনেক গাড়ি আটকা পড়েছে। এর মধ্যে পণ্যবাহী গাড়ির সংখ্যা বেশি। পাশাপাশি দূরপাল্লার বাস, সিএনজিচালিত অটোরিকশাও রয়েছে। অপরপাশে মাতুয়াইল মেডিকেল এলাকায় ব্যারিকেডের কারণে কোনো যানবাহন ঢাকায় ঢুকতে পারছে না।


    প্রসঙ্গত, শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে পুলিশ-বিজিবি-র‍্যাব ও সোয়াটের ন্যক্কারজনক হামলা, খুনের প্রতিবাদ, খুনিদের বিচার, সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস নিশ্চিত করা এবং কোটাব্যবস্থার যৌক্তিক সংস্কারের দাবিতে আজ বৃহস্পতিবার ‌‌‘কমপ্লিট শাটডাউন’ পালন করছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। এই কর্মসূচি চলাকালে শুধু হাসপাতাল, গণমাধ্যমসহ অন্যান্য জরুরি সেবা ছাড়া সবকিছু বন্ধ থাকবে।

    এআই 

    রাজধানীসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন

    কোটা আন্দোলনকারীদের ঘোষিত দেশব্যাপী ‘কমপ্লিট শাটডাউনকে’ কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ঢাকাসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।


    গতকাল দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সংঘে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশসদস্যসহ অনেক শিক্ষার্থী আহত হয়।  


    এ ঘটনায় নিরাপদ ক্যাম্পাস নিশ্চিত ও এক দফা দাবিতে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনের প্লাটফর্ম ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’। 


    বুধবার (১৭ জুলাই) সন্ধ্যা ৭টা ৫৫ মিনিটে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এই কর্মসূচির ঘোষণা দেন কোটাবিরোধী আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক আসিফ মাহমুদ।


    তিনি বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ, বিজিবি, র‍্যাব, সোয়াটের ন্যক্কারজনক হামলা, খুনের প্রতিবাদ, খুনিদের বিচার, সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস নিশ্চিত ও এক দফা দাবিতে ১৮ জুলাই সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা করছি।


    আসিফ মাহমুদ বলেন, কর্মসূচি চলাকালে শুধু হাসপাতাল ও জরুরি সেবা ব্যতীত কোনো প্রতিষ্ঠানের দরজা খুলবে না, অ্যাম্বুলেন্স ব্যতীত সড়কে কোনো গাড়ি চলবে না। সারা দেশের প্রতিটি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদরাসার শিক্ষার্থীদের আহ্বান জানাচ্ছি আগামীকালকের কর্মসূচি সফল করুন। 

    এআই 

    হানিফ ফ্লাইওভারে সংঘর্ষ : গুলিতে যুবক নিহত

    ঢাকা যাত্রাবাড়ীর হানিফ ফ্লাইওভারে সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিতে সিয়াম (১৮) নামে এক তরুণ নিহত হয়েছেন।

    বুধবার (১৭ জুলাই) দিবাগত রাত ১২টার দিকে মৃত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে নিয়ে আসেন কয়েকজন। পরে তার মরদেহ হাসপাতালের ভেতরে নিয়ে গিয়ে অটোরিকশায় করে নিয়ে চলে যান তারা।

    সিয়ামের খালাতো ভাই রাসেল বলেন, সিয়াম গুলিস্তানের একটি ব্যাটারির দোকানের কর্মচারী। রাতে বাসায় ফেরার পথে হানিফ ফ্লাওয়ারে সংঘর্ষ চলাকালে সে গুলিবিদ্ধ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই সিয়াম মারা যায়। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসলেও আমরা আর ভেতরে ঢুকিনি। মরদেহ অটোরিকশায় করে বাসায় চলে যাচ্ছি।

    তিনি জানান, সিয়ামের গ্রামের বাড়ি ভোলার চরফ্যাশনে। বর্তমানে সে মাতুয়াইলে থাকতো।

    ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, যাত্রাবাড়ী হানিফ ফ্লাইওভারে গুলিতে এক যুবককে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে নিয়ে আসেন স্বজনরা। পরে তারা বুঝতে পারেন যে, সিয়াম মারা গেছে। এ জন্য তারা আর হাসপাতালের ভেতরে না ঢুকে মরদেহ নিয়ে চলে যান।

    এফএস

    যাত্রাবাড়ী থানায় আন্দোলনকারীদের হামলা

    ঢাকার যাত্রাবাড়ীতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী ও পুলিশের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ চলছে। বুধবার (১৭ জুলাই) রাতে এ সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। এক পর্যায়ে আন্দোলনকারীরা যাত্রাবাড়ী থানায় হামলা চালান। আগুন দেয়া হয় বেশ কয়েকটি গাড়িতে।

    সংঘর্ষ চলাকালে মুহুর্মুহু ককটেল এবং টিয়ারশেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ, র‍্যাব এবং এপিবিএন- এই তিন বাহিনী একত্রে অভিযানে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

    আন্দোলনকারীরা এর আগে মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের টোল প্লাজায় আগুন দেন। ফায়ার সার্ভিস কন্ট্রোল রুম এ তথ্য জানায়।
     
    জানা যায়, কোটা সংস্কারের দাবিতে যাত্রাবাড়ীতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছিলেন আন্দোলনকারীরা। এ ঘটনায় হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। তবে টোল প্লাজা বন্ধ থাকায় হানিফ ফ্লাইওভার দিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

    এফএস

    বেনাপোলে ঘোষণাবহির্ভূত সালফিউরিক অ্যাসিড জব্দ

    ভারত থেকে বেনাপোল মিথ্যা ঘোষণায় আমদানিকৃত ১৫ টন ৭৫০ কেজি সালফিউরিক এসিড জব্দ করেছে কাষ্টমস কর্তপক্ষ। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) পণ্য চালানটি আটক করা হয়। যার বিল অব এন্ট্রি  নম্বর সি-৫৫৯০৪। পণ্যটির ইনভয়েজ মূল্য ৯৬০৭.৫ মার্কিন ডলার। যা বাংলাদেশী টাকায় ১১ লাখ ৩৩ হাজার টাকা । কাস্টমস শুল্কসহ পণ্যচালানটির মূল্য প্রায় ২১ লাখ টাকা বলে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন ।

    কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, পণ্য চালানটি ভারত থেকে আমদানি করেছেন চট্রগ্রামস্থ রিফ লেদার লিমিটেড। রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান ভারতের কেরেলাস্থ ক্যাটালাইস কেমিক্যাল ইন্ডাট্রিজ। পণ্য চালানটি বন্দর থেকে খালাস করার জন্য কাস্টমসে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল করেন মোশারফ ট্রেডার্স নামের একটি সিএন্ডএফ এজেন্ট।

    গত ২ জুলাই ফরমিক এসিড নাম ঘোষণা  দিয়ে ১৫.৭৫ মেট্রিক টন সালফিউরিক এসিড আমদানি করেন রিফ লেদার লিমিটেড। পণ্য চালানটি বন্দরের ৩৮ সেডে রাখা হয়। জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এর তথ্যের ভিত্তিতে পণ্য চালানটি কায়িক পরীক্ষার পর নমুনা সংগ্রহ করে কেমিক্যাল পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়। ল্যাব টেস্টে ফরমিক এসিডের পরিবর্তে সালফিউরিক এসিড পাওয়া যায়। সালফিউরিক এসিড আমদানি করতে হলে এলসি খোলার আগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় ও বিস্ফোরক অধিদপ্তরের অনুমতি প্রয়োজন হয়।  ফরমিক এসিডের মোট শুল্কহার ৩৭% এবং সালফিউরিক এসিডের শুল্কহার ৭৮%। ঘোষণা বহির্ভূত পণ্য আমদানি ও শুল্ক ফাকির প্রবণতা থাকায় পণ্য চালানটি  আটক করা হয়েছে বলে জানান, বেনাপোল কাস্টমস হাউজের কমিশনার আব্দুল হাকিম।

    তিনি জানান, পণ্য চালানটি বেনাপোল বন্দরে আসার পর ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। ল্যাব পরীক্ষা রিপোর্টে ফরমিক এসিডের স্থলে সালফিউরিক এসিড পাওয়া গেছে।

    অনুমোদন না নিয়ে ও মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে আমদানি করা একটা বড় ধরনের অপরাধ। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে  ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

     সিএন্ডএফ এজেন্ট মোশারফ ট্রেডার্স এর স্বত্বাধিকারী মোশারফ হোসেন জানান, আমার আমদানিকারক ফরমিক এসিড আমদানি করেছেন। পণ্য চালানটি বেনাপোলে বন্দরে প্রবেশ করার পরে কাস্টমস সেটা ল্যাবে পরীক্ষা করে ফরমিক এসিডের পরিবর্তে সালফিউরিক এসিড পেয়েছেন বলে জেনেছি। বিষয়টি আমদানিকারককে জানানো হয়েছে।  

    এইচএ

    যবিপ্রবি বন্ধ ঘোষনা, হল ত্যাগের নির্দেশ

    যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (যবিপ্রবি) বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তাজনিত কারণে বুধবার (১৭ জুলাই) রিজেন্ট বোর্ডের সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া। এদিন বিকেল ৪টার মধ্যে ছেলেদের ও বৃহস্পতিবার মেয়েদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। 


    বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সকালে যবিপ্রবির প্রশাসনিক ভবনের সম্মেলন কক্ষে যবিপ্রবির সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম রিজেন্ট বোর্ডের ১০২তম জরুরি সভার আয়োজন করা হয়।  রিজেন্ট বোর্ডের সদস্যদের অনেকে ভার্চুয়ালি এবং সশরীরে অংশ নেন।


    যবিপ্রবির উপাচার্য ও রিজেন্ট বোর্ডের সভাপতি অধ্যাপক ড.  আনোয়ার হোসেন বলেন, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনশৃঙ্খলার পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলেও দেশের উদ্ভূত পরিস্থিতি বিবেচনায় শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। একইসঙ্গে ছেলেদের আবাসিক হল বিকেল ৪টার মধ্যে এবং মেয়েদের আবাসিক হল আগামীকাল সকাল ১০টার মধ্যে ত্যাগ করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। 


    যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আনিছুর রহমান, যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বিশ্ববিদ্যালয়) খালেদা আক্তার, যুগ্ম সচিব ড. মোর্শেদা আক্তার, যশোরের আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. কাওছার উদ্দিন আহম্মদ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক ড. কৌশিক সাহা, যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মর্জিনা আক্তার, ইউজিসি অধ্যাপক ড. শরীফ এনামুল কবির, যবিপ্রবির অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ইকবাল কবীর জাহিদ, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল (সিএসই) বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গালিব, অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস (এআইএস) বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মেহেদী হাসান, সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. মাহবুবুল হক খান, যশোর সরকারি মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম আহসান হাবীব, রিজেন্ট বোর্ডের সচিব ও রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী আহসান হাবীব প্রমুখ। 

    এআই 

    ঝিনাইদহে ছাত্রদলের ঝটিকা বিক্ষোভ মিছিল

    কোটবিরোধীদের উপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে ঝিনাইদহে ছাত্রদল ঝটিকা বিক্ষোভ মিছিল করেছে। 

    বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুর ১২টার দিকে বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান ষ্টেডিয়ামের সামনে থেকে মিছিলটি বের করা জেলা ছাত্রদল।

    এসময় মিছিলের নেতৃত্ব দেয় জেলা ছাত্রদল সভাপতি সোমেনুর রহমান সোমেন ও  সাধারণ সম্পাদক মুশফিকুর রহমান মানিক, ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইমরান হোসেন। মিছিলটি শহরের এইচএসএস সড়ক প্রদক্ষিণ করে মডার্ণ মোড়ে যেয়ে শেষ হয়। সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ ।

    বক্তব্যে নেতৃবৃন্দ হুশিয়ারী করে দিয়ে বলেন, ছাত্রলীগ ন্যাক্কারজনকভাবে কোটা বিরোধী সাধারণ ছাত্র-ছা্ত্রীদের উপর যেভাবে হামলা চালিয়েছে তা ৭১ এর পাকিস্তানী বর্বোরোচিত ঘটনাকে হার মানিয়েছে। দেশের মানুষ যে পরাধীন তা আবারো প্রমাণ হলো। গণতন্ত্র ধুয়া তুলে এ সরকার সাধারণ মানুষের জান-মালের জন্য আজ হুমকি হয়ে দড়িয়েছে।

    এআই 

    আনারকন্যা ডরিনকে হত্যার হুমকি

    হত্যাকাণ্ডের শিকার সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারের ছোট মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন ও ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলমকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

    মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিকেল ৩টার দিকে এক ফেসবুক পোস্টে এ তথ্য জানিয়েছেন ডরিন।

    নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে ডরিন জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইমোতে টেক্সট মেসেজের মাধ্যমে এই হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে একটি আগ্নেয়াস্ত্রর ছবিও দেওয়া হয়েছে।

    তিনি লেখেন, আজ ইমোতে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের মেয়র আশরাফুল আলমকে হত্যার হুমকি দিয়েছে, সেই সঙ্গে আমাকেও। 

    ওই মেসেজে লেখা ছিল, ‘কিরে আশরাফুল ভালো হলি না, আনারের মতো কি ডরিনের লাশ কিমা কিমা করতে চাস। তুইও ভালো হয়ে যা, আর ডরিনকেও ভালো হয়ে যেতে ক, না হইলে দুজনের লাশ কিমা কিমা করে ফেলামু, বাদ যাবে না কিন্তু।’

    ডরিন সাংবাদিকদের বলেন, এমন বার্তা দিয়ে তারা কী বোঝাতে চাচ্ছে। আমার বাবা হত্যার বিচার ও জড়িতদের ফাঁসি চাই। কোনো আসামি যেন বাংলার মাটি থেকে জামিন বা বের না হতে পারে। প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে তিনি হত্যার হুমকিদাতাকে অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানান।

    ডরিন আরো বলেন, জেলা, উপজেলাসহ যেখানে গোটা বিশ্বের মানুষ এই হত্যার ঘটনা শুনেছে।আসামিরা জেলহাজতে রয়েছে। দুই দেশে তদন্ত চলছে। আমিসহ আমার পরিবার ডিএনএ টেস্ট করতে কলকাতা যাব। এমন সময় হুমকি দিয়ে তারা আমাদের কী বোঝাতে চায়। আমাদের হারানোর আর কিছু নেই।

    এ বিষয়ে কালীগঞ্জ থানার ওসি আবু আজিফ সময়ের কন্ঠস্বরকে  বলেন, হুমকির ঘটনা ভুক্তভোগীদের মুখে শুনেছি। এ ঘটনায় তারা একটি লিখিত অভিযোগ দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। খুব দ্রুতই হুমকিদাতাদের শনাক্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    এমআর

    যশোরে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা ও মারপিট

    যশোরে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালানো হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বেলা ১১টার দিকে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের নেতাকর্মীরা তাদের ওপর হামলা করে বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ। এ সময় কমপক্ষে ১৫ শিক্ষার্থী আহত হয়েছে।   


    জানা গেছে, এদিন সকালে যশোর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা কালেক্টরেট চত্বরে কোটা সংস্কার আন্দোলন করছিলেন। এসময় তাদের ওপর হামলা চালায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের নেতাকর্মীরা। 


    হামলার আগে মুক্তিযোদ্ধারা কোটা বহাল রাখার দাবিতে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি দেয়ার সময় মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের নেতাকর্মীরা তাদের সাথে ছিলেন। জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে বের হওয়ার পর তারা কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায়। এতে কমপক্ষে ১৫ শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 


    এদিকে, হামলার ঘটনার পর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমেছে। তারা কোটা সংস্কার আন্দোলন শুরু করেছে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তারা অবরোধ তুলে নেয়ার জন্য আন্দোলনকারীদের সাথে কথা বলছিলেন। 

    এআই 

    ফটিকছড়িতে পৃথক দুর্ঘটনায় নিহত ২, নিখোঁজ ১

    চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে পৃথক দুর্ঘটনায় শয়ন নাথ (১৫) ও মো. লোকমান নাম দুই জন মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে ফেনী নদীতে গোসল করতে নেমে ওমর (২৮) নামে এক  প্রবাসী নিখোঁজ রয়েছে। 


    বুধবার (১৭ জুলাই) উপজেলা সদর বিবিরহাটে এবং বাগানবাজার ইউপিতে এই দুর্ঘটনা ঘটে।


    নিহতরা হলেন- উপজেলার হারুয়ালছড়ি ইউপির  শান্তিরহাটের দক্ষিণ নাথ পাড়া এলাকার শিপনের পুত্র শয়ন নাথ (১৫) ও ফটিকছড়ি পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের মৃত সামশুল আলমের পুত্র মো. লোকমান (৪০), অন্যদিকে নিখোঁজ ব্যক্তিটি হলেন- বাগানবাজার ইউপির বাংলাবাজারের নুরুল ইসলামের ছেলে প্রবাসী ওমর (২৮)।


    প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শয়ন নাথ বিবিরহাট বাজারে দোকানে একা ঘুমন্ত অবস্থায় ছিলেন। পার্শ্ববর্তী দোকানদারেরা গিয়ে দেখতে পায় বিদ্যুতের লাইনের সাথে লাগানো স্টিলের লোহার সাথে লাগোয়া অবস্থায় তিনি পড়ে আছেন। পরে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে নাজিরহাটস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।


    অন্যদিকে, চলন্ত মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে গুরুতর আহত হয় লোকমান। স্থানীয়রা উদ্ধার করে নাজিরহাটস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।


    উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আরেফিন আজিম বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা এবং বিদ্যুৎস্পৃষ্টে পৃথক ঘটনায় দুইজকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উভয়কে মৃত ঘোষণা করে। 


    এইদিকে দুপুরে ভারত সীমান্ত বর্তী ফেনী নদীতে গোসল করতে যায় বাগানবাজারের পাঁচ যুবক, সাঁতার কাটতে গিয়ে ৪ জন তীরে উঠলেও এখনো নিখোঁজ রয়েছে ওমর (২৮) নামে এক প্রবাসী, ডুবুরীরা উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে। 


    স্থানীয় ইউপি সদস্য জসিম উদ্দিন  ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমার চাচাতো ভাই ওমর নদীতে সাঁতার কাটতে নেমে এখনো নিখোঁজ।

    এআই 

    সেন্টমার্টিনের ট্রলারে ফের গুলি ছুড়েছে মিয়ানমার

    কক্সবাজার টেকনাফে টু সেন্টমার্টিন নৌপথ দিয়ে যাত্রী নিয়ে টেকনাফ আসার সময যাত্রী বোঝাই দুটি ট্রলারকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়েছে মিয়ানমার বাহিনী। 

    তথ্য নিয়ে জানা বুধবার(১৭ জুলাই) বিকালের দিকে শাহপরীর দ্বীপ জেটি সংলগ্ন বাংলাদেশ জলসীমা নাফনদীর মধ্যবর্তী স্থানে উক্ত ঘটনাটি সংঘটিত হয়েছে।

    তবে মিয়ানমার বাহিনীর ছোঁড়া গুলিতে কেউ হতাহত না হলেও যাত্রী বহনকারী একটি ট্রলারে গুলি লেগেছে। এরপর উক্ত ট্রলার দুটির মাঝি-মাল্লারা দ্রুত সময়ের মধ্যে টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপ জেটিঘাটে নোঙর করে যাত্রীদের নিরাপদে নামিয়ে দিতে সক্ষম হয়।

    এ বিষয়ে শাহপরীর দ্বীপ জেটিঘাটের প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় বাসিন্দারা সময়ের কন্ঠস্বরকে সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ট্রলার দুটি বঙ্গোপসাগরের বিকল্প রুটে বাংলাদেশের জলসীমা হয়ে সেন্টমার্টিন থেকে টেকনাফ আসছিলেন। নাফনদীর মধ্যবর্তী স্থানে পৌঁছার পর হঠাৎ করে মিয়ানমার রাখাইন রাজ্যের পাতেঞ্জা নামক এলাকা থেকে গুলি চালানো হয়েছে।

    এ বিষয়ে জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো.আদনান চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের জলসীমায় সেন্টমার্টিন থেকে আসা যাত্রীবাহী দুটি ট্রলারকে লক্ষ্য করে মিয়ানমার দিক থেকে গুলি ছুড়েছে বলে খবরটি করার শুনেছি। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হননি। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

    সেন্টমার্টিনের বাসিন্দা ও ট্রলারের যাত্রী মো.ফারুক স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের জানিয়েছেন, আমরা সেন্টমার্টিন থেকে দুটি ট্রলার বোঝাই করে টেকনাফের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছিলাম।

    এসময় শাহপরীর দ্বীপের ঘোলার চর নামক এলাকা সংলগ্ন নাফনদীর মধ্যবর্তী স্থানটি অতিক্রম করার সময় ট্রলার দুটি লক্ষ্য করে হঠাৎ করে মিয়ানমার গুলি ছোঁড়া হয়। এসময় আমাদের ট্রলারটি পেছনে ছিল। প্রায় ৩০ থেকে ৪০ রাউন্ড গুলি ছুড়েছে তারা। এর মধ্যে একটি গুলি আমাদের ট্রলারে এসে পড়ে। গুলিটি ট্রলারের বাইরের অংশে লাগায় কেউ হতাহত হয়নি। 

    এ বিষয়ে সেন্ট মার্টিন যাত্রী পরিবহন বোট মালিক সমিতির সভাপতি রশিদ আহমদ বলেন, প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে দুটি ট্রলার বাংলাদেশী পতাকা উঁচু করা অবস্থায় টেকনাফের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। ট্রলার দুটি বঙ্গোপসাগর ও নাফনদের বাংলাদেশের জলসীমায় ছিল। এরপরও মিয়ানমার থেকে অতর্কিতভাবে ট্রলার দুটিতে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়া হয়েছে। ভাগ্য অনেক ভালো ছিল,উক্ত ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি। ঘটে যাওয়া ঘটনার বিষয়টি তাৎক্ষণিক ভাবে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে অবহিত করেছে বলেও জানান তিনি। 

    শাহপরীর দ্বীপের বাসিন্দা মোহাম্মদ হাসিম গণমাধ্যম কর্মীদের অভিমত প্রকাশ করে জানিয়েছেন, তিনিসহ কয়েকজন জেটিঘাট থেকে দাঁড়িয়ে ট্রলার দুটি আসতে দেখি। এসময় মিয়ানমার বাহিনী গুলি চালিয়েছিল। ওপার থেকে নিক্ষেপ করা অনেক গুলি শাহপরীরদ্বীপ জেটি ও নাফনদীর আশে পাশে এসে পড়েছে। পাশাপাশি উক্ত সময়ের মধ্যে ওপার থেকে ভেসে আসা ৫০ থেকে ৬০ রাউন্ড গুলির শব্দ শুনতে পেয়েছে বলেও জানান তারা।

    এমআর

    টেকনাফে সাগরপথে নারীসহ ৫ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ

    মিয়ানমার থেকে ট্রলারযোগে বঙ্গোপসাগর অতিক্রম করে দুই নারীসহ ৫ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করেছেন। 

    বুধবার (১৭ জুলাই) বিকেল ৩টার দিকে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের নোয়াখালীপাড়ার ঘটে পৌঁছার পর তাদের আটক করেন স্থানীয় লোকজন। বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

    আটক রোহিঙ্গারা হলেন- মিয়ানমারের আলিপাড়ার হারুনের ছেলে এনামুল হাছান, একরাম উল্লাহর ছেলে মোশাররফ, একরামের স্ত্রী ওমমুল কাইর, একরামের ছেলে মোফশ্শর, আবু বক্করের স্ত্রী শাহনাজ।

    বাহারছড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খোকন বলেন, স্থানীয় বাসিন্দাদের দেওয়া তথ্যেও ভিত্তিতে নোয়াখালীপাড়ার ঘাট থেকে ৫ জনকে আটক করা হয়। বিষয়টি ইতিমধ্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবহিত করা হয়েছে।

    তিনি আরও বলেন, অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের আলিপাড়ার বাসিন্দা। তারা গতকাল রাত ৩টার দিকে ট্রলারে ওঠেন। নোয়াখালীপাড়ার ঘাটে পৌঁছানোর পর  ট্রলার রেখে দালালরা পালিয়ে গেছেন।

    টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আদনান চৌধুরী বলেন, স্থানীয় চেয়ারম্যান বিষয়টি অবহিত করেছেন। পাঁচ রোহিঙ্গাকে বিজিবি হেফাজতে নিয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। ট্রলারটি জব্দ করা হয়েছে। রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশে সহায়তাকারী ট্রলার মালিক, চালক ও দালালদের চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    ইউএনও বলেন, মিয়ানমারের সংঘাতের জেরে সীমান্ত দিয়ে কাউকে অনুপ্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

    বাহারছড়া পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের পরিদর্শক ছমি উদ্দিন বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান ৫ রোহিঙ্গাকে অনুপ্রবেশকালে আটকের বিষয়টি জানিয়েছেন। ঊধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

    এআই 

    বিনা বেতনে ট্রাফিকের কাজ করে প্রশংসা কুড়িয়েছেন তৃতীয় লিঙ্গের শিফা

    পরনে লাল শাড়ি, হাতে লাঠি ও মুখে বাঁশি নিয়ে ট্রাফিক পুলিশের দায়িত্ব পালন করছেন তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া) এক সদস্য। সরকারিভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত নন, স্বঃপ্রণোদিত হয়ে যানজট নিরসনে প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কাজ করেন।


    তার এ উদ্যোগ পথচারী, যানবাহনের চালকসহ সর্বসাধারণের প্রশংসা কুড়িয়েছে। তবে, নিজে স্বাবলম্বী হওয়ার পাশাপাশি বিধবা মায়ের মুখে অন্ন জোগাতে এখন স্থায়ী কর্মসংস্থানের সুযোগ চান তিনি।


    স্থানীয়ভাবে জানা যায়, সাধারণ মানুষের কাছে চেয়েচিন্তে টাকা তুলে তুলেই জীবন চালায় বেশিরভাগ হিজড়া। কিন্তু ছোটবেলা থেকেই কাজ করে স্বাবলম্বী হতে চেয়েছিলেন লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার নন্দনপুর গ্রামের বাসিন্দা শিফা মিজি। ২০০৬ সালে ব্লাড ক্যান্সারে বাবা আমির হোসেনের মৃত্যুর পর কাজ করেছেন বাসা-বাড়িতে। ২০১২ সালে লক্ষ্মীপুরের স্থানীয় একটি ইন্ডাষ্ট্রিজে ১ হাজার ৮’শ টাকা বেতনে চাকরি নেন। কিন্তু করোনাকালীন সময়ে চাকরী হারান তৃতীয় লিঙ্গের এ সদস্য।


    সচেতনতা ও দায়িত্ববোধ থেকে এক বছর ধরে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার রায়পুর-লক্ষ্মীপুর সড়কের দালালবাজারে ট্রাফিক পুলিশের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। তার নিরলস দায়িত্ব পালনে খুশি চালক, পথচারী ও সাধারণ মানুষ।

    শিফা মিজি জানান, সংসারে বিধবা মা কাজল রেখা প্রকাশ জাহানারা ও দুই ভাই রয়েছে। নেই নিজেদের ঘর-বাড়ি। মা অন্যের বাড়িতে কাজ করার সুবাধে ওই বাড়িতে পরিবারের সবাই একসঙ্গে বসবাস করছেন। মা, ছোট ভাইদের মুখে অন্ন তুলে দিতে দালালবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সঙ্গে আলাপ করে যানজট নিরসনে কাজ শুরু করেন। এক সময় এ বাজারে দীর্ঘ যানজট লেগেই থাকতো। তিনি যানজট নিরসনে কাজ করেন বলে অনেক চালক স্বেচ্ছায় তাকে ৫/১০ টাকা করে দেন। আবার স্থানীয় ধর্ণাঢ্য ব্যক্তিরা খুশি হয়ে ৫০০/১০০০ টাকা দেন। সে টাকাতেই তার জীবন চলে। এখন একটি স্থায়ী চাকরী চান তৃতীয় লিঙ্গের এ সদস্য।


    এদিকে শিফার পরিবারের জন্য সরকারিভাবে দুই কক্ষ বিশিষ্ট একটি ঘর নির্মাণ চলছে বলে জানা গেছে । এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন শিফা মিজি।


    লক্ষ্মীপুর ট্রাফিক পুলিশ ইনচার্জ প্রশান্ত কুমার দাস বলেন, দীর্ঘ দিন থেকে তৃতীয় লিঙ্গের শিফা নিজ উদ্যোগে ট্রাফিকের দায়িত্ব পালন করছেন। তার মতো অন্য হিজড়ারা যদি কর্মে ফিরে আসে তাহলে মানুষও তাদের ভাল চোখে দেখবে।

    আরইউ

    চট্টগ্রামে ৩ জন নিহতের ঘটনায় ৪ মামলা, আসামি ৭ হাজার

    চট্টগ্রামের মুরাদপুরে কোটা সংস্কার আন্দোলনে সংঘর্ষ ও তিন জন নিহত হওয়ার ঘটনায় খুলশী এবং পাঁচলাইশ থানায় পুলিশের ৪টি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় প্রায় সাড়ে ৭ হাজার জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

     

    বুধবার (১৭ জুলাই) সকালে এসব মামলা রুজু করা হয়। ইতিমধ্যে বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে। এর আগে মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে চট্টগ্রামে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগের দফায় দফায় সংঘর্ষ ৩ জন নিহত এবং শতাধিক আহত হন।  


    মামলা চারটির মধ্যে খুলশী থানায় একটি এবং পাঁচলাইশ থানায় বাকি তিন মামলা করা হয়। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. সাইফুল ইসলাম। 


    পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সন্তোষ কুমার চাকমা বলেন, মঙ্গলবার বিকেলে মুরাদপুর এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় পাঁচলাইশ থানায় পৃথক তিনটি মামলা করা হয়েছে। এসব মামলায় আসামি প্রায় সাত হাজার। এ তিন মামলার মধ্যে পুলিশ করেছে দুটি। অন্যটি আহত একজনের মা করেছেন। পুলিশের দুই মামলার বাদী পাঁচলাইশ থানার এসআই দীপক দেওয়ান।


    তিনি আরও বলেন, তিন জন নিহতের ঘটনায় করা মামলায় ছয় হাজার থেকে সাড়ে ছয় হাজার জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়। বিস্ফোরক আইনে করা মামলায় ১৫০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ইমন ধর নামে আহত এক ব্যক্তির মা সুমি ধর বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। ওই মামলায় ১৫০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।


    চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (পিআর) কাজী মো. তারেক আজিজ বলেন, সংঘর্ষের ঘটনায় খুলশী থানায় আরেকটি মামলা হয়েছে। আহত এক ব্যক্তির স্বজন বাদী হয়ে এ মামলা করেন। এ মামলায় একজনের নাম উল্লেখ করে ৫০০ থেকে ৬০০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। 

    এসএফ

    গজারিয়ায় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ সভা

    মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ সভা ও সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

    'স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তির ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও' এই শ্লোগানে বুধবার (১৭ জুলাই) সকাল ১০ টায় ভবেরচর মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে প্রতিবাদ সভা ও সাংবাদিক সম্মেলন করেন গজারিয়া উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধারা।

    সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের কোটা বাতিল আন্দোলনের নামে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে কটূক্তিকারীদের নিন্দা জ্ঞাপন, দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানানো হয়। 

    যুদ্ধকালীন গ্রুপ কমান্ডার ইন্জিঃ আঃ রহমানের সভাপতিত্বে উপস্হিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সিকান্দার আলী, মোঃ সোলায়মান, এম এ কাদের, এস এম আলী হোসেন,  আনিসুর রহমান,মোসলেম উদ্দিন,  আঃ রাজ্জাক প্রমূখ।

    সংবাদ সম্মেলনে বক্তরা বলেন,যখন আমরা যুদ্ধ করে দেশটা স্বাধীন করেছিলাম তখন কি আমরা জানতাম আমাদের কে সরকার ভাতা দিবে, ঘর দিবে, বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দিবে। মুক্তিযোদ্ধদের সাথে হিংসা কেনো। আপনারা আপনাদের দাবী পূরনের জন্য মাঠে নামেন শান্তিপূর্ণ  ভাবে আন্দোলন করুন। স্বাধীনতার পর থেকেই যারা জামাত বিএনপি তারা এদেশকে অস্থিশীল করার চেষ্টা করছে আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। 

    এমআর

    সখীপুরে স্বামীর হাতে গৃহবধূ খুন

    টাঙ্গাইলের সখীপুরে স্বামীর হাতে খুন হয়েছেন ফাহিমা আক্তার নামে এক গৃহবধূ। গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে উপজেলার নয়াপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই পালিয়ে গেছে ঘাতক হুমায়ুন (৪৫)। নিহত ফাহিমা ওই গ্রামের মেহেরআলী মেয়ে।


    স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হুমায়ুন মিয়া ও তার স্ত্রী ফাহিমা আক্তারের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে পারিবারিক কলহ চলে আসছিল। মঙ্গলবার রাতে কলহের জেরে তাদের মাঝে ঝগড়া হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে হুমায়ুন রাত ১১টায় তার কন্যা মাহফুজাকে মামা ফজলু মিয়ার বাড়িতে রেখে আসেন এবং ভোররাতে হুমায়ুন তার মামা ফজলু মিয়ার কাছে ফোন করে খুন করার বিষয়টি জানান। এ ঘটনার পর ফজুল মিয়া ফোন করে বিষয়টি পুলিশকে জানালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে।


    হুমায়ুনের মামা ফজলু মিয়া বলেন, ভোররাতে হুমায়ুনের বাড়িতে তার বউকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে পুলিশকে জানাই।


    নিহত ফাহিমার বাবা মেহের আলী বলেন, আমার কলিজার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। আমি হুমায়ুনের দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।


    সখীপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ শাহিনুর রহমান বলেন, লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের স্বজনের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি হুমায়ুন এ ঘটনা ঘটিয়েছে। বর্তমানে সে পলাতক রয়েছে।

    এসএফ

    নিহত ৬ শিক্ষার্থীর নাম বুকে লিখে নারায়ণগঞ্জে বিক্ষোভ

    কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত ৬ জনকে স্মরণ করে নারায়ণগঞ্জে মাতম মিছিল করেছে আন্দোলনকারীরা। তাজিয়া মিছিলের আদলে ‘হায় সাঈদ, হায় ওয়াসিম’ মাতমে মিছিল করেন তাঁরা।

    বুধবার (১৭ জুলাই) বেলা সোয়া ৩টায় চাষাঢ়া গোলচত্বর থেকে মিছিল বের করেন আন্দোলনকারীরা। এ সময় তাঁরা বুকে-পিঠে নিহত ব্যক্তিদের নাম লিখে মাতম করতে থাকেন। বুক চাপড়ে ‘হায় সাঈদ, হায় ওয়াসিম, হায় ফয়সাল’ বলে মাতম করেন আন্দোলনকারীরা। 

    মিছিলটি নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের গ্রীনলেস ব্যাংকের মোড় ঘুরে প্রেসক্লাবের সামনে জড়ো হয়। সেখানে দীর্ঘক্ষণ মাতম স্লোগান দিয়ে পথসভা করেন আন্দোলনকারীরা।

    নারায়ণগঞ্জ আইন কলেজের শিক্ষার্থী ফারহানা মানিক মুনা বলেন, আমরা মহররমের তাজিয়া মিছিলের আদলে একটি প্রতীকী মিছিল করেছি। এর সঙ্গে ধর্মীয় কোনো সম্পর্ক নেই। গতকাল কোটা আন্দোলনে যুক্ত হওয়ায় আমাদের ভাইদের হত্যা করা হয়েছে। তাঁদের স্মরণে আমরা এই মাতম মিছিল করেছি। আমরা মনে করি, ইয়াজিদের অনুসারীদের হাতেই মৃত্যু হয়েছে আমাদের ভাইদের।

    আন্দোলনের পরবর্তী কার্যক্রম জানতে চাইলে ফারহানা মানিক মুনা বলেন, আন্দোলনের গতিপথ নির্ধারণ করবে শিক্ষার্থীরাই। যতক্ষণ পর্যন্ত দাবি আদায় না হবে ততক্ষণ এই আন্দোলন চলবে। ২০১৮ সালে আন্দোলন হয়েছিল, ২০২৪ সালে আন্দোলন ফিরে এসেছে। এটা মনে করার কোনো কারণ নেই যে মেরে-কেটে আন্দোলন স্থবির করে রাখা যাবে। মানুষ প্রতিবাদ করবেই।

    এমআর

    গায়েবানা জানাজা থেকে ইমাম ও বিএনপি নেতাকে ধরে নিয়ে গেল পুলিশ

    মুন্সিগঞ্জে কোটা সংস্কারের দাবীতে আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থীদের গায়েবানা জানাজায় পুলিশের বাঁধা প্রদানের ঘটনা ঘটছে। এসময় নামাজের ঈমাম ও বিএনপির ১ নেতাকে আটক করা হয়।


    বুধবার (১৭ জুলাই) বেলা ১১ টার দিকে শহরের থানারপুল এলাকার জেলা বিএনপির কার্যালয়ের নীচে এ ঘটনা ঘটে।


    আটক দুজন হলেন- ইমাম আব্দুর রহমান হিরন ও শহর বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাহবুব-উল-আলম স্বপন।


    প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ছাত্র হত্যার ঘটনায় সকাল ১১টায় দলটি গায়েবানা জানাযার আয়োজন করে। এসময় নেতাকর্মীরা জানাযায় দাঁড়ান। জানাজা শুরু হতেই পুলিশ জানাযার ঈমাম আব্দুর রহমান হিরন ও শহর বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাহবুব-উল-আলম স্বপনকে ধরে নিয়ে যায়। এতে জানাযা পণ্ড হয়ে যায়।


    জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, পুলিশ আমাদের নামাজ পর্যন্ত পড়তে দেয়নি। উল্টো আমাদের দুজন নেতাকে ধরে নিয়ে গেছে। আটক দুই নেতার মুক্তি দাবি করছি।


    সদর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সড়ক বন্ধ করে জানাজায় দাঁড়িয়েছিল তারা। এতে অরাজকতার সৃষ্টি হচ্ছিল। তাই দুজনকে আটক করা হয়। একই সঙ্গে নেতাকর্মীদের সরিয়ে দেওয়া হয়।

    মাদারীপুরে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ, আহত ৪

    মাদারীপুরে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে কোটা আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগের সংঘর্ষে আহত হয়েছে অন্তত ৪ জন। পরে ঘটনাস্থলে থাকা পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।


    বুধবার (১৭ জুলাই) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সদর উপজেলার মোস্তফাপুরে এই ঘটনা ঘটে। 


    আহতরা হলেন- মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার শাখারপাড় এলাকার গোলাম মাওলা মুন্সির মেয়ে সামিয়া আক্তার (১৮), শহরের পানিছত্র এলাকার সেলিম মিয়ার মেয়ে তানজিলা (১৮), কাজী আল আমিন (২২)। বাকি একজনের নাম পাওয়া যায়নি। তারা সবাই মাদারীপুর সরকারি কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থী।


    জানা যায়, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কোটা বাতিলের দাবিতে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের মোস্তফাপুরে অবস্থান নেয় আন্দোলনকারী। এ সময় মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে বেলা ১১টার দিকে জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সড়ক থেকে আন্দোলনকারীদের সরে যেতে বলে। এ সময় উভয়ের মধ্যে মধ্যে প্রথমে হাতাহাতি, পরে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে লাঠিশোঠা নিয়ে আন্দোলনকারীদের উপর হামলা চালানোর অভিযোগ ওছেঠ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এতে আন্দোলনকারী ৪ ছাত্র আহত হয়। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে জেলার আড়াইশো’ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশকে নিরব ভূমিকায় থাকতে দেখা গেছে।


    মাদারীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএইচএম সালাউদ্দিন জানান, আন্দোলনকারীরা ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে অবস্থান নিলে পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকলেও পরে পরিস্থিতি দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

    এআই 

    বরিশালে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ, পুলিশের উপ-কমিশনার রক্তাক্ত

    ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে মহানগর পু‌লিশের উপ-ক‌মিশনার (ডিসি) আলী আশরাফ ভূঞা ও কয়েকজন সাংবাদিক আহত হয়েছেন।


    বুধবার (১৭ জুলাই) বিকেল পৌনে ৫টার দিকে নগরীর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নতুল্লাবাদ এলাকায় এ সংঘর্ষ হয়।

     

    প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করে অবস্থান নিলে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। তখন আন্দোলনকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে ডিসি আলী আশরাফ ভূঞা এবং কয়েকজন সাংবাদিক ও শিক্ষার্থী আহত হন।

    এসএফ 

    কাউখালীতে গাঁজাসহ ওষুধ ব্যবসায়ী গ্রেফতার

    পিরোজপুরের কাউখালীতে গাঁজাসহ এক ওষুধ ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) রাতে উপজেলা সদরের কচুয়াকাটি বেইলি ব্রিজ সংলগ্ন এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। 

    গ্রেফতার ওষুধ ব্যবসায়ী রাসেল হাওলাদার (২৫) দাসেরকাঠি গ্রামের মাহবুবুর রহমানের ছেলে।   

    কাউখালী থানা পুলিশের সূত্রে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার রাতে ওষুধ ব্যবসায়ী রাসেল হাওলাদারকে ৪০ গ্রাম গাঁজাসহ গ্রেপ্তার করেন। এসময় রাসেলের সহযোগী উঝিয়ালখান গ্রামের সাহেব আলী ছেলে সাব্বির হোসেনকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। সাব্বির পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে কাউখালী থানায় বুধবার (১৭ জুলাই) বুধবার একটি মামলা হয়েছে। 

    কাউখালী থানার এসআই মো. সানি জানান, আসামিদের বিরুদ্ধে কাউখালী থানায় মামলা হয়েছে এবং পিরোজপুর কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে। আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। আমরা গডফাদারদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

    এইচএ


    কটুক্তির প্রতিবাদে পিরোজপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও সন্তানদের মানববন্ধন

    কোটা ইস্যুকে কেন্দ্র করে চলমান আন্দোলনে বিভিন্ন বক্তব্য এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারকে অবমাননা এবং কটুক্তি করার প্রতিবাদে পিরোজপুর শহরে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।


    বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুরে শহরের টাউন ক্লাব সড়ক অবরোধ করে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আয়োজনে ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।


    বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুর ডাকে নিজের জীবন বাজী রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধ করেই আপনাদের এই বাকস্বাধীনতা এনে দিয়েছি। আর সেই বঙ্গবন্ধু ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অবমাননা করা হচ্ছে, কটুক্তি করা হচ্ছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে কটুক্তিকারীদের বিচার দাবি করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে। 


    এদিকে একই সময়ের কোটা আন্দোলনে জড়িত হয়ে ছাত্রদল ও ছাত্রশিবিরের হামলার অভিযোগ তুলে পিরোজপুর সরকারি সোহ্রাওয়ার্দী কলেজে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। পরে মিছিলটি শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে টাউনক্লাবে শেষ হয়।

    এআই 

    ছারছীনা পীর সাহেবের ইন্তেকাল, জানাজা বৃহস্পতিবার

    ছারছীনার পীর সাহেব হুজুর বাংলাদেশ সময় রাত ২:১১ ঘটিকায় ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্না-লিল্লাহী ওয়াইন্না ইলাইহী রাজিউন)

    দেশের কোটি কোটি মানুষের আধ্যাত্মিক রাহবার বাংলাদেশ জমইয়াতে হিযবুল্লার মাননীয় আমির, প্রায় দুই হাজার দ্বিনিয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা, বাংলাদেশ জমিয়াতুল মুদার্রেসিন এর প্রধান পৃষ্ঠপোষক  ও মসজিদে গাউসুল আজম কমপ্লেক্সের মুতাওয়াল্লী আলহাজ্ব হযরত মাওলানা শাহ মোহাম্মদ মোহেব্বুল্লাহ সাহেব আজ রাত দুইটা ১১ মিনিটে রাজধানীর সেন্ট্রাল হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। ইন্তেকালের সময় মরহুমের বয়স হয়েছিল ৭০ এর কাছাকাছি।

    পীর সাহেব কেবলা দীর্ঘদিন যাব বার্ধক্য জনিত রোগে ভুগতে ছিলেন। প্রথমত রাজধানীর গ্রীন লাইফ হাসপাতালে, সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে এবং সর্বশেষ গ্রিন রোদস্থ সেন্ট্রাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। 

    ইন্তেকালের সময় তিনি স্ত্রী, দুইপুত্র, তিন কন্যা ও অনেক নাতি নাতনি রেখে যান। মরহুমের জানাজার নামাজ ১৮ জুলাই রোজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৩ ঘটিকায় ছারছীনা দরবার শরীফে অনুষ্ঠিত হবে।

    সকল পীরভাই, মুহিব্বীনদের নিকট পীর সাহেব কেবলার রুহের মাগফিরাতের জন্য দোয়া কামনা করছেন হযরত পীর সাহেব কেবলার বড় সাহেবজাদা আলহাজ্ব হযরত মাওলানা শাহ্ আবু নছর নেছরুদ্দীন আহমদ হোসাইন।

    এমআর

    কোটা ইস্যুতে বরগুনায় দুই ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ

    কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলার ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়ে আমতলী পৌর ছাত্রলীগের ইউনিটের কমিটিতে থাকা  নেতারা পদত্যাগ  করেছে।

    সোমবার (১৫ জুলাই) রাতে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে বরগুনা আমতলী উপজেলার পৌর ছাত্রলীগের ইউনিট কমিটির  ২  নেতা ছাত্রলীগ থেকে পদত্যাগ করেন।

    পদত্যাগকারীরা হলেন- আমতলী উপজেলা পৌর ছাত্রলীগের  ইউনিট কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম জিয়া ও একই কমিটির আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক তানজিল এইচ রাব্বি। 

    তৌহিদুল ইসলাম জিয়া ফেসবুকে লেখেন, আমি তৌহিদুল ইসলাম জিয়া যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমতলী পৌর ছাত্রলীগ যে নিজ ইচ্ছায় পদত্যাগ করলাম ধন্যবাদ। 

    পৌর ছাত্রলীগের ইউনিট কমিটির অপর এক নেতা তানজিল এইচ রাব্বি ফেসবুকে লেখেন, আমি তানজিল এইচ রাব্বি আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক আমতলী পৌর ছাত্রলীগ  থেকে নিজ ইচ্ছায় পদত্যাগ করলাম ধন্যবাদ, আগে যাও একটু মোটামুটি ছাত্রলীগ করতাম এখন ধিক্কার জানাই। ফেসবুকে তাদের এই পোস্ট দেয়ার পর পরই কোটাবিরোধী আন্দোলনের সমর্থনকারীরা পোস্টে  লাইক দিয়ে  কমেন্টে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। 

    এমআর

    গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর

    ময়মনসিংহের গৌরীপুর উদীচী কার্যালয়ে হামলা ও ভাংচুর করেছে দুবৃর্ত্তরা। বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুরে এই ঘটনা ঘটে।

    জানা গেছে, গৌরীপুর পৌর শহরের সুরেশকৈরী সড়কের পাশেই উদীচী কার্যালয়। বুধবার কার্যালয়টি বন্ধ ছিল। ওইদিন দুপুরে একদল দুবৃর্ত্ত কার্যালয়ের হামলা চালায়। এসময় দুবৃর্ত্তরা কার্যালয়ের সাইনবোর্ড ও তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে চেয়ার ও বাদ্যযন্ত্র ভাংচুর করে। এছাড়াও কার্যালয়ের ভেতরে সংরক্ষিত থাকা প্রয়োজনীয় কাগজ বাইরে ফেলে দিয়ে আগুনে পুড়িয়ে দেয়।

    উপজেলা উদীচীর সাধারণ সম্পাদক আলী আশরাফ আবির বলেন, আমাদের কার্যালয় আজ বন্ধ ছিল। দুপুরে দুবৃর্ত্তরা কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভেতরে প্রবেশ করে চেয়ার ও বাদ্যযন্ত্র ভাংচুর করে। এছাড়াও সিলিং ফ্যান ও ২০টি চেয়ার নিয়ে যায়। আগুনে পুড়িয়ে দেয় অফিসের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র।

    উপজেলা উদীচীর সভাপতি ওবায়দুর রহমান বলেন, কে বা কারা উদীচী কার্যালয়ে হামলা, ভাংচুর ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রে অগ্নিসংযোগ করেছে আমরা বলতে পারছি না। ঘটনার পরপরই বিষয়টি থানায় জানানো হয়েছে। আমরা এই ঘটনার বিচার চাই।

    গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুমন চন্দ্র রায় বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

    এমআর

    নেত্রকোনায় সড়ক অবরোধ করে স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

    সারা দেশে চলমান আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদ, নিহতদের বিচার ও কোটা সংস্কারের দাবিতে নেত্রকোনার দুর্গাপুরে বিক্ষোভ করেছে স্কুল-কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

    বুধবার (১৭ জুলাই) সকাল ১১টার দিকে শিক্ষার্থীরা উপজেলা শিল্পকলা একাডেমীর সামনে জড়ো হয়ে সেখানে থেকে মিছিল নিয়ে শহরের প্রেসক্লাব মোড় এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে।


    বিক্ষোভে শিক্ষার্থীরা 'কোটা না মেধা', 'আমার ভাইয়ের রক্ত বৃথা যেতে দেবো না' স্লোগানে মুখর করে তোলেন পুরো এলাকা। তারা বলেন, আমরা অধিকার চাইতে গিয়ে হয়ে গেলাম রাজাকার। আমাদের ভাইদের রক্ত ঝরানো হয়েছে। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই,কোটা প্রথার সংস্কার চাই।


    এই সময় শিক্ষার্থীরা আরও বলেন, দাবি না মানা পর্যন্ত আমরা আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাবো। আমরা কোটা সংস্কার চাই। মেধা দিয়ে সমাজ গড়তে চাই। আমাদের ভাইদের নির্বিচারে হত্যা করা হচ্ছে আমরা এর দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

    এআই 

    জামালপুরে ছাত্রলীগ নেতাদের মোটরসাইকেল ভাঙচুর

    জামালপুরে কোটা আন্দোলনকারীরা সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজ ঘেরাও করে ছাত্রলীগ নেতাদের ১০/১২টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে। বুধবার (১৭ জুলাই) এ ঘটনা ঘটে।


    জানা গেছে, জামালপুর জিলা স্কুল, সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, বেসরকারি সৃষ্টি স্কুল এবং বঙ্গবন্ধু স্কুলসহ একাধিক স্কুলের আন্দোলনকারীরা জামালপুর হাইস্কুল মাঠে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে জড়ো হয়। পরে তারা মিছিল নিয়ে শহরের মির্জা আজম চত্বরে গিয়ে সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত মহাসড়ক অবরোধ করে।


    সেখান থেকে বেলা ১১টার পর শহরের শেখের ভিটা রেলক্রসিংয়ে দেওয়ানগঞ্জগামী কমিউটার ট্রেন আটকে দেয়। এক ঘণ্টা পর ট্রেন ছেড়ে দিয়ে তারা শহরের পাঁচ রাস্তা দিয়ে মিছিল নিয়ে সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজের দিকে আসতে থাকে।


    কোটা আন্দোলনকারী রেদওয়ান খন্দকার মাহিন বলেন, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কলেজ মাসজিদের কাছে মিছিল আসামাত্রই কলেজে অবস্থানরত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ঢিল ছুড়তে থাকে এবং গালাগাল করে। এ সময় আন্দোলনকারী এক নারী আহত হয়। পরে তারা কলেজের সামনে চলে আসে এবং ছাত্রলীগ নেতাদের ধাওয়া করে।



    তিনি বলেন, এ সময় ছাত্রলীগ নেতারা দৌড়ে কলেজের দোতলায় গিয়ে আশ্রয় নেয়। পরে কোটা আন্দোলনকারীরা ছাত্রলীগ নেতাদের ১০-১২টি বাইক ভাঙচুর করে।


    জামালপুর জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি খাবিরুল ইসলাম খান বাবু, সাধারণ সম্পাদক নাফিউল করিম রাব্বিসহ ছাত্রলীগের একাধিক নেতা তখন কলেজ গেটে অবস্থান করছিল বলে জানা গেছে।


    এ বিষয়ে জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাফিউল করিম রাব্বি বলেন, আমি কলেজ থেকে চলে এসেছি। আমার নতুন বাইকটিও ভাঙচুর করেছে কোটা আন্দোলনকারীরা।


    সদর থানা পুলিশের ওসি মহব্বত কবির জানান, পুলিশ জানমাল রক্ষা করতে কাজ করছে।

    এআই 

    ঈশ্বরগঞ্জে মাদ্রাসা শিক্ষিকার আত্মহত্যা

    ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে এক মাদ্রাসা শিক্ষিকা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। 

    ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে পৌরসভার শিমরাইল গ্রামে। আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঈশ্বরগঞ্জ থানার উপ পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম।

    স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আত্মহত্যাকারী নারী ঈশ্বরগঞ্জ পাটবাজার জামে মসজিদের ইমাম ও দারুল উলুম উম্মে হাবিবা মহিলা মাদ্রাসার পরিচালক হাফেজ মাওলানা মোঃ ইউসুফ আলী স্ত্রী ও দারুল উলুম উম্মে হাবিবা মহিলা মাদ্রাসার শিক্ষিকা ফেরদৌসী বেগম (৪০)। 

    নিহতের স্বামী ইউসুফ আলী জানান, গত ১৫ দিন যাবত শারীরিক অসুস্থতায় ভুগছিলেন। ঘটনার দিন সকালে রান্না বান্না করে পরিবারের সকল সদস্যদের সাথে খাবার খায়। পরে দুপুরে বাড়ির লোকজনের অগোচরে গোসল খানায় প্রবেশ করে আড়ার সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরিবারের লোকজন গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলতে দেখে থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল করে। 

    ঈশ্বরগঞ্জ থানার উপ পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম জানান, এই নারী আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। মৃত্যুর ব্যাপারে পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই দাফনের জন্য পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়।

    এমআর

    জামালপুরে ছাত্রলীগের সমাবেশে হামলা, আটক ১

    জামালপুর পৌর ছাত্রলীগের সমাবেশে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত তিনজন। এ সময় হামলার অভিযোগে তানজিদ নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

    মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সকাল বেলা ১১টার দিকে শহরের রেলওয়ে স্টেশন চত্বরে এ ঘটনা ঘটে।

    আহতরা হলেন আল শাহরিয়ার নিরব, বালা, আদর। নিরব জামালপুর পৌর ছাত্রলীগের উপদপ্তর সম্পাদক ও বাকি দুজন সংগঠনটির সাধারণ সদস্য বলে জানা গেছে।

    জানা গেছে, জামালপুর পৌর ছাত্রলীগের আয়োজনে জামালপুর জেলা ছাত্রলীগ এবং সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজ শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ছাত্র সমাবেশে যোগ দেয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি খাবিরুল ইসলাম খান।

    পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি ফাহিম মোস্তাফিজ এলিট  জানান, প্রধান অতিথির বক্তব্যের শেষ দিকে বিএনপি নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন, তার ছেলে মারুফ, ভাগনে তানজিদ ইসলাম, মিনহাজ রাজন এবং তারেকসহ ২০-৩০ জন হামলা চালিয়ে পৌর ছাত্রলীগের উপদপ্তর সম্পাদক আল শাহরিয়ার নিরবসহ আরও দুজনকে আহত করে।

    আহত নিরবকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান তিনি। নিরবের পেটে ধারলো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তার শরীরে একুশটা সেলাই দেওয়া হয়েছে।

    জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাফিউল করিম রাব্বী জানান, ছাত্রলীগের ওপর হামলার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় আনতে হবে।

    জামালপুর সদর থানার ওসি মহব্বত কবির জানান, ছাত্রলীগের সমাবেশে হামলার ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় আরও যারা যুক্ত আছে, অভিযোগ পেলে তদন্ত করে সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।

    এআই 

    গাইবান্ধায় কোটা বিরোধীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

    কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে গাইবান্ধায় আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু বক্কের সিদ্দিক, সাংবাদিক ও আন্দোলনকারীসহ অনন্ত ৬০ জন আহত হয়েছেন।


    বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুর সাড়ে বারটার দিকে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অগ্নি সংযোগ করেন আন্দোলনকারীরা। এর আগে বেলা ১১টায় কয়েক হাজার শিক্ষার্থী একত্রিত হয়ে একটি মিছিল বের করে। মিছিলটি শহরের রেলগেট থেকে বের হয়ে প্রায় আড়াই কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে ডিবি রোডের এসপি অফিসের সামনে গিয়ে বিক্ষোভ করে। মিছিলটি আবারো  ঘুরে রেলগেটে এসে বিক্ষোভ করতে থাকে। 


    এ সময় শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দাবি সম্বলিত ব্যানার, হাতে লেখা পোস্টার নিয়ে স্লোগান দিতে থাকেন এবং রেলসহ শহরের সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দেন।


    এক পর্যায়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগ অফিসে প্রথমে ভাঙচুর শুরু করেন তারা। পরে চত্বরের ১১টি মোটরসাইকেলে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। আন্দোলনকারীরা জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের জানালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে হামলা চালান। 


    এসময় আন্দোলনকারীদের হামলায় জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক, মেয়র মতলুবর রহমান,সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মৃদুল মোস্তাফিজ ঝন্টুসহ অর্ধশত নেতা কর্মীর হামলার শিকার হোন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ টিয়ারসেল নিক্ষেপ করলে আন্দোলনকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান। এর ফলে শহরের দোকানপাট ও যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

    এআই 

    ফুলবাড়ীতে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের মাঝে সচেতন করতে মাঠে প্রশাসন

    কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের মাঝে জনসচেতন মূলক প্রচার-প্রচারণা করতে মাঠে নেমেছে প্রশাসন। প্রান্তিক পর্যায়ে সাধারণ শিক্ষার্থীরা যাতে কোটা বিরোধী গুজবের ফাঁদে না পড়ে সে লক্ষ্যে প্রান্তিক পর্যায়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে জনসচেতন মূলক প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন উপজেলা প্রশাসন।


    বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুরে উপজেলার বালারহাট বাজারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রেহেনুমা তারান্নুম শিক্ষার্থী ও শতাধিক অভিভাবকদের মাঝে জনসচেতন মূলক প্রচার-প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে।


    উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রেহেনুমা তারান্নুম ও ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ নওয়াবুর রহমানের নেতৃত্বে উপজেলার সদর, বড়ভিটা শাহবাজার, নাওডাঙ্গার বালারহাট ও গংগাহাট বাজারে গিয়ে চলমান কোটা বিরোধী আন্দোলনে গুজব জড়িয়ে মিছিল সমাবেশ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্র বিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত না হয় সেই লক্ষ্যেই মাঠ পর্যায়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে জনসচেতন মূলক প্রচার- প্রচারণা চালাচ্ছেন। এ সময় ফুলবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) নাজমুস সাকিব সজিবসহ বিপুল সংখক পুলিশ উপস্থিত ছিলেন। 


    ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নওয়াবুর রহমান জানান, সকাল থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহাদয়সহ বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে চলমান কোটা বিরোধী আন্দোলনে গুজব ছড়িয়ে আন্দোলনে অংশ না দেয় সেলক্ষ্যে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে জনসচেতন মুলক প্রচার- প্রচারণা হয়েছে। পাশাপাশি উপজেলার নাওডাঙ্গা ইউনিয়নসহ বেশ কিছু স্পটে ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। 

    এআই 

    লালমনিরহাটে কোটা সংস্কার আন্দোলনে সড়ক অবরোধ-বিক্ষোভ

    দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি ও সরকারি চাকরিতে কোটা বৈষম্যের প্রতিবাদে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেককারজনক হামলার বিচারের দাবিতে এবং চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।



    বুধবার (১৭ জুলাই) বেলা ১১টায় শহরের জেলা পরিষদ অডিটোরিয়াম বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছাত্রীরা জড়ো হয়ে পরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে শহরের বিভিন্ন সড় প্রদক্ষিণ করে মিশন মোড় গোল চত্বর লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়কে অবস্থান করেন।


    এ সময় কাঠফাটা রোদ, আর তীব্র গরম মধ্যে আন্দোলনকারীরা, কোটা না মেধা, মেধা মেধা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে  হামলা কেন, প্রশাসন জবাব দে, শিক্ষার্থীদের উপর হামলা কেন, প্রশাসন জবাব দে। মামলা করে আন্দোলন, বন্ধ করা যাবে না, দফা এক, দাব এক,  কোটা নট কাম ব্যাক, সারা বাংলায় খবর দে, কোটা প্রথার কবর দে। ইত্যাদি স্লোগান দিতে থাকেন।আন্দোলনকারীদের সড়ক অবরোধ করে ফুটবল খেলা সহ বিভিন্ন প্রকাশ উল্লাস করতে দেখা যায়।


    সাধারণ শিক্ষার্থীরা বলেন, আমাদের দাবী না মানা পর্যন্ত আমরা রাজপথে আন্দোলন করে যাবো। সকল ধরনের অযৌক্তিক কোটা বাতিল করে শুধুমাত্র পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য কোটা রেখে সংসদে অবিলম্বে আইন পাশ না করা পর্যন্ত আমরা রাজপথ ছাড়বো না। পরে শিক্ষার্থীরা টানা ২ ঘন্টা আন্দোলন শেষে কর্মসূচি স্থগিত করে ফিরে যান। 


    দেশের বিভিন্নস্থানে আন্দোলনকারী সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তারা কোটা পদ্ধতি বাতিল করে অবিলম্বে সাধারণ শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি মেনে নেওয়ারও আহবান জানান। 


    লালমনিরহাট সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক বলেন, শিক্ষার্থীরা ‘শান্তিপূর্ণভাবে’ বিক্ষোভ করছে,  সরকারি যানমাল রক্ষায় এবং যেকোনো বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি এড়াতে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

    আশুরা উপলক্ষে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

    পবিত্র আশুরা উপলক্ষে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মাঝে পণ্য আমদানি রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সেই সঙ্গে বন্দরের ভেতরের সকল কার্যক্রমও বন্ধ রয়েছে। তবে হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট দিয়ে দু’দেশের মাঝে পাসপোর্টে যাত্রী পারাপার কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছেন ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ।


    বাংলাহিলি কাস্টমস সিআ্যন্ডএফএজেন্ট আ্যসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক জামিল হোসেন চলন্ত বলেন, বুধবার (১৭ জুলাই) পবিত্র আশুরা এ উপলক্ষে সরকারি ছুটি থাকায় কাস্টমসের সকল বিভাগ বন্ধ রয়েছে। যার কারণে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে সকাল থেকে বন্দর দিয়ে দু’দেশের মাঝে পণ্য আমদানি রপ্তানি বাণিজ্য কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। 


    আশুরার ছুটি শেষে আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পুনরায় দু’দেশের মাঝে পণ্য আমদানি রপ্তানি কার্যক্রম শুরু হবে।


    হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন বলেন, পবিত্র আশুরা উপলক্ষে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি রপ্তানি বন্ধের পাশাপাশি বন্দরের ভেতরে ভারতীয় ট্রাক থেকে পণ্য খালাস, বাংলা ট্রাকে পণ্য ভর্তি, ডেলিভারী দেয়াসহ সকল কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। আগামীকাল সকাল থেকে পুনরায় বন্দরের ভেতরের সকল কার্যক্রম শুরু হবে।


    হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট ওসি শেখ আশরাফুল বলেন, ইমিগ্রেশন কার্যক্রমের কোনো বন্ধ নেই সব দিনই খোলা। যথারীতি অন্যান্য দিনের মতোই হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মাঝে পাসপোর্টে যাত্রী পারাপার কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

    এআই 

    ‘রাজাকার’ দাবি করা শিক্ষার্থীদের পাঠদান না করার ঘোষণা শিক্ষকের

    বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) গণিত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মশিউর রহমান ঘোষণা দিয়েছেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিজেদের ‘রাজাকার’ দাবি করা শিক্ষার্থীদের ক্লাসে পাঠদান করবেন না।

    মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক পোস্টে এমন ঘোষণা দেন মশিউর রহমান।

    তিনি লিখেন ‘যে শিক্ষার্থীরা নিজেকে রাজাকার দাবি করে স্লোগান দেয় সেই শিক্ষার্থীদের আমি ক্লাসে পাঠদান করবো না।

    শিক্ষকের এমন পোস্টে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। মুহূর্তেই নানা বিদ্রুপ মূলক বাক্য দিয়ে শেয়ারও হতে থাকে পোস্টটি।

    মিজানুর রহমান নামের এক শিক্ষার্থী মন্তব্য করেন, ‘চেতনা বিক্রি করা শিক্ষক নামে কলঙ্ক!! আপনার মতো শিক্ষকের কাছে ছাত্ররা কী শিখতে পারবে, সেটা জাতি বুঝে গেছে!’

    শেখ সালমান নামের এক শিক্ষার্থী মন্তব্য করেন, ‘আপনার কাছ থেকে কোনো শিক্ষার্থী শিক্ষাগ্রহণের কিছু নেই।

    আরসেল আজিম সিদ্দিক নামের একজন মন্তব্য করেন, ‘যাক আপনি জাতির শ্রেষ্ঠ শিক্ষক। আপনার থেকে জাতির বীর শিক্ষকদের অনেক কিছু শেখার আছে। গর্ব হচ্ছে আপনি যাদের জ্ঞানদান করেন তাদের জন্য।

    এফএস

    কোটা আন্দোলনকারী ১১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা

    চাঁপাইনবাবগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী ১১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

    এরমধ্যে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ আরও ১০০ জন অজ্ঞাতপরিচয়ের আসামি করে মামলাটি করেছে

    বুধবার (১৭ জুলাই) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মেহেদী হাসান।

    ওসি মো. মেহেদী হাসান জানান, দুটি ককটেল উদ্ধার করেছে পুলিশ। এরপরই ১২ জনের নাম উল্লেখ করে ও ১০০ জন অজ্ঞাতপরিচয়ের আসামি করে মামলা করা হয়েছে।

    এ ঘটনায় রাত ১০টা পর্যন্ত কাউকে আটক করা যায়নি।

    তবে কখন ও কোথায় থেকে ককটেলগুলো উদ্ধার করা হয়েছে তা নিশ্চিত করেননি ওসি মো. মেহেদী হাসান।

    এফএস

    বরগুনা জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আটক

    বরগুনা জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম রনিকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি। চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনে নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগে বুধবার (১৭ জুলাই) দিবাগত রাত ১টার দিকে পৌর শহরের পশ্চিম বরগুনা নামক এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। 

    গোয়েন্দা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন করছে। চলমান এ আন্দোলনে যোগ দিয়ে নেতাকর্মীদের নিয়ে নাশকতা করার পরিকল্পনা করায় ছাত্রদল নেতা রনিকে আটক করা হয়েছে। 

    বরগুনা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বশির আলম বলেন, নেতাকর্মীদের নিয়ে চলমান ছাত্র আন্দোলনে যোগ দিয়ে নাশকতা করার পরিকল্পনা করছিলেন ছাত্রদল নেতা রনি। এ কারণে তাকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে তাকে বরগুনা সদর থানায় রাখা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

    এইচএ

    বিদ্যুৎস্পৃষ্টে একসঙ্গে ভাই-বোনের মৃত্যু, হাসপাতালে মা

    পাবনায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে রাসেল হোসেন (১৩) ও ফারজানা ইয়াসমিন (২৩) নামের দুই ভাই-বোনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (১৭ জুলাই) সকাল ৮টার দিকে আটঘরিয়া উপজেলার একদন্ত ইউনিয়নের চাচকিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।


    মারা যাওয়া দুইজন ওই গ্রামের মো. হিরু ইসলামের ছেলে-মেয়ে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে তার স্ত্রীও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।


    স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার ১০ই মহররম উপলক্ষ্যে তাঁত শ্রমিকদের ছুটি থাকায় হিরু ইসলামের মেয়ে ফারজানা তাঁতের মেশিন চালাতে যায়। এ সময় ফারজানা বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আটকে পড়ে। তাকে উদ্ধার করতে ছোট ভাই এগিয়ে গেলে সেও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। এরপর দুজনকে উদ্ধার করতে তার মা এগিয়ে গেলে তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। ঘটনাস্থলে দুইজনের মৃত্যু হয়। আহতাবস্থায় নিহতদের মাকে উদ্ধার করে আটঘরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা গুরুতর বলে জানা গেছে।


    নিহতদের বাবা হিরু ইসলাম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আজকে ছুটির দিনে শ্রমিকরা কাজে আসেনি তাই মেয়ে তাঁত চালাতে গিয়েছিল। তাঁত মেশিনের তার ছিঁড়ে গিয়েছিল আমরা একটুও টের পাইনি। আমার সর্বনাশ হয়ে গেল। দুই কলিজার টুকরা আমাকে ছেড়ে চলে গেল। এখন আমি একদম এতিম হয়ে গেলাম।


    আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পাওয়ারলুম তাঁত চালাতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। মরদেহ উদ্ধার কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

    পাবনায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ভাই-বোনের মৃত্যু

    পাবনায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে রাসেল হোসেন (১৩) ও ফারজানা ইয়াসমিন (২৩) নামের দুই ভাই-বোনের মৃত্যু হয়েছে।

    বুধবার (১৭ জুলাই) সকাল ৮টার দিকে আটঘরিয়া উপজেলার একদন্ত ইউনিয়নের চাচকিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

    মারা যাওয়া দুইজন ওই গ্রামের মো. হিরু ইসলামের ছেলে-মেয়ে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে তার স্ত্রীও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

    স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার ১০ মহররম উপলক্ষ্যে তাঁত শ্রমিকদের ছুটি থাকায় হিরু ইসলামের মেয়ে ফারজানা তাঁতের মেশিন চালাতে যায়। এ সময় ফারজানা বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আটকে পড়ে। তাকে উদ্ধার করতে ছোট ভাই এগিয়ে গেলে সেও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। এরপর দুজনকে উদ্ধার করতে তার মা এগিয়ে গেলে তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। ঘটনাস্থলে দুইজনের মৃত্যু হয়। আহতাবস্থায় নিহতদের মাকে উদ্ধার করে আটঘরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা গুরুতর বলে জানা গেছে।

    নিহতদের বাবা হিরু ইসলাম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আজকে ছুটির দিনে শ্রমিকরা কাজে আসেনি তাই মেয়ে তাঁত চালাতে গিয়েছিল। তাঁত মেশিনের তার ছিঁড়ে গিয়েছিল আমরা একটুও টের পাইনি। আমার সর্বনাশ হয়ে গেল। দুই কলিজার টুকরা আমাকে ছেড়ে চলে গেল। এখন আমি একদম এতিম হয়ে গেলাম।

    আটঘরিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, পার্লুম তাঁত চালাতে গিয়ে প্রথমে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মেয়ে আটকে যায়। তাকে উদ্ধার করতে ছেলে গেলে সেও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। এরপর দুইজনকে উদ্ধার করতে মা এগিয়ে গেলে তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট  হন। ঘটনাস্থলেই ভাই-বোন মারা গেছে। আমরা এখানে আসছি। মরদেহ পরিবারকে বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

    এআই 
    চাঞ্চল্যকর ডাকাতির রহস্য উদঘাটন, চক্রের ৮ সদস্য গ্রেপ্তার

    পাবনার সাঁথিয়ায় ডাকাতি ঘটনার রহস্য উদঘাটন ও জড়িত ডাকাতচক্রের ৮ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় জব্দ করা হয় ডাকাতি হওয়া নগদ টাকাসহ বেশকিছু মালামাল।


    মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে পাবনা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।


    পুলিশ সুপার আ: আহাদ জানান, সাঁথিয়া উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামের আব্দুস সালাম প্রামানিকের ছেলে আতিকুর রহমান জুয়েল (৩৫) গত ৯ জুলাই রাতে ইউরো কাপ ফুটবল খেলা দেখে ঘুমিয়ে পড়েন। রাত তিনটার দিকে ১৪/১৫ জনের সশস্ত্র ডাকাত দল ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে জুয়েলকে ধারালো অস্ত্রাঘাতে আঘাত করে। পরে তাকে ও তার স্ত্রীকে বেঁধে রেখে ঘরে থাকা ৩ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ ১৫ লাক টাকা লুট করে পালিয়ে যায় বলে দাবি ভুক্তভোগী জুয়েলের। এ ঘটনায় পরদিন ১০ জুলাই সাঁথিয়ায় থানায় মামলা করেন জুয়েল।


    এরপর পাবনা জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ও সাঁথিয়া থানা পুলিশ যৌথ টিম তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ডাকাতদলের সন্ধানে মাঠে নামে। ঢাকা, গাজীপুর, মানিকগঞ্জ এবং পাবনা জেলার বিভিন্ন এলাকায় গত তিনদিন ধরে (১৩ থেকে ১৫ জুলাই) অভিযান চালিয়ে আন্তঃজেলা ডাকাতচক্রের মুল হোতা এবং পরিকল্পনাকারী শাকিল ওরফে যদু সহ ০৮ জন সদস্যকে গ্রেপ্তার করা করতে সক্ষম হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ডাকাতি হওয়া টাকার মধ্যে নগদ ৬৯ হাজার টাকা, ৩টি ককটেলসহ ডাকাতি করার সরঞ্জাম ও বেশকিছু মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়।


    গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, সাঁথিয়া উপজেলার গোপিনাথপুর গ্রামের শাকিল হোসেন ওরফে যদু (২৩), একই গ্রামের সাব্বির ওরফে দুখু (২২), কাজীপুর গ্রামের সিয়াম হোসেন (১৯), গোপীনাথপুর দক্ষিনপাড়া গ্রামের আরিফ প্রামানিক (২৮), একই গ্রামের সুজন মোল্লা (৩৫), সানোয়ার হোসেন ওরফে সানু (২৭), আফতাবনগর ছেচানিয়া গ্রামের আব্দুল বাতেন (২৮) ও সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার শেলাচাপড়ী গ্রামের আব্দুল মতিন (৪০)।


    পুলিশ সুপার আরো জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা পুলিশের কাছে ডাকাতির ঘটনায় স্বীকারোক্তি দিয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা দেশের বিভিন্ন জেলায় ডাকাতির সাথে জড়িত। তাদের নামে বিভিন্ন থানায় ডাকাতি, দস্যুতা সহ একাধিক মামলা রয়েছে।


    সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অর্থ  ও প্রশাসন) মাসুদ আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) জিয়াউর রহমান, সহকারী পুলিশ সুপার আরজুমা আকতার, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি এমরান মাহমুদ তুহিন, সাঁথিয়া থানার ওসি আনোয়ার হোসেন সহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

    এআই 
    সিলেটে পুলিশের সাথে ছাত্রদল সংঘর্ষ, আহত ১০

    সিলেটে পুলিশের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়েছে ছাত্রদল-যুবদলের নেতাকর্মীরা। সংঘর্ষে ৫ পুলিশসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

    বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুর ২টার দিকে বন্দরবাজার এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।


    এসময় ছাত্রদল-যুবদলের নেতাকর্মীরা পুলিশের দিকে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেন। পরে পুলিশ সাউন্ড গ্রেনেড, ফাঁকা গুলি ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।


    এর মধ্যে মহানগর ১৭নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক আহবায়ক এম সাগর হাসান গুরুতর আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।


    সংঘর্ষ চলাকালে বন্দরবাজার ও জিন্দাবাজার এলাকার ব‍্যবসায়ী এবং পথচারীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ব্যবসায়ীরা দ্রুত শাটার লাগিয়ে দোকানের ভেতরে অবস্থান করেন।


    প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর দেড়টার দিকে বন্দরবাজার এলাকার মহাজনপট্টি ও হকার্স মার্কেটের গলি থেকে ছাত্রদল-যুবদলের শতাধিক নেতাকর্মী কোটা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের প্রতি সংহতি জানিয়ে মিছিল বের করেন। মিছিল নিয়ে কামরান চত্বরে এসে পুলিশ মোতায়েন দেখে তাদের দিকে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেন নেতাকর্মীরা। 


    এসময় মহানগর পুলিশের সিআরটি টিম ঘটনাস্থলে এসে মিছিলকারীদের দিকে ফাঁকা গুলি, টিয়ার সেল ও সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করে। প্রায় ২০ মিনিট ব্যাপী সংঘর্ষে ৪ পুলিশ ও ৬ নেতাকর্মী আহত হন। এর মধ্যে মহানগর ১৭নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক আহবায়ক এম সাগর হাসান গুরুতর আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। একপর্যায়ে পুলিশ ধাওয়া দিয়ে মিছিলকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। বিকাল ৩টার দিকে পরিস্থিতি শান্ত হয়। তবে বন্দরবাজারে পুলিশ মোতায়েন করে রাখা হয়েছে।  


    সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (উত্তর) আজবাহার আলী শেখ (পিপিএম) বলেন, কিছু লোক নাশকতার চেষ্টা করলে আমরা প্রতিহত করেছি। এসময় ৪-৫ জন পুলিশ সদস্য সামান্য আহত হয়েছেন। তবে কাউকে আটক করা যায়নি।

    এআই 

    সুনামগঞ্জে শিক্ষার্থী, ছাত্রদল ও ছাত্রলীগের আলাদা কর্মসূচি

    কোটা সংস্কারের দাবি ও আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে সুনামগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

    বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুরের পৌর শহরের  হোসেন বখত চত্বরে প্রথমে শিক্ষার্থীরা একত্রিত হয়ে স্লোগান ধরেন, কোটা না মেধা? মেধা মেধা’ আমার ভাই মরল কেন? প্রশাসন জবাব চাই, আমার ভাইয়ের রক্ত বৃথা যেতে দেব না সহ বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দেন। 

    পরে সেখান থেকে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে পৌর শহরের  বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করতে চাইলে পুলিশ বাঁধা দেয়। পরে সেখানেই তারা তাদের কর্মসূচি আজকের মত সমাপ্ত করেন। 

    এদিকে, বৈষম্যমূলক কোটা ব্যাবস্থার যৌক্তিক সংস্কারের দাবিতে ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগের পরিকল্পিত হামলার প্রতিবাদে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রদল পৌর শহরের পুরাতন বাস-স্টেশন এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করতে চাইলে পুলিশ বাঁধা দেয়।

    এক পর্যায়ে পুলিশ ও ছাত্রদলের কর্মীদের মাঝে সেখানে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে৷ পরে ছাত্রদলের নেতারা জেলা বিএনপির অফিসের সামনেই  সমাবেশ করে। 

    এদিকে,শিক্ষার্থী ও জেলা ছাত্রদলের মিছিল শেষে দেশীয় অস্ত্র হাতে নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ। পৌর শহরের রমিজ বিপণীর জেলা আওয়ামী লীগের অফিসের সামনে থেকে এই বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়ে পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজে গিয়ে সমাপ্ত হয়।

    একেই সময়ে জেলার তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট সরকারী কলেজের শিক্ষার্থীরা বাদাঘাট বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করে এছাড়াও জেলার বিভিন্ন উপজেলায় বিক্ষোভ মিছিল করে। 

    এইচএ

    মাধবপুরে নিখোঁজ মহব্বত আলীর সন্ধান মেলেনি এক বছরেও

    এক বছরেও সন্ধান মেলেনি হবিগঞ্জের মাধবপুরের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সোর্স হিসাবে পরিচিত নিখোঁজ মহব্বত আলী। গত বছর ৩০ জুলাই রাতে নিখোঁজ হয় মহব্বত আলী। যার বয়স ৩৮ হবে। এখনো খোঁজ মিলেনি তার। তিনি উপজেলার চৌমুহনী ইউনিয়নের রামনগর গ্রামের রুসমত আলীর ছেলে।

    অনুসন্ধানে জানা গেছে, নিখোঁজ মহব্বত আলী কয়েক বছর আগে দুবাই থেকে ফেরত আসেন। এলাকায় প্রতিবাদী যুবক হিসাবে রয়েছে তার পরিচিতি। বিভিন্ন সময়ে তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সোর্স হিসাবে কাজ করেছেন।গত বছরের ১ আগস্ট নিখোঁজ মহব্বত আলীর বাবা রুসমত আলী বাদী হয়ে মাধবপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

    পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ১৮ জুলাই নিখোঁজ মহব্বত আলীর পিতা রুসমত আলী বাদী হয়ে হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (কগ-৬) আদালতে একই গ্রামের কুদরত আলীর ছেলে খোকন মিয়াকে (৩৮) প্রধান আসামি করে ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বার ৪৩৮/২৩ (মাধব)। আদালত মাধবপুর থানাকে মামলাটি নথিভুক্ত করার জন্যে আদেশ দেন। আদালতের আদেশে মাধবপুর থানায় মামলাটি নথিভুক্ত করা হয়। 

    মামলা সূত্রে জানা গেছে, নিখোঁজ মহব্বত আলী বিজিবির সোর্স হিসাবে বিভিন্ন সময়ে মাদক উদ্ধারে সহযোগিতা করাতে বিরোধ দেখা দেয় আসামিদের সঙ্গে। নিখোঁজ মামলার এজাহারে উল্লিখিত আসামিরা বিভিন্ন সময়ে মাদকসহ আটক হয়। প্রত্যেক আসামির বিরুদ্ধে মাদক মামলা রয়েছে ।

    বিজিবির সোর্স হিসাবে নিখোঁজ মহব্বত আলী আসামিদের মাদকের চালান আটকে সহযোগিতার জন্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এই বিরোধকে কেন্দ্র করে আমার ছেলে নিখোঁজ হয়। আমার দুইটা নাতি মহব্বত আলীর সন্তানরা তাদের বাবাকে ফিরে পাওয়ার অপেক্ষায়। আমি আমার ছেলে ফেরত চাই। আমার ছেলে ফেরত পাওয়ার আশায় আমি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন দপ্তরে ধরনা দিচ্ছি।

    মামলার তদন্তকারী সংস্থা পরিবর্তন চেয়ে গত ১০ জুন হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার বরাবর আবেদন করেন রুসমত আলী। মামলাটি রুজু করার পর থেকে তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসাবে কাশিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ফজলুল হক, পুলিশ পরিদর্শক গোলাম মোস্তফা, পুলিশ পরিদর্শক আ. রহিম তদন্তকারী কর্মকর্তা বদলি হয়ে চলে গেলে নবাগত পুলিশ পরিদর্শক নুর মোহাম্মদ মামলাটি তদন্তকারী কর্মকর্তা নিযুক্ত হন।

    নিখোঁজ মহব্বত আলী পরিবারের দাবি, থানা পুলিশের নিকট মামলা থাকলে ভিকটিম উদ্ধার হবে না। তাই তদন্তকারী সংস্থা পরিবর্তন করে সিআইডি অথবা পিবিআইকে দায়িত্ব দেওয়ার দাবি জানান তারা।

    মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কাসিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নুর মোহাম্মদ জানান, আমি মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা নিযুক্ত হওয়ার পর থেকে ভিকটিম উদ্ধারের চেষ্টা করছি। এই মামলার এজাহারে উল্লিখিত আসামিরা আদালতের মাধ্যমে জামিনে মুক্ত রয়েছেন।

    বাদী পক্ষ মামলাটি তদন্তকারী সংস্থা পরিবর্তন করার জন্যে পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত আবেদন করেছে বলে জানতে পেরেছি। এখনও আমি তদন্তকারী হিসাবে দায়িত্বে আছি, ভিকটিম উদ্ধারের চেষ্টা করছি।এ ব্যাপারে মাধবপুর থানার কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদ মাসুদ জানান, আমি এই থানায় নতুন যোগদান করেছি। আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করছি নিখোঁজ মহব্বত আলীকে বের করতে।

    এইচএ

    সিলেটে লিঙ্গ কেটে বানানো হচ্ছে হিজড়া

    সিলেটে লিঙ্গ কেটে হিজড়া বানানো চক্রের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়, ছিনতাই রাহাজানি, নেশাদ্রব্য সেবন ও বিক্রিসহ নানা অভিযোগে সোমবার (১৫ জুলাই) সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দিয়েছেন সিলেটের অন্যতম নেতৃস্থানীয় হিজড়া, বর্তমানে দক্ষিণ সুরমার খোজারখলা এলাকার বাসিন্দা ভান্ডারি রানা ভুঁইয়া (৫২)। তিনি ১৩ জনকে অভিযুক্ত করেছেন। 

    তারা হলেন, দক্ষিণ সুরমার কদমতলী বালুর মাঠ এলাকার কালি ওরফে আব্দুল্লাহ (৪০), মোগলাবাজার থানার গোটাটিকর এলাকার লিমা ওরফে লিমন (৩০), শিববাড়ি এলাকার ইমা (২৫), সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারের বাজিতপুর গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে আদুরী ওরফে আবেদ আলী (২৪), দক্ষিণ সুরমার সাধুরবাজারের আলেয়া (৬০), হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের গুনই গ্রামের সমশের আলীর ছেলে লিপি ওরফে অলিউর রহমান (৩৫), দক্ষিণ সুরমার ভার্থখলার পাখি (৪৫), জকিগঞ্জের আটগ্রামের জমিলা (৩৮), কোম্পানীগঞ্জের টুকেরবাজার এলাকার শান্তা ওরফে লিটন (২৮), মোগলাবাজারের শিববাড়ি এলাকার চাঁদনী (৩০), একই এলাকার সানজিদা (৩২), দক্ষিণ সুরমার সাধুরবাজারের চাঁদনি (২৮), গোয়াইনঘাটের জাফলং এলাকার দিলারা বেগমসহ (৩০) অজ্ঞাতনামা আরও ৫/৬ জন।

    অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার (১২ জুলাই) কালি, লিমা, ইমা হিজড়াসহ কয়েকজন হিজড়া আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে সুবিদবাজার এলাকায় রানা ভুঁইয়ার উপর হামলা চালায়। এতে তিনি কিছুটা আহত হলেও পালিয়ে নিজেকে রক্ষা করেন।

    পরদিন শনিবার (১৩ জুলাই) রাত ১১টার দিকে নগরীর মেন্দিবাগ এলাকার গার্ডেন টাওয়ারের সামনা থেকে তার গ্রুপের রত্না হিজড়াকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে কালি লিমা ইমা হিজড়ার গ্রুপের কয়েকজন হিজড়া মিলে অটোরিক্সায় অপহরণ করে নিয়ে যায়। তাকে কদমতলি বালুর মাঠে একটি নির্জন কক্ষে আটকে রাখে। 

    পরে অপহরণকারীরা ০১৭২৩৭৩৬৬৯৮ নম্বর থেকে রানার ব্যবহৃত মোবাইলে কল দিয়ে ১ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। অন্যতায় তাকে হত্যার হুমকিও দেয়া হয়। রানা টাকা দিতে অস্বীকার করেন অপহরণকারীরা রত্নাকে মারধোর করে। এতে তিনি মারাত্মক আহত হন। তারা রত্নার গলার ১ ভরি স্বর্ণের চেইনসহ প্রায় দেড়লাখ টাকার স্বর্ণালংকার ও মোবাইল সেট কেড়ে নেয়। অপহরণের বিষয়টি কোতোয়ালি থানা পুলিশকে অবগত করলে তারা কদমতলী বালুর মাঠ থেকে তাকে উদ্ধার করে।

    অভিযোগে তিনি আরও উল্লেখ করেন, অভিযুক্তরা ছিনতাই রাহাজানি নেশাদ্রব্য সেবন ও বিক্রি, লিঙ্গ কর্তন করে হিজড়া তৈরিসহ আরও নানা অপকর্মে লিপ্ত। এরা লিঙ্ক কর্তনকারী। তারা লিঙ্ক কর্তন করে নিজেদের হিজড়া পরিচয় দিয়ে অসামাজিকতা করে আসছে। এ অবস্থায় তিনি অপহরণকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনী পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন।

    অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানার ওসি (ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) মঈন উদ্দিন শিপন বলেছেন, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

    উল্ল্যেখ্য, সিলেটে হিজড়াদের অভ্যন্তরিন কোন্দল মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। আধিপত্য বিস্তার নিয়েই এই কোন্দল। সম্প্রতি নেতৃস্থানীয় এক হিজড়ার উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে এবং অপর একজনকে প্রতিপক্ষ অপহরণ করেছে। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করলেও অপহরণকারীদের মারধরে তিনি মারাত্মক আহত হয়েছেন। তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।

    সিলেটের হিজড়াদের অভ্যন্তরীন কোন্দল অনেক পুরানো। চাঁদাবাজীসহ বিভিন্ন স্বার্থে তারা আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই কোন্দল। কখনো কখনো তা সংঘর্ষেও রূপ নেয়। হয় থানা পুলিশ। কিন্তু এতেও হচ্ছেন কোন সমাধাণ।

    এমআর

    সুনামগঞ্জে ৮৭ বস্তা ভারতীয় চিনিসহ পিতা-পুত্র গ্রেফতার

    সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে ৮৭ বস্তা ভারতীয় চিনিসহ ২ চোরাকারবারিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) ভোর রাতে আটকৃত আসামিদের বসত ঘরে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। 


    গ্রেফতারকৃতরা হলেন- উপজেলার বালিছড়া গ্রামের মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে মোঃ রফিকুল ইসলাম (৪০) এবং রফিকুল ইসলামের ছেলে আল আমিন (১৯)। উদ্ধারকৃত চিনির আনুমানিক বাজার মূল্য ৪ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা। 


    দোয়ারা বাজার পুলিশ জানায়, থানার এসআই মো. এনামুল হক মিঠু, এসআই মো. ফরিদ মিয়া, এএসআই হোসাইন মোহাম্মদ ফরহাদ সঙ্গীয় ফোর্সের সহায়তায় এ সময় তাদের বসত ঘরে তল্লাশি করে ৩ হাজার ৩৫০ কেজি (৪৭ বস্তা) ভারতীয় চিনি উদ্ধার করা হয়। পরে আসামিদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বোগলাবাজার ইউনিয়নের বালিছড়া দক্ষিণ ক্যাম্পেরঘাট গ্রামের আব্দুল আলীর বসত ঘরে তল্লাশি করে আরও ২ হাজার কেজি (৪০ বস্তা) ভারতীয় চিনি উদ্ধার করা হয়। 


    গ্রেফতারকৃত আসামি জব্দকৃত ভারতীয় চিনি আমদানি সংক্রান্ত কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারে নাই। আসামিরা চোরাচালানের মাধ্যমে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে বাংলাদেশে আনা ভারতীয় চিনি বিক্রির উদ্দেশ্যে নিজেদের কাছে রাখায় হয়েছিল। তাদের বিরুদ্ধে দোয়ারাবাজার থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামিদ্বয়কে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

    এআই 

    অনলাইন ভোট

    আন্তর্জাতিক

    সব দেখুন
    বানের পানিতে ভাসছে হরিণ-গন্ডার
    জঙ্গলের বিস্তীর্ণ এলাকা ডুবেছে ব্রহ্মপুত্রের পানিতে আর বানের সেই পানিতে ভাসছে বন্যপ্রাণীরা। যেখানে গন্ডার, বুনো মহিষ, বিভিন্ন প্রজাতির হরিণসহ অন্তত ২০০ বন্যপ্রাণীর মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে।  ভারতের আসামের কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যানের ‘জীবনচক্র’ এখন হুমকির মুখে। প্রতি বারই বন্যায় ওলটপালট হয়ে যায় এ জাতীয় উদ্যানের বন্যপ্রাণীদের জীবন। এবার বর্ষাতেও তাই হলো। সরকারি সূত্রের খবরে বলা হয়, প্রাণ হারানো বন্যপ্রাণীদের মধ্যে অন্তত ১০টি গন্ডার রয়েছে।এদিকে কাজিরাঙার বড় অংশই এখন পানির নিচে। ডুবেছে ৩৭ নম্বর জাতীয় সড়কের একাংশও। প্রতিবারই এমন পরিস্থিতিতে জাতীয় উদ্যানের বন্যাপ্লাবিত অঞ্চল থেকে কার্বি পাহাড় পাড়ি দেয় বন্যপ্রাণীরা। তাদের অনেকে জাতীয় সড়কে গাড়ির ধাক্কায় প্রাণ হারায়। শুকনো ডাঙার খোঁজে গভীর জঙ্গল থেকে বেরিয়ে আসা বন্যপ্রাণীদের উপর ‘নজর’ থাকে শিকারিদেরও। ফলে বনকর্মীদের চালাতে হয় বাড়তি নজরদারির কাজ। বিভিন্ন বন্যপ্রাণপ্রেমী সংস্থার স্বেচ্ছাসেবকেরাও তাদের সহায়তা করতে হাজির হয়েছেন কাজিরাঙায়।কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যান ও প্রকল্প কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, গত দুদিনে বন্যা পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হয়েছে। তবে বনকর্মীদের ৪৬টি ক্যাম্প এখনও পানির নিচে। ১৩০০ বর্গ কিলোমিটারের কাজিরাঙা বিশ্বে একশৃঙ্গ গন্ডারের সবচেয়ে বড় আবাসভূমি। সংখ্যায় তারা আড়াই হাজারেরও বেশি। সেই সঙ্গে ১৩৫টি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারও রয়েছে এই অরণ্যে। বন্যায় তাদের অনেকেই ‘ঘরছাড়া’। তবে বন্যার পানি নামলেই শুরু হবে জীবনসংগ্রামের নতুন অধ্যায়। নতুন ঘাসে ঢাকা জঙ্গলে ফের ঘর বাধা শুরু হবে। এবি 
    ভারতের উত্তরপ্রদেশে বন্যায় নিহত ১০
    প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে গঙ্গা ও তার সঙ্গে সম্পর্কিত নদ-নদীগুলোর পানি বৃদ্ধি পেয়ে ভারতের বৃহত্তম রাজ্য উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন জেলায় ব্যাপক বন্যা দেখা দিয়েছে। এতে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ১০ জন। খবর এনডিটিভিররাজ্য সরকারের তথ্য অনুযায়ী, বন্যার পানিতে ডুবে গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যের মোরাদাবাদ জেলায় ৩ জন, গোরক্ষপুরে ৩ জন, এবং পিলভিট, ললিতপুর, গাজিপুর এবং ইতাহ জেলায় একজন করে মানুষের মৃত্যু হয়েছে।জানা গেছে, রাজ্যের লাখিমপুর খেরি, কুশিনগর, শাহজাহানপুর, বারাবাঁকি, সিদ্ধার্থনগর, বাল্লিয়া, গোরক্ষপুর, উন্নাও, দেউরিয়াসহ মোট ২৩ জেলার ৬০১টি গ্রামে বন্যার কবলে পড়েছেন দু’লাখেরও বেশি মানুষ। বন্যার্তদের জন্য সরকারি উদ্যোগে রাজ্যজুড়ে ১,১০১টি আশ্রয় শিবির গড়ে তোলা হয়েছে।উত্তরপ্রদেশ রাজ্য সরকারের ত্রাণ কমিশনার জিএস নবীন কুমার জানিয়েছেন, বন্যাবিধ্বস্ত গ্রামগুলোতে ইতোমধ্যে ২,১৩৫টি মেডিক্যাল দল পাঠানো হয়েছে।পানিবন্দি লোকজনকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে জাতীয় এবং রাজ্য বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর ১৪টি দল। ২,৮৩৮টি নৌকায় চলছে উদ্ধারকাজ।আরইউ
    নির্বাচন থেকে সরে যেতে পারেন বাইডেন
    করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। গতকাল বুধবার নাভাদা অঙ্গরাজ্যের লাস ভেগাসে নির্বাচনি প্রচারে গিয়ে তার শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বাইডেন করোনার মৃদু উপসর্গে ভুগছেন।হোয়াইট হাউসের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের প্রতিবেদনেও একই কথা বলা হয়েছে। করোনা শনাক্ত হওয়ার পর মার্কিন প্রেসিডেন্টের ব্যবহৃত উড়োজাহাজ এয়ার ফোর্স ওয়ানে করে ডেলাওয়ার অঙ্গরাজ্যের উদ্দেশে রওনা দেন বাইডেন। সেখানে নিজ বাড়িতে সঙ্গনিরোধে থাকবেন তিনি। নাভাদা থেকে উড়োজাহাজে ওঠার আগে গাড়ি থেকে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি ভালো বোধ করছি।’এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানিয়েছিলেন, যদি শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে, তাহলে আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ব্যাপারটি পুনর্বিবেচনা করবেন তিনি। মঙ্গলবার এক সাক্ষাৎকারে এ তথ্য জানিয়েছেন বাইডেন। মার্কিন কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি সহানুভূতিশীল সংবাদমাধ্যম বেট-কে মঙ্গলবার সাক্ষাৎকার দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেখানে তিনি বলেছেন, “যদি আমার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে এবং সেই সাথে চিকিৎসকরা যদি বলেন— আপনার এই সমস্যা আছে, ওই সমস্যা আছে….তাহলে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াব।”প্রসঙ্গত, এই প্রথম নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট। আর এই সাক্ষাৎকার প্রদানের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তার প্রেস সেক্রেটারি ক্যারিন জিন পিয়েরে হোয়াইট হাউসে এক ব্রিফিংয়ে জানান, বাইডেন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং এই মুহূর্তে মৃদু উপসর্গে ভুগছেন। আগামী নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হবে যুক্তরাষ্ট্রে। সেই নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট পার্টির প্রার্থী ৮১ বছর বয়সী জো বাইডেনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক প্রেসিডেন্ট ৭৮ বছর বয়সী ডোনাল্ড ট্রাম্প, যিনি রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছেন।এবি 
    কোটা আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থীদের বিষয়ে যা বলল যুক্তরাষ্ট্র
    বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী ও শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ বিক্ষোভের বিরুদ্ধে যে কোনো সহিংসতার আবারও নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। একই সঙ্গে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের অধিকার সমুন্নত রাখার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার।  বুধবার (১৭ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে যুক্তরাষ্ট্র এই আহ্বান জানিয়েছে।    ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিক মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলারকে প্রশ্ন করেন- বাংলাদেশে ছাত্রবিক্ষোভের ওপর দমনপীড়ন চলছে। শাসক গোষ্ঠী এ পর্যন্ত কমপক্ষে ছয়জনকে হত্যা করেছে। বিশেষ করে  শাসক দলের ছাত্র বিষয়ক সংগঠন ছাত্রলীগ ছাত্রদের বিরুদ্ধে, বিশেষত নারী ও মেয়েদের বিরুদ্ধে নৃশংসতা দেখিয়েছে। তারা গত ১৫ বছর ধরে বার বার এটা করে যাচ্ছে। আপনারা কি ছাত্রলীগকে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন (টেরোরিস্ট অর্গানাইজেশন) হিসেবে বিবেচনা করবেন? জবাবে ম্যাথিউ মিলার বলেন, সুনির্দিষ্ট করে এটা নিয়ে আমি কিছু  বলতে চাইছি না। কিন্তু আমি এটা বলব যে, ঢাকায় শুরু হওয়া ছাত্রদের প্রতিবাদ বিক্ষোভে সহিংসতার বিষয় আমরা অব্যাহতভাবে মনিটরিং করছি। একইসঙ্গে ঢাকা এবং ওয়াশিংটন – দুই স্থান থেকেই বাংলাদেশে কোটা আন্দোলনে নজর রাখার কথা জানিয়েছে দেশটি।একই সঙ্গে আহ্বান জানাচ্ছি যে, প্রতিবাদ হতে হবে শান্তিপূর্ণ। শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ বিক্ষোভের বিরুদ্ধে যে কোনো রকম সহিংসতার অব্যাহতভাবে নিন্দা জানাই আমরা। সাংবাদিক আরও প্রশ্ন করেন- পুলিশের সামনে অনুসারী ছাত্রদের উদ্ধার করতে, রক্ষা করতে বুক পেতে দিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি সাহিত্যের যুবক ছাত্র আবু সাঈদ। কিন্তু তাকে গুলি করতে দ্বিধা করেনি শাসকগোষ্ঠীর বাহিনী। এমনকি তার বন্ধুদের উদ্ধারের চেষ্টা যখন করছিলেন তিনি তখন সাঈদ বুঝতেও পারেননি তাকে গুলি করা হয়েছে। লজ্জজনক নির্বাচনের আগে যেমনটা করেছেন ঠিক সেইভাবে, এইভাবে ক্ষমতা রক্ষা করছেন (প্রধানমন্ত্রী) শেখ হাসিনা। তখন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেন বলেছিলেন, বাংলাদেশের নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছে সারাবিশ্ব। এ জন্য প্রয়োজনীয় সব রকম পদক্ষেপ নেবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু যখন জনগণের অধিকার কেড়ে নেওয়া হলো, তখন আকস্মিকভাবে আপনারা নীরব হয়ে গেলেন। এটা কেন?  জবাবে ম্যাথিউ মিলার বলেন, সবার আগে আমি বলব এ অভিযোগ সঠিক নয়। এ সপ্তাহে আমাকে অনেকবার আপনি বলতে শুনেছেন, সোমবারও বলেছি, আমার মনে হয় মঙ্গলবারও বলেছি, আজ বলছি- শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের বিরুদ্ধে যে কোনো সহিংসতার নিন্দা জানাই আমরা। আমাদের দূতাবাস এবং ওয়াশিংটনের কর্মকর্তারা এই প্রতিবাদ বিক্ষোভ মনিটরিং করছেন। তাদের মাধ্যমে আমরা খুব নিবিড়ভাবে এই বিষয় পর্যবেক্ষণ করছি। মানুষ মারা যাওয়ার রিপোর্ট দেখেছি। বিক্ষোভে মানুষ মারা হয়েছে। আমরা আরও একবার সরকারকে আহ্বান জানাব শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ বিক্ষোভে মানুষের অধিকার সমুন্নত রাখতে। অন্য এক সাংবাদিক মিলারের কাছে জানতে চান- সোমবার থেকে এই পোডিয়ামে দাঁড়িয়ে আপনি বাংলাদেশে যা হচ্ছে তা নিশ্চিত করে নিন্দা জানিয়েছেন। এরই মধ্যে ৬ জন ছাত্র নিহত হয়েছেন। যখন আমরা এখানে কথা বলছি, তখন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির উদ্দেশে টেলিভিশনে বক্তব্য দিয়েছেন। তাতে তিনি ঘোষণা দিয়েছেন কিভাবে এসব ছাত্র নিহত হলেন তা তদন্তে স্বাধীন বিচার বিভাগীয় কমিটি গঠন করা হবে। তিনি আরও ঘোষণা দিয়েছেন, প্রতিটি পরিবারের দেখাশোনা করবে সরকার এবং তাদেরকে রক্ষা করতে প্রয়োজনীয় আয়ের ব্যবস্থা করবে। কিন্তু আমার উদ্বেগ হলো- বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে সুযোগ পাওয়ার কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের বিষয়টি সাব জুডিশিয়ারি বিষয় এখন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিরোধী বিএনপির একজন সিনিয়র নেতার অডিও ক্লিপ ভাইরাল হযেছে। তাতে দেখা যায়, শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক পরিবেশকে বিঘ্নিত করতে সহিংস ছাত্র আন্দোলন করছেন তারা। এতে যুক্ত হয়েছে শিবির, জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ। এ বিষয়ে আপনার মন্তব্য কি? এই সময় সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে ম্যাথিউ মিলার বলেন, প্রথম যেটা বলব, তাহলো ছড়িয়ে পড়া যে অডিও ক্লিপের কথা আপনি বলছেন, তা আমি দেখিনি। তাই এটা নিয়ে কোনোভাবেই আমি মন্তব্য করব না। তাছাড়া এ বিষয়ে আমি ১০ মিনিট বা ১৫ মিনিট আগে যে উত্তর দিয়েছি, তার চেয়ে বাড়তি কোনো আপডেট নেই আমার কাছে।  এবি 
    ২৪ ঘণ্টায় ইসরাইলি হামালায় আরও ৮১ ফিলিস্তিনি নিহত
    ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় হামলা অব্যাহত রেখেছে দখলদার ইসরাইলি বাহিনী। গত ২৪ ঘণ্টায় ইসরাইলি হামালায় আরও ৮১ ফিলিস্তিনি নিহত এবং ১৮৯ জন আহত হয়েছেন। বুধবার গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ নিয়ে গত ৭ অক্টবরের পর থেকে এ পর্যন্ত গাজায় ইসরাইলি হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৮ হাজার ৭৯৪ জনে এবং আহত বেড়ে ৮৯ হাজার ৩৬৪ জনে।গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরাইলে ঢুকে গাজার শাসক দল হামাসের প্রাণঘাতী হামলার জবাবে উপত্যকায় প্রায় বিরামহীন হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরাইল। হামাসের ওই হামলায় নিহত হয় এক হাজার ২০০ জন ইসরাইলি। ওইদিন আড়াই শতাধিক ইসরাইলিকে বন্দি করে গাজায় নিয়ে আসে সশস্ত্র ফিলিস্তিনিরা।ওই হামলার প্রতিক্রিয়ায় গাজায় নির্বিচার হামলা শুরু করে দখলদার ইসরাইল। তাদের হামলা থেকে রেহাই পায়নি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, মসজিদ কিংবা গির্জার মতো বেসামরিক স্থাপনা।হামলায় বিভিন্ন ভবনের ধ্বংসস্তূপে চাপা পড়া অনেকেই নিখোঁজ রয়েছেন। তাদের মৃত্যু হয়েছে বলেই ধারণা করা হচ্ছে।ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের ধারণা, গাজা উপত্যকাজুড়ে ধ্বংস হওয়া বাড়ির ধ্বংসস্তূপের নিচে এখনও ১০ হাজারেরও বেশি লোক নিখোঁজ রয়েছে।অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির দাবিতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে ৭ অক্টোবর থেকে গাজায় তার ক্রমাগত নৃশংস আক্রমণের মধ্যে ইসরাইল আন্তর্জাতিক নিন্দার সম্মুখীন।আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে গণহত্যার দায়ে অভিযুক্ত ইসরাইলকে সর্বশেষ রায়েও অবিলম্বে দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর রাফাহতে তার সামরিক অভিযান বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যেখানে গত ৬ মে হামলা চালানোর আগে ১০ লাখেরও বেশি ফিলিস্তিনি প্রাণ বাঁচাতে থেকে আশ্রয় নিয়েছিল।তা সত্ত্বেও নিরাপদ অঞ্চল ঘোষিত এসব অঞ্চলেও এখন একের পর এক হামলায় গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরাইল। ইসরাইলি আগ্রাসনে ৯ মাসেরও বেশি সময় ধরে গাজার বিস্তীর্ণ অঞ্চল খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি এবং ওষুধের অবরোধের মধ্যে ধ্বংসস্তূপে ও মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে।এসএফ
    ব্যাংককের একটি হোটেলে মিলল ৬ পর্যটকের মরদেহ
    থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের গ্র্যান্ড হায়াত ইরায়ান হোটেলে ছয় পর্যটকের মরদেহ পেয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) থাই পুলিশের একজন কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, নিহতরা সবাই ভিয়েতনামের নাগরিক। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।পুলিশ জানায়, প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, বিষক্রিয়ায় মৃত্যু হয়েছে তাদের। এদিকে যারা মারা গেছেন, তারা সবাই জন্মসূত্রে ভিয়েতনামের। যার ভিতর চারজন ভিয়েতনামের নাগরিক, দুজন ভিয়েতনামের বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক। পাঁচটি মরদেহ ঘরের ভেতর পাওয়া যায়। একটি ছিল ঘরের বাইরে। পুলিশ জানায়, ফরেনসিক পরীক্ষার প্রাথমিক প্রতিবেদন বলছে, ধস্তাধস্তির কোনো ঘটনা ঘটেনি। তবে প্রত্যেকের দেহে বিষ পাওয়া গেছে। পুলিশ আরও জানায়, হোটেলের কর্মীদের কাছ থেকে ফোনকল পাওয়ার পরেই তারা ঘটনাস্থলে যান এবং মরদেহ পান।   যারা মারা গেছেন, সবারই মঙ্গলবার চেক আউট করার কথা ছিল, এবং তাদের ব্যাগ গোছানো ছিল। ঘরে খাবারও মিলেছে। রুম সার্ভিসে ফোন করে ওই খাবার আনানো হয়েছিল বলে জানা গেছে। কিন্তু খাবার খাওয়া হয়নি।পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, এটি আত্মহত্যার ঘটনা নয়। বিষ দিয়ে ছয়জনকে হত্যা করা হয়েছে। ওই দলের সঙ্গে আরও এক সদস্য যুক্ত বলে মনে করা হচ্ছে। পুলিশ তার খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে।মঙ্গলবার বিকেলে ঘটনাস্থলে যান থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।  গ্র্যান্ড হায়াত থাইল্যান্ডের একটি বিখ্যাত হোটেল। বহু পর্যটক এই হোটেলে ওঠেন। এ ঘটনার প্রভাব যাতে পর্যটনে না পড়ে, তার দিকে কড়া দৃষ্টি রেখেছে থাই সরকার। প্রধানমন্ত্রী সব এজেন্সিকে দ্রুত তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। দুই কোটি ৮০ লাখ বিদেশি পর্যটক গত বছর থাইল্যান্ডে বেড়াতে যান। সব মিলিয়ে তারা কয়েক ট্রিলিয়ন বাট (থাই মুদ্রা) খরচ করেন।  পর্যটন থাইল্যান্ডের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শিল্প। এ ঘটনা সে ব্যবসায় যেন প্রভাব না ফেলে, তা নিয়ে সতর্ক থাই সরকার।এবি 
    আবারও ট্রাম্পকে খুনের নিল নক্সা! অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার যুবক
    সময়টা বেশ খারাপ যাচ্ছে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট এবং আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের। সম্প্রতি তার কানের পাশ ঘেঁষে চলে গিয়েছে মৃত্যু। তবে বিপদের শঙ্কা যে এখনও কাটেনি তা স্পষ্ট। এবার ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টির সমাবেশে ঢোকার আগেই একে-৪৭ রাইফেল-সহ গ্রেপ্তার করা হল এক আততায়ীকে। কানে ব্যান্ডেজ নিয়ে এই সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন খোদ ডোনাল্ড ট্রাম্প। পাশাপাশি ওই কর্মসূচিতে ছুরি নিয়ে প্রবেশের চেষ্টা করে আরও এক যুবক। তাকে গুলি করে হত্যা করেছে পুলিশ। সব মিলিয়ে নতুন করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। আমেরিকার মিলওয়াকিতে রিপাবলিকান পার্টির ন্যাশনাল কনভেনশনের আয়োজন করা হয়েছিল। যেখানে উপস্থিত ছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প-দহ দলের সব শীর্ষ নেতৃত্ব। সদ্য হামলার মুখে পড়া ডোনাল্ড ট্রাম্পের জন্য নিরাপত্তার ব্যাপক কড়াকড়ি ছিল ওই অনুষ্ঠানকে ঘিরে। সেখানেই মুখে স্কি মাস্ক পরে যোগ দিতে আসে এক যুবক। তাকে দেখেই সন্দেহ হয় পুলিশের। কনভেনশন সেন্টারে তাকে প্রবেশ করতে বাধা দেয় পুলিশ। তার সঙ্গে থাকা ব্যাগে তল্লাশি চালাতেই মেলে একে৪৭ রাইফেল-সহ অসংখ্য গুলি। সঙ্গে সঙ্গে তাকে গ্রেপ্তার করে মার্কিন পুলিশ।পাশাপাশি মিলওয়াকিতে রিপাবলিকান পার্টির ন্যাশনাল কনভেনশনের কাছে আরও এক সন্দেহভাজনকে গুলি করে হত্যা করেছে পুলিশ। অনুমান করা হচ্ছে ট্রাম্পের উপর হামলার উদ্দেশ্য নিয়েই সেখানে উপস্থিত হয়েছিল যুবক। ধারালো ছুরি নিয়ে কনভেনশন চত্ত্বরে ঘোরাঘুরি করছিল ২১ বছরের ওই যুবক। পুলিশ বার বার তাকে ছুরি ফেলে দিতে বলে। যদিও পুলিশের নির্দেশ অগ্রাহ্য করে সে। এর পর তাকে গুলি করে পুলিশ। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় যুবকের। এই ঘটনার একটি ভিডিও পুলিশের তরফে প্রকাশ করা হয়েছে।উল্লেখ্য, গত শনিবার পেনসিলভ্যানিয়ার বাটলারে নির্বাচনী প্রচার ছিল রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্পের। সেখানেই তার উপর হামলা চলে। কান ঘেঁষে বেরিয়ে যায় আততায়ীর গুলি। কপালজোরে রক্ষা পান সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট। বন্দুকবাজের গুলিতে মৃত্যু হয় এক ব্যক্তির। গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন আরও দুজন। পরে অবশ্য সিক্রেট সার্ভিসের পালটা আক্রমণে নিহত হয় বন্দুকবাজ। এবি
    ওমান উপকূলে ট্যাংকার ডুবি, ১৬ নাবিক নিখোঁজ
    ওমানে মাঝ সমুদ্রে উলটে গেল তেলের ট্যাঙ্কার ভর্তি জাহাজ। নিখোঁজ ১৩ ভারতীয়-সহ মোট ১৬ নাবিক। উদ্ধারে অভিযান শুরু হয়েছে; তবে কারও খোঁজ মেলেনি। বুধবার (১৭ জুলাই) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। প্রতিবেদনে বলা হয়, সোমবার (১৫ জুলাই) কমোরসের-পতাকাবাহী একটি তেল ট্যাংকার ওমানের বন্দরনগরী দুকমের কাছে রাস মাদরাকাহ থেকে ২৫ নটিক্যাল মাইল দক্ষিণ-পূর্বে ডুবে যায়। এডেনের ইয়েমেনি বন্দরের দিকে যাওয়ার সময় ট্যাংকারটি এ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে থাকা ১৩ ভারতীয়সহ ১৬ নাবিক নিখোঁজ হয়েছেন বলে জানিয়েছে ওমানের মেরিটাইম সিকিউরিটি সেন্টার (এমএসসি)। বাকি তিনজন ছিলেন শ্রীলঙ্কান। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে (সাবেক টুইটার) এক পোস্টে মেরিটাইম সিকিউরিটি সেন্টার (এমএসসি) জানায়, কমোরসের-পতাকাবাহী এই তেল ট্যাংকারটি বন্দরনগরী ডুকমের কাছে রাস মাদরাকাহ থেকে ২৫ নটিক্যাল মাইল দক্ষিণ-পূর্বে ডুবে গেছে। এরই মধ্যে নিখোঁজ নাবিকদের উদ্ধারে অভিযান শুরু হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কারও খোঁজ মেলেনি। তবে কীভাবে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে তা স্পষ্ট নয়। এমনকি, সমুদ্রে তেল পড়েছে কি না তাও জানা যায়নি। শিপিং ওয়েবসাইট মেরিনট্র্যাফিক.কম-এর মতে, ডুবে যাওয়া তেল ট্যাংকারটি ইয়েমেনের বন্দর শহর এডেনের দিকে যাচ্ছিল। ১১৭ মিটার দীর্ঘ এ তেল ট্যাংকারটি ২০০৭ সালে নির্মিত।এবি 
    কাশ্মীরে জঙ্গি হামলায় চার ভারতীয় সেনা নিহত
    সাম্প্রতিককালে ভূস্বর্গে একাধিক সেনা অভিযানে, নাশকতার ঘটনায় স্বাধীনতাকামীদের যেমন মৃত্যু হয়েছে, তেমনই প্রাণ গিয়েছে দখলদার সেনাকর্মীদের। জানা গেছে, ভারতের জম্মু-কাশ্মীরে জঙ্গি হামলায় ভারতীয় সেনার চার সদস্য নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে একজন মেজর পদমর্যাদার কর্মকর্তাও রয়েছেন। ভারতীয় সেনাবাহিনী জানিয়েছে,  জম্মু-কাশ্মীরের ডোডা জেলায় স্থানীয় সময় গতকাল (১৫ জুলাই) রাত প্রায় ৯টার দিকে সন্ত্রাসীদের সঙ্গে ভারী গোলাগুলিতে চার ভারতীয় সেনা নিহত হওয়ার পাশাপাশি একজন পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হয়েছেন। সুনির্দিষ্ট গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ভারতীয় সেনাবাহিনী এবং জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের যৌথ অভিযান পরিচালনা করার সময় এই এই হাতহতের ঘটনা ঘটে।ঘটনার পর ওই এলাকায় অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত আছে। এর আগে, গত ৮ জুলাই জম্মু-কাশ্মীরের কাঠুয়া জেলায় সশস্ত্র গোষ্ঠীর হামলায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর আরও পাঁচ সেনার মৃত্যু হয়। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এই নিয়ে গত ৩২ মাসে জম্মু অঞ্চলে অন্তত ৪৮ সেনা সদস্য নিহত হয়েছে। উল্লেখ্য, ভারতে বিজেপি ক্ষমতায় এসেছে ২০১৪ সালে। এর পর থেকেই কাশ্মীরে আগ্রাসী নীতি নেয় সেনা। সদ্য সমাপ্ত লোকসভা ভোটেও গেরুয়া শিবিরের দাবি করে, তাদের অন্যতম সাফল্য কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বাতিল করা। যার ফলে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা খুইয়েছে ভূস্বর্গ। এছাড়াও পুলওয়ামায় হামলায় ৪০ সিআরপিএফ জওয়ানের মৃত্যুর পর পাকিস্তানের বালাকোটে ঢুকে এয়ার স্ট্রাইককেও বারবার সাফল্য হিসেব তুলে ধরা হয়েছে বিজেপি সরকারের তরফে।প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং একাধিকবার এই সাফল্যের কথা স্মরণ করিয়েছেন দেশবাসীকে। বিগত লোকসভা ভোটেও ‘গর্বের’ স্মৃতি রোমন্থন করতে ভোলেননি গেরুয়া নেতারা। যদিও এর পরেও কাশ্মীরে স্বাধীনতাকামী তৎপরতা বিন্দুমাত্র কমেনি। এমনকী বাড়ন্ত সন্ত্রাসের দিকে তাকিয়ে গত মাসে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠক করতে বাধ্য হন প্রধানমন্ত্রী মোদি। তার পরেও অবশ্য বারুদ আর রক্তের গন্ধে ভারী উপত্যকার বাতাস। স্বাধীনতাকামীদের সঙ্গে সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে একাধিক সেনাকর্মীর। গত ৮ জুলাই কাঠুয়াতে সেনার কনভয়ে হামলায় মৃত্যু হয় ৫ জওয়ানের। ১১-১২ জুনের মধ্যে একটি অভিযানে ৬ জওয়ান আহত হন হামলায়। ৯ জুন স্বাধীনতাকামী হামলায় খাদে পড়ে যায় পুণ্যার্থী বোঝাই একটি বাস। নিহত হন ৯ জন, আহত হন ৩৩ জন। গত ৪ মে পুঞ্চ জেলায় সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে নিহত হন এক জওয়ান। এছাড়াও ২০২১ এর ডিসেম্বর থেকে ২০২৩ এর ডিসেম্বরের মধ্যে নিহত হয়েছেন ২৩ জন সেনা। এছাড়াও এই সময় ৪ জন সাধারণ নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে নাশকতায়। সব মিলিয়ে যেন মৃত্যু উপত্যকা হয়ে উঠেছে কাশ্মীর। এই অবস্থায় বিরোধীদের একাংশের দাবি, সেনার অতি সক্রিয়তা তথা কঠোর নীতির ফলেই উলটো প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে ভূস্বর্গে। মাঝে কংগ্রেস নেতা পি চিদম্বরম মন্তব্য করেছিলেন, সামরিক বাহিনীর কড়া দমননীতিই কাশ্মীরে শান্তি ফেরাতে ব্যর্থ হয়েছে।এবি 
    বিশ্ব গণমাধ্যমে বাংলাদেশের কোটা সংস্কার আন্দোলন
    বাংলাদেশে চলছে কোটা সংস্কার আন্দোলন। এতদিন এই আন্দোলন শান্তিপূর্ণভাবে চললেও সোমবার (১৫ জুলাই) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীর নগর, চট্টগ্রামসহ বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারী ও ছাত্রলীগের মধ্যে সংঘর্ষ হওয়ার পর থেকে পরিস্থিতি অশান্ত হয়ে উঠেছে। আর তারপর থেকেই বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে উঠে আসতে শুরু করে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে।গতকাল যুক্তরাজ্যের সংবাদ সংস্থা রয়টার্স তাদের প্রতিবেদনের হেড লাইন দিয়েছে ‘ বাংলাদেশে চাকরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত অন্তত শতাধিক।’রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রধান বিরোধী দলের বয়কট পর, জানুয়ারিতে জাতীয় নির্বাচনে টানা চতুর্থ মেয়াদে জয়ী হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই প্রথম উল্লেখযোগ্য বিক্ষোভের সম্মুখীন হয়েছেন।এদিকে, প্রভাবশালী ফরাসি বার্তাসংস্থা এএফপি বেশ কয়েকদিন ধরেই বাংলাদেশের কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে সংবাদ ও ফটোপোস্ট প্রকাশ করে আসছে। সর্বশেষ মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) একটি ফটো পোস্টের ক্যাপশনে বার্তাসংস্থাটি লেখে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারী ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দলের সমর্থনকারী ছাত্রদের সংঘর্ষের পর আহত এক শিক্ষার্থীকে নিয়ে যাচ্ছেন বাকিরা। সোমবার উভয় পক্ষের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০০ জন আহত হয়।মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা নিয়ে প্রতিবেদন করেছে তুর্কি বার্তাসংস্থা আনাদোলু। তারা বলে, সোমবার বাংলাদেশের একাধিক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সরকারি চাকরিতে কোটা নিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলের বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষে শত শত মানুষ আহত হয়েছেন।সোমবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনার পরপরই ‘সরকারি চাকরিতে কোটার প্রতিবাদে অন্তত ১০০ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী আহত’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগপন্থি ছাত্রসংগঠন ও সরকারি চাকরিতে কোটাবিরোধী বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১০০ জন আহত হয়েছেন।পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কয়েকশ কোটাবিরোধী আন্দোলনকারী ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগপন্থী শিক্ষার্থী ঘণ্টার পর ঘণ্টা সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া লিপ্ত হয়েছে। তারা ঢিল ছোড়া, লাঠিসোঁটা ও লোহার রড দিয়ে একে-অন্যকে মারধর করেছে।চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে পাঁচদিন আগে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে প্রভাবশালী ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি। সেখানে বলা হয়, বাংলাদেশের হাজার হাজার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছেন। বিক্ষোভকারীদের দাবি, বর্তমান কোটা ব্যবস্থা বৈষম্যমূলক ও তা সংস্কার করতে হবে।

    বিনোদন

    সব দেখুন
    আজ ঢাকার বাতাসে বারুদের গন্ধ: স্বস্তিকা মুখার্জী
    কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে উত্তাল সারা বাংলাদেশ। এক দফা এক দাবিতে রাজপথে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা। তাই তো জীবন বাজি রেখে কোটা সংস্কার চেয়ে রাস্তায় নেমেছে তারা। চলমান এই ইস্যুতে বেশ সরব দেশের শোবিজ অঙ্গন। তবে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় দেশ ছাড়িয়ে ভিন্ন দেশেও পড়েছে তার প্রভাব। বলছি স্বস্তিকা মুখার্জীর কথা।তিনি একজন জনপ্রিয় ভারতীয় বাঙালি মডেল ও অভিনেত্রী। কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় অনেকের মতো তিনিও ভীষণ মর্মাহত! ভিন্ন দেশে থেকেও তার মনে কষ্টের ছাপ পড়েছে। এবার এ ইস্যুতেই তিনি তার ফেসবুকের এক পোস্টে বাংলাদেশকে নিয়ে তার আবেগের অনুভূতির কথা শেয়ার করেছেন।আজ বৃহস্পতিবার সকালে একটি আবেগঘন পোস্টে তিনি লিখেছেন- ‘প্রায় এক মাস হলো আমি নিজের দেশে নেই। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের খবরের চ্যানেলে তৃতীয় বিশ্বের কোনো খবরই তেমন একটা চলেনা।আর আমি খুব একটা ফোনের পোকা নই তাই এত খারাপ একটা খবর কানে আসতে দেরি হলো।এই তো কয়েক মাস আগে বাংলাদেশ গেলাম, খুব ইচ্ছে ছিলো জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় যাওয়ার।চারুকলা যাওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিল, জীবনের একটা স্মরনীয় দিন হয়ে থাকবে। প্রতিবার আসি, ব্যস্ততায় যাওয়া হয়না, মা'ও খুব যেতে চাইতেন বাংলাদেশ, নিয়ে যাওয়া হয়নি, কিন্তু আজ একটা ভিডিও দেখলাম, গুলির ধোঁয়া। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা আক্রান্ত। ছাত্র বয়স গেছে সেই কবে, তবে জাহাঙ্গীর নগর আর আমার যাদবপুর খুব কাছাকাছি। কাঠগোলাপের গাছ গুলিও কেমন এক রকম। এক রকম আকাশের মেঘ গুলিও। কেবল আজ ওখানে বারুদের গন্ধ।'ময়দান ভারী হয়ে নামে কুয়াশায়দিগন্তের দিকে মিলিয়ে যায় রুটমার্চতার মাঝখানে পথে পড়ে আছে ও কি কৃষ্ণচূড়া ?নিচু হয়ে বসে হাতে তুলে নিইতোমার ছিন্ন শির, তিমির। 'এমন এক আপ্যায়ন প্রিয় জাতি দেখিনি, খাবারের নিমন্ত্রণ যেন শেষ হতেই চায় না, ওমন সুন্দর করে সারা রাস্তা জুড়ে ভাষার আল্পনা আর কোথায় দেখবো? নয়নজুড়ানো দেওয়াল লেখা? এ বোধহয় মুক্তিযুদ্ধের শপথ নেওয়া একটা জাতির পক্ষেই সম্ভব।আজ, অস্থির লাগছে। আমিও তো সন্তানের জননী। আশা করবো বাংলাদেশ শান্ত হবে। অনেকটা দূরে আছি, এই প্রার্থনা টুকুই করতে পারি।অন্ধকারের উৎস হতে উৎসারিত আলো - সেই আমাদের আলো…আলো হোক ভাল হোক সকলের।‘স্বস্তিকার দেওয়া এই ফেসবুক পোস্টে তার অসংখ্য ভক্তরা কমেন্ট করেছেন। বাংলাদেশের প্রতি তার এমন মায়া ভালোবাসা দেখে কমেন্ট বক্সে অনেককেই এই অভিনেত্রীকে ধন্যবাদ সাধুবাদ জানাতে দেখা যায়। এবি 
    গুলি কেন করতে হলো, প্রশ্ন চঞ্চল চৌধুরীর
    কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে উত্তাল দেশ। জীবন বাজি রেখে শিক্ষার্থীরা রাজপথে নেমেছেন নিজেদের অধিকার আদায় করতে। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ঘটছে সংঘর্ষের ঘটনাও। ঘটেছে হতাহতের ঘটনাও। এই আন্দোলন নিয়ে নিজেদের প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন বিনোদন অঙ্গনের তারকারাও। এবার অন্য তারকাদের সঙ্গে যুক্ত হলে জনপ্রিয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী।পেশাগত কাজে দেশের বাইরে ছিলেন জনপ্রিয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। দেশে ফিরে হতবাক হয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন তিনি।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি লিখেছেন, পেশাগত কাজে প্রায় বিশ দিন আমেরিকা থাকার পর গতকাল রাতে ঢাকায় ফিরেছি। সেখানে বসে এই কয়দিন নিউজ গুলো দেখে হতবাক হয়েছি…..হয়েছি শোকাহত!!!! সমাধানের অন্য কোন পথ কি খোলা ছিলো না??? গুলি কেন করতে হলো????তিনি আরো লিখেন, বুকের রক্ত না ঝড়িয়ে সুষ্ঠু সমাধান করা যেতো না??? যা ঘটে গেলো এটা যেমন মোটেও কাংক্ষিত নয়, বিষয়টা তেমনি হৃদয়বিদারক, মর্মান্তিক এবং সভ্যতা বর্হিভূত!সবশেষে অভিনেতা লিখলেন, আমি খুব সাধারণ একজন মানুষ। তরুণ তাঁজা যে প্রাণ গুলো অকালে ঝড়ে গেল,তার দায় কে নেবে????? যে মায়ের বুক খালি হলো, তাঁর আর্তনাদ কি কোনো জনমে শেষ হবে???? হায়রে দুর্ভাগা দেশ!!!!!! নোংরা রাজনীতির নামে এই রক্তপাত বন্ধ হোক!!!! উল্লেখ্য, কোটা সংস্কার আন্দোলন মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) থেকে বেশ সহিংস রূপ নেয়। বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে ছয়জন মারা গেছেন। আহত হয়েছেন কয়েকশ আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিবেচনায় সারা দেশের সব সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। এইচএ
    পোস্ট দিয়ে স্বামীকে ‘তালাক’ দিলেন দুবাইয়ের রাজকুমারী
    দুবাই রাজকন্যা শাইখা মাহরা বিনতে মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম প্রকাশ্যে স্বামীকে ডিভোর্স দিলেন। ইনস্টাগ্রামের মাধ্যমে প্রকাশ্যেই তিনি স্বামী শেখ মানা বিন মোহাম্মদ বিন রশিদ বিন মানা আল মাকতুমকে 'তালাক' দেওয়ার ঘোষণা করলেন। এদিকে সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, এই দম্পতির প্রথম সন্তান পৃথিবীতে আসার ঠিক দুই মাসের মাথায় বিচ্ছেদের ঘোষণা দিলেন শাইখা মাহরা। তিনি ইনস্টাগ্রাম পোস্টে লিখলেন, "প্রিয় স্বামী, যেহেতু তুমি অন্যান্য সঙ্গীদের সঙ্গে ব্যস্ত আছ, তাই আমি এই পোষ্টের মাধ্যমে তোমাকে তালাক ঘোষণা করছি। আমি তোমাকে তালাক দিচ্ছি, আমি তোমাকে তালাক দিচ্ছি এবং আমি তোমাকে তালাক দিচ্ছি। যত্ন নেবে। তোমার প্রাক্তন স্ত্রী।" পোস্টটি ভাইরাল হতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো তোলপাড় পড়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই তিনি এবং তাঁর স্বামী একে অপরকে ইনস্টাগ্রামে আনফলো করেছেন। তাদের প্রোফাইল থেকে একে অপরের সমস্ত ছবি মুছে দিয়েছেন। আবার কেউ কেউ বলছেন, এই জুটি একে অপরকে ব্লক করেছে। আবার অনেকে বলছেন, হতে পারলো শাইখা মাহরার অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে। তবে যে দেশে মেয়েরা এখনও পর্দার আড়ালে বাস করছেন, সে দেশে রাজকুমারী অদম্য সাহস নিয়ে স্বামীকে তালাক দিয়েছেন, বিষয়টি নিয়ে রাজকুমারীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ নেটিজেনরা। একজন ব্যবহারকারী রাজকন্যাকে তার "সাহস এবং সাহসিকতার" জন্য কুর্নিশ জানিয়েছেন। এবং বলেছেন, 'তিক্ত সম্পর্কের থেকে বেরিয়ে আসাই শোভনীয়।'তবে এখন প্রশ্ন, রাজকুমারী তাঁর স্বামীকে ডিভোর্স দিলেও তাঁর স্বামী তাঁকে ডিভোর্স দেবে কিনা! কিন্তু কী কারণে দুবাইযের রাজকুমারী স্বামীকে ডিভোর্স দিলেন, তাঁর পোস্টে তা স্পষ্ট নয়। এই দম্পতি গত বছরের মে মাসে বিয়ে করেছিলেন এবং ১২ মাস পরে তাঁরা তাদের মেয়েকে স্বাগত জানিয়েছেন। মা হওয়ার সুখবরটি শাইখা নিজেই জানিয়েছিলেন এবং স্বামী ও সদ্যোজাত শিশুর সঙ্গে তিনি একটি ছবিও শেয়ার করেছিলেন। শাইখা মাহরা সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট তথা প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসকের কন্যা। তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের নারীর ক্ষমতায়ন এবং স্থানীয় ডিজাইনারদের নিয়ে সবসময় মুখ খোলেন। তিনি যুক্তরাজ্যের একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা শেষ করেছিলেন।এবি 
    যারা ভাবছেন আন্দোলনটা শুধুই চাকরির জন্য, তারা বোকা: ফারুকী
    কোটা সংস্কার আন্দোলন ইস্যুতে উত্তাল পুরো দেশ। অশান্ত দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার দাবি জানিয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ। বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন তারকারাও। চলমান ছাত্র আন্দোলন নিয়ে নিজের মত প্রকাশ করেছেন চলচ্চিত্র নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। তিনি বলেছেন, যারা ভাবছেন আন্দোলনটা স্রেফ একটা চাকরির আন্দোলন, আপনারা বোকার স্বর্গে আছেন।১৭ জুলাই বুধবার নিজের ভ্যারিফায়েড ফেসবুক পেজ-এ তিনি জানিয়েছেন এই আন্দোলনকে তিনি কীভাবে দেখছেন। মোস্তফা সরয়ার ফারুকী লিখেছেন, ‘আপনারা যারা ভাবছেন আন্দোলনটা স্রেফ একটা চাকরির জন্য, তারা বোকার স্বর্গে আছেন। আপনারা এর সবগুলা শ্লোগান খেয়াল করেন। দেখবেন, এই আন্দোলন নাগরিকের সমমর্যাদার জন্য। এই আন্দোলন নিজের দেশে তৃতীয় শ্রেণির নাগরিক হিসেবে না বাঁচার জন্য। এই আন্দোলন রাষ্ট্রক্ষমতায় যারা আছেন, তাদের মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য যে, দেশের মালিক তারা না, আসল মালিক জনগন। সেই জনগনকে রাষ্ট্র যে পাত্তা দেয় না, এই আন্দোলন সেটার বিরুদ্ধেও একটা বার্তা। রাষ্ট্র জনগণকে কেন পাত্তা দেয় না, এই আন্দোলনকারীরা সেটাও বোঝে। যে কারণে ভোটের বিষয়টাও শ্লোগান আকারে শুনেছি। আমি এটাকে এইভাবেই পাঠ করছি।’এই নির্মাতা আরও লিখেছে, ‘পাবলিক সারভেন্ট শব্দটা বেশ ভালো। নির্বাচিত (!) প্রতিনিধি বা যে কোনো সরকারি বেতনভুক্ত ব্যক্তিকে এই শব্দেই ডাকা উচিত সবসময়। এই আন্দোলন সেই পাবলিক সারভেন্টদের মনে করিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে, আপনি আমার কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য। অল পাওয়ার টু দ্য পিপল। অল পাওয়ার টু দ্য ইয়ুথ। প্রেয়ারস ফর মাই ফেলো সিটিজেনস। শহীদের রক্ত কখনো বিফলে যায় না।’এসএফ

    অর্থ-বাণিজ্য

    সব দেখুন
    দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ স্বর্ণে দাম, ভরি কত?
    ভরিতে ১ হাজার ১৯০ টাকা বাড়িয়ে ২২ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণের দাম ১ লাখ ২০ হাজার ৮১ টাকা নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস)। যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। রোববার (১৪ জুলাই) সন্ধ্যায় এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বাজুস। সোমবার (১৫ জুলাই) থেকে নতুন এ দাম কার্যকর হবে।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পিওর গোল্ড) মূল্য বেড়েছে। ফলে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী, প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম পড়বে ১ লাখ ২০ হাজার ৮১ টাকা। এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি ১ লাখ ১৪ হাজার ৬২২ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৯৮ হাজার ২৪৬ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৮১ হাজার ২২৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।  বিজ্ঞপ্তিতে বাজুস আরও জানায়, স্বর্ণের বিক্রয়মূল্যের সঙ্গে আবশ্যিকভাবে সরকার-নির্ধারিত ৫ শতাংশ ভ্যাট ও বাজুস-নির্ধারিত ন্যূনতম মজুরি ৬ শতাংশ যুক্ত করতে হবে। তবে গহনার ডিজাইন ও মানভেদে মজুরির তারতম্য হতে পারে। এর আগে, সর্বশেষ গত ৭ জুলাই দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম সমন্বয় করেছিল বাজুস। সে সময় ভরিতে ১ হাজার ৬০৯ টাকা বাড়িয়ে ২২ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণের দাম ১ লাখ ১৮ হাজার ৮৯১ টাকা নির্ধারণ করেছিল সংগঠনটি। এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৯১ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৯৭ হাজার ২৭৮ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৮০ হাজার ৪২৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। উল্লেখ্য, চলতি বছরে এখন পর্যন্ত দেশের বাজারে ৩২ বার স্বর্ণের দাম সমন্বয় করা হয়েছে। যেখানে ১৭ বার দাম বাড়ানো হয়েছে, আর কমানো হয়েছে ১৫ বার। আর ২০২৩ সালে দাম সমন্বয় করা হয়েছিল ২৯ বার।এমএইচ
    যে কোনো দেশ থেকেই আলু ও পেঁয়াজ আমদানি করা যাবে: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী
     আলু ও পেঁয়াজের আমদানিতে আইপি অনুমোদন দেয়া হয়েছে জানিয়ে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু বলেছেন, যে কোনো আমদানিকারক এখন যে কোনো দেশ থেকে চাইলেই পেঁয়াজ ও আলু আমদানি করতে পারবেন। শনিবার (১৩ জুলাই) রাজধানীর কারওয়ানবাজারে টিসিবি অডিটোরিয়ামে জাতীয় রফতানি ট্রফি ২০২১-২০২২ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি। গত ৬ মাসে মজুতদারি করে কোনো পণ্যে কেউ কারসাজি করতে পারেনি দাবি করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভারি বৃষ্টির কারণে দেশের ১৮ জেলা তলিয়ে গেছে। এতে পণ্য আসতে সমস্যা হচ্ছে, যা সাময়িক। তবে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলে সমস্যা সমাধানের জন্য কাজ করা হবে। এছাড়া চাইলেই এখন যে কোনো দেশ থেকে পেঁয়াজ ও আলু আমদানি করা যাবে। জাতীয় রফতানি ট্রফি ২০২১-২০২২ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। ছবি: সংগৃহীত দেশের গার্মেন্টস খাতে নির্ভরশীলতা কমিয়ে কৃষি ও চামড়া খাতে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে জানিয়ে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, রফতানি বাণিজ্যসহ সরকারের সব কর্মকাণ্ডের লক্ষ্য দেশের বেকারত্ব দূর করা। এজন্য শুধু গার্মেন্টস খাতের ওপর নির্ভর করলে চলবে না। তাই দেশের গার্মেন্টস খাতে নির্ভরশীলতা কমিয়ে কৃষি ও চামড়া খাতে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। এ সময়ে রফতানি বাড়ানো ছাড়া আর কোনো বিকল্প রাস্তা নেই। তাই সব রফতানিকারকের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে তথ্যভান্ডার তৈরির কথাও জানান তিনি।   প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশকে ম্যানুফ্যাকচারিং হাব তৈরিতে সহায়তা করতে আগ্রহ দেখিয়েছে চীনের ব্যবসায়ীরা। এছাড়া কোরিয়া, সিঙ্গাপুরসহ আরবের দেশগুলোর সঙ্গে বিনিয়োগ বাড়াতে কাজ করছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি ভবিষ্যতে ইউরোপসহ পূর্ব ও দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে রফতানি বাণিজ্য বাড়ানো হবে। এসময় বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, রফতানির হিসাব জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) করে, রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) শুধু তা প্রকাশ করে। এখন থেকে এনবিআরের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট রফতানিকারকদের সঙ্গে সরাসরি তথ্য নিয়ে কাজ করবে ইপিবির পরিসংখ্যান বিভাগ। তাহলে রফতানি তথ্য নিয়ে আর বিভ্রান্তি তৈরি হবে না আগামীতে।এমএইচ
    বৃষ্টি-ব্লকেডের অজুহাতে লাগামহীন নিত্যপণ্যের বাজার
    বৃষ্টি ও কোটাবিরোধী ‘বাংলা ব্লকেড’ অজুহাত দেখিয়ে ফের নিত্যপণ্যের বাজার লাগামহীন। এসব অজুহাতে সরবরাহ ঠিক থাকলেও বাড়ানো হয়েছে ডাল, আলু ও ডিমসহ সকল পণ্যের দাম।বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) রাতে রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।বাজার ঘুরে দেখা যায়, সপ্তাহের ব্যবধানে ৪৫-৫০ টাকার প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ৭০-৭৫ টাকায়, গত সপ্তাহের ১৩৫ টাকা কেজি মশুর ডাল বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায় এবং গত সপ্তাহের ১৪০টাকা ডজন ফার্মের ডিম কিনতে হচ্ছে ১৫০-১৫৫ টাকায়। প্রতি কেজি কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ২০০-২৫০ টাকা, যা আগে ১৬০-১৮০ টাকা ছিল। প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১১০-১২৫ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগেও ৯৫-১১০ টাকা ছিল।খুচরা বাজারে ৬০ টাকার নিচে মিলছে না কোন সবজি। গত সপ্তাহের ৫০ টাকার পেঁপে ৬০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। একইভাবে প্রতি কেজি লতি বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা। যা সপ্তাহ আগে ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। প্রতি কেজি করলার দাম ৬০-৮০ টাকা থেকে বেড়ে ১০০-১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বরবটির কেজি ৬০-৭০ টাকা থেকে বেড়ে ১০০-১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ২৩০ টাকা কেজি। যা ৭ দিন আগেও ২১০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।এদিকে খুচরা বাজারে এক সপ্তাহ আগের ১৭০ টাকা কেজির ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায়। দেশি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৬৫০-৭০০ টাকা। প্রতি কেজি গরুর মাংস ৭৬০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া প্রতি কেজি রুই মাছ ৩৫০-৪৫০ টাকায়, মৃগেল ২৫০-৩৫০, পাঙাশ ১৯০-২২০, চিংড়ি প্রতি কেজি ৭০০-১০০০ টাকায়, বোয়াল মাছ প্রতি কেজি ৮০০-১২০০ টাকা, কাতল ৩০০-৪০০, পাবদা ৪০০-৫০০ টাকায় এবং তেলাপিয়া ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।কারওয়ান বাজারে পণ্য কিনতে আসা মো. রাতুল হাসান বলেন, বাজারে সব পণ্যের সরবরাহ পর্যাপ্ত থাকলেও নিত্য নতুন অজুহাত দিয়ে পণ্যের দাম বাড়িয়ে নাজেহাল করা হচ্ছে। মাসের বাজেট সপ্তাহে ব্যয় হয়ে যাচ্ছে। পরিস্থিতি এমন এখন ডাল, ডিম ও আলুভর্তা করে ভাত খাবো তাও ভাবতে পারি না। যেন এসব দেখার কেউ নেই।একই বাজারের খুচরা বিক্রেতা শাহিন আলী বলেন, এখানে কারসাজি নেই। বৃষ্টিতে খেতের নেক সবজি নষ্ট হয়ে গেছে। এছাড়া কাদার কারণে মাঠ থেকে সবজি সরবরাহ কম হচ্ছে। সেই সঙ্গে ছাত্রদের বাংলা ব্লকেডের কারণে পরিবহণ ব্যবস্থায় সমস্যা হচ্ছে। ফলে সবজির দাম বেড়ে যাচ্ছে।এসএফ
    পুঁজিবাজারে সূচকের সঙ্গে লেনদেন কমেছে
    সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) পুঁজিবাজারে সূচকের পতনের মধ্যে দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ও অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেন কমেছে।ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এতথ্য জানা গেছে।বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, বৃহস্পতিবার ডিএসই প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৬১ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ৫০৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১১ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১৫ পয়েন্ট কমে যথাক্রমে ১২১৯ ও ১৯৫৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে।এদিন ডিএসইতে ৬৬৪ কোটি ২৮ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। যা আগের কার্যদিবসের চেয়ে প্রায় ৩০৩ কোটি টাকার লেনদেন কমেছে। আগেরদিন ডিএসইতে ৯৬৭ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছিল।  বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৩৯৭টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। এগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৩৬টি কোম্পানির, কমেছে ৩৪৩টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের দর।এদিন লেনদেনের শীর্ষে থাকা ১০ প্রতিষ্ঠান হলো-সী পার্ল, সালভো কেমিক্যাল, অরিয়ন ইনফিউশন, লাভেলো আইসক্রিম, আলিফ ইন্ডাস্ট্রি, আফতাব অটো, ওয়াইমেক্স, গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল, সান লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও দেশবন্ধু পলিমার।অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১২৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৫ হাজার ৭৫৭ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৬৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৪৩টির, কমেছে ২১২টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১২টির কোম্পানির শেয়ার দর।বৃহস্পতিবার সিএসইতে ৯ কোটি ১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিনের চেয়ে ৩৩ কোটি টাকার লেনদেন কমেছে। আগের দিন সিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৪২ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।এসএফ
    লাগামহীন পেঁয়াজের বাজার, দফায় দফায় বাড়ছে দাম
    গত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে অস্থিরতা বিরাজ করছে পেঁয়াজের বাজারে। কোরবানির ঈদের আগে থেকে দফায় দফায় বেড়ে চলেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটির দাম।বাজার ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব থাকা সংশ্লিষ্টরা যেন কোনোভাবেই ঊর্ধ্বমুখী এ পণ্যটির দামের লাগাম টেনে ধরতে পারছেন না।পেঁয়াজের দাম প্রতিনিয়ত বাড়তে থাকার কারণ হিসেবে সরবরাহ সংকটের কথা বলছেন বিক্রেতারা। যদিও রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে সরবরাহের সংকট দেখা যায়নি। বরং ক্রেতারা এর পেছনে ব্যবসায়ীদের অসাধু মনোভাবকে দায়ী করছেন।সোমবার (৮ জুলাই) রাজধানীর কারওয়ান বাজার ও পশ্চিম রাজাবাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারগুলোতে পেঁয়াজের কোনো সংকট নেই। প্রতিটি দোকানেই সাধারণ সময়ের মতোই যথেষ্ট পরিমাণ পেঁয়াজ রয়েছে। দাম বাড়ায় পেঁয়াজ বিক্রি কিছুটা কমলেও চাহিদায় বড় ধরনের পরিবর্তন আসেনি।কারওয়ান বাজারের পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রেতারা জানান, বর্তমানে প্রতিপাল্লা (পাঁচ কেজি) পাবনা ও রাজশাহীর পেঁয়াজ ৫২০ টাকা থেকে ৫৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ফরিদপুরের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০০ টাকা থেকে ৫১০ টাকা। আর ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৯০ থেকে ৫০০ টাকা পাল্লা।এক সপ্তাহ আগে এ বাজারেই প্রতিপাল্লা পাবনা ও রাজশাহীর পেঁয়াজ ৪৬০ টাকা, ফরিদপুরের পেঁয়াজ ৪২০ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজ ৪৪০ টাকা বিক্রি হয়েছিল। অর্থাৎ গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় সব ধরনের পেঁয়াজের দাম পাল্লায় ৫০ থেকে ৯০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। কেজি হিসেবে বেড়েছে ৫ টাকা থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত।কোরবানির ঈদের আগে এ বাজারে প্রতিপাল্লা পাবনা ও রাজশাহীর পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ৪০০ টাকা, ফরিদপুরের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ৩৮০ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ৩৫০ টাকায়।পাইকারি বাজারের তুলনায় খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম আরও অনেক বেশি। পশ্চিম রাজাবাজারে বর্তমানে প্রতিকেজি পাবনার পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ১০০ টাকা এবং ঈদের আগে ছিল ৯০ টাকা।দফায় দফায় পেঁয়াজের দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে কারওয়ান বাজারের পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রেতা নুরুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, এখন বাজারে যে পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে সেটি হালি পেঁয়াজ। এ পেঁয়াজ আরও ৪-৫ মাস আগে কৃষক ঘরে তুলেছেন। এ পেঁয়াজ এখন শেষের দিকে। তাই কৃষক হাটে পেঁয়াজ কম বিক্রি করছেন। এ কৃষকদের কাছ থেকেই আড়তদাররা পেঁয়াজ কিনে আনেন। তাদের কাছ থেকে আমরা পাইকারি বিক্রেতারা কিনি। আমাদের কাছ থেকে কেনে খুচরা বিক্রেতারা।এছাড়া গত কয়েকদিন বৃষ্টির কারণে কৃষক তার পেঁয়াজ হাটে কম বিক্রি করছেন। যার কারণে বাজারে সরবরাহের সংকট তৈরি হয়েছে। দামও বেশ খানিকটা বেড়েছে। গত দুদিন বৃষ্টি না থাকায় পেঁয়াজের দাম কিছুটা স্থির হয়েছে। কিছুটা হয়তো কমবেও। তবে পেঁয়াজের দাম অনেক কমার সম্ভাবনা নেই। যদি বাইরে থেকে পেঁয়াজ আমদানি হয় তাহলে পেঁয়াজের দাম আবার আগের অবস্থায় আসতে পারে। নাহলে আবার পেঁয়াজের মৌসুম না আসা পর্যন্ত এভাবেই থাকবে।মিঠু নামে আরেক বিক্রেতা বলেন, ভারতেই পেঁয়াজের দাম বেশি। যার কারণে বাংলাদেশে আসা ভারতীয় পেঁয়াজের দামও বেশি। নতুন দেশি পেঁয়াজ না আসা পর্যন্ত ভারতীয় পেঁয়াজের দাম এমনই ৯০-১০০ টাকা থাকবে।পশ্চিম রাজাবাজারের মুদি দোকানদার মো. রুবেল বলেন, ঈদের আগে থেকে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। আড়তদাররা বলছেনু, সরবরাহ কম, তাই দাম বেশি। আসল কারণ জানি না। আমরা আড়ত থেকে দুই এক বস্তা পেঁয়াজ কিনে আনি। যদি আড়তে পেঁয়াজের দাম কমে তাহলে আমরাও কম দাম বিক্রি করতে পারবো।এদিকে পেঁয়াজের দাম বাড়ার জন্য অসাধু ব্যবসায়ীদের দায়ী করছেন ক্রেতারা। তাদের দাবি, বড় বড় ব্যবসায়ীরা অতি মুনাফার লোভে সিন্ডিকেট করে পেঁয়াজের দাম বাড়াচ্ছেন। এতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস ওঠার অবস্থা। চাহিদার তুলনায় তাদের কম পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে।কারওয়ান বাজারে পেঁয়াজ কিনতে এসেছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী ফেরদৌস রহমান। একটি পাইকারি দোকান থেকে ৫২০ টাক দরে এক পাল্লা পেঁয়াজ কিনেছেন তিনি।  তিনি বাংলানিউজকে বলেন, দুই সপ্তাহ আগে ৩৪০ টাকা দরে পেঁয়াজ কিনেছি। আজ কিনতে হলো ৫২০ টাকা দিয়ে। দুই সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম এত বেশি বাড়ার কথা না। এর পেছনে নিশ্চয়ই কোনো অদৃশ্য সিন্ডিকেট কাজ করছে। সরকারের উচিত সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনা করে এ বাজার সিন্ডিকেটকে থামানো। নাহলে মানুষ এক সময় তার মৌলিক অধিকার পূরণে ব্যর্থ হবে। এখনই বাজার করতে গিয়ে মানুষের নাভিশ্বাস উঠে যাচ্ছে।সামশ তাবরিজ নামে আরেক ক্রেতা বলেন, প্রতিদিন রান্নায় পেঁয়াজ প্রয়োজন হয়। চাইলেও এটিকে বাদ দেওয়া যায় না। কিন্তু যেভাবে দাম বাড়ছে তাতে পেঁয়াজ না খাওয়া ছাড়া উপায় নেই। এখনই চাহিদার তুলনায় অর্ধেক কিনতে হচ্ছে। শুধু পেঁয়াজ নয়, আলু, কাঁচা মরিচসহ প্রতিটি নিত্যপণ্যের দামই এখন সাধারণ ক্রেতাদের নাগালের বাইরে চলে গেছে।এদিকে বেশ কয়েক সপ্তাহ বাড়তি দামের পর কিছুটা কমেছে ডিমের দাম। বর্তমানে কারওয়ান বাজারে প্রতিহালি লাল ডিম ৪৮ টাকা ও সাদা ডিম ৪৪ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, যা এক সপ্তাহ আগেও যথাক্রমে ৫০ ও ৪৬ টাকা ছিল। ঈদের আগে ছিল যথাক্রমে ৬০ টাকা ও ৫৫ টাকা।এসএফ
    ফের বাড়ল স্বর্ণের দাম, ভরিতে কত?
    ভরিতে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৬০৯ টাকা বাড়িয়ে স্বর্ণের নতুন মূল্য নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস)। এর ফলে ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণের দাম হবে ১ লাখ ১৮ হাজার ৮৯১ টাকা।রোববার (৭ জুলাই) বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমানের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।এতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পিওর গোল্ড) মূল্য কমেছে। ফলে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী, প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম পড়বে ১ লাখ ১৮ হাজার ৮৯১ টাকা।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পিওর গোল্ড) মূল্য বেড়েছে। ফলে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।নতুন দাম অনুযায়ী, প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম পড়বে ১ লাখ ১৮ হাজার ৮৯১ টাকা। এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৯১ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৯৭ হাজার ২৭৮ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৮০ হাজার ৪২৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।বিজ্ঞপ্তিতে বাজুস আরও জানায়, স্বর্ণের বিক্রয়মূল্যের সঙ্গে আবশ্যিকভাবে সরকার-নির্ধারিত ৫ শতাংশ ভ্যাট ও বাজুস-নির্ধারিত ন্যূনতম মজুরি ৬ শতাংশ যুক্ত করতে হবে। তবে গহনার ডিজাইন ও মানভেদে মজুরির তারতম্য হতে পারে।এর আগে, গত ৩০ জুন ভরিতে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৭৩ টাকা ক‌মিয়ে স্বর্ণের নতুন মূল্য ১ লাখ ১৭ হাজার ২৮২ টাকা নির্ধারণ করে বাজুস।এসএফ
    বাজারে কাঁচামরিচের কেজি ৪শ' টাকা ছুঁয়েছে
     কাঁচামরিচের দাম এবার ছুঁয়েছে ৪শ' টাকা। মেহেরপুরে এই দামে বিক্রি হচ্ছে। দাম বাড়ার প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে নেই রাজশাহী, মানিকগঞ্জ ও খুলনার বাজারও। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বন্যায় মরিচের খেত নষ্ট হওয়ায় বেশি দামে মরিচ বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। আর ক্রেতাদের দাবি, সঠিক তদারকির অভাবে ইচ্ছেমতো বাড়ানো হচ্ছে দাম।হঠাৎ করেই অস্থির কাঁচামরিচের বাজার। ছোট্ট এই ঝাল জাতীয় পণ্য কিনতে ঘাম ঝরার উপক্রম ক্রেতার। তাই দাম শুনেই ফিরে যেতে বাধ্য হয়েছেন অনেক ক্রেতা।স্বাভাবিক সময়ে মেহেরপুরে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ৭০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হলেও একমাসের বেশি সময় ধরে দাম আরও বাড়তে থাকে। ধাপে ধাপে দাম বেড়ে কয়েকদিন ২৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয় মরিচ। তবে বর্তমানে খুচরা বাজারে মরিচ কিনতে ক্রেতাদের গুণতে হচ্ছে ৪শ’ টাকা পর্যন্ত। ব্যবসায়ীরা বলছেন, অতিরিক্ত খরা ও অনাবৃষ্টির কারণে এবছর এখন পর্যন্ত স্থানীয় কাঁচামরিচ বাজারে আসেনি। যাতে চড়া দামে বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। তবে মরিচের অস্বাভাবিক দামে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ক্রেতারা। অস্বাভাবিক দামের পেছনে ব্যবসায়ীদের কারসাজিকে দায়ী করছেন তারা।মেহেরপুরের ব্যবসায়ীদের একজন বলেন, 'আমাদের স্থানীয় কাঁচামরিচ বাজারে এখনো আসেনি যার ফলে কাঁচামরিচের দাম এত বেশি।'একই অবস্থা রাজশাহীর কাঁচা বাজারেও। প্রতি কেজি কাঁচামরিচ প্রায় দ্বিগুণ থেকে তিনগুণ দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২৫০ থেকে ৩২০ টাকা পর্যন্ত। কয়েকদিন আগেও যা বিক্রি হয়েছে ৮০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, গেল কয়েক দিনের বৃষ্টিতে নীচু জমিতে পানি জমে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উৎপাদন। আষাঢ়ের এই বৃষ্টি উঁচু জমির জন্য আশীর্বাদ হলেও নীচু জমিতে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা। যাতে দাম বেড়েছে কাঁচামরিচের। ক্রেতারা বলছেন, খরা কিংবা বন্যা যাই হোক নিত্যপণ্যের দাম বাড়তে থাকে হু হু করে। এমন পরিস্থিতিতে সরকারের নজরদারি সব থেকে জরুরি বলছেন তারা।
    দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ স্বর্ণে দাম, ভরি কত?
    ভরিতে ১ হাজার ১৯০ টাকা বাড়িয়ে ২২ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণের দাম ১ লাখ ২০ হাজার ৮১ টাকা নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস)। যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। রোববার (১৪ জুলাই) সন্ধ্যায় এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বাজুস। সোমবার (১৫ জুলাই) থেকে নতুন এ দাম কার্যকর হবে।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পিওর গোল্ড) মূল্য বেড়েছে। ফলে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী, প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম পড়বে ১ লাখ ২০ হাজার ৮১ টাকা। এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি ১ লাখ ১৪ হাজার ৬২২ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৯৮ হাজার ২৪৬ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৮১ হাজার ২২৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।  বিজ্ঞপ্তিতে বাজুস আরও জানায়, স্বর্ণের বিক্রয়মূল্যের সঙ্গে আবশ্যিকভাবে সরকার-নির্ধারিত ৫ শতাংশ ভ্যাট ও বাজুস-নির্ধারিত ন্যূনতম মজুরি ৬ শতাংশ যুক্ত করতে হবে। তবে গহনার ডিজাইন ও মানভেদে মজুরির তারতম্য হতে পারে। এর আগে, সর্বশেষ গত ৭ জুলাই দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম সমন্বয় করেছিল বাজুস। সে সময় ভরিতে ১ হাজার ৬০৯ টাকা বাড়িয়ে ২২ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণের দাম ১ লাখ ১৮ হাজার ৮৯১ টাকা নির্ধারণ করেছিল সংগঠনটি। এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৯১ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৯৭ হাজার ২৭৮ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৮০ হাজার ৪২৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। উল্লেখ্য, চলতি বছরে এখন পর্যন্ত দেশের বাজারে ৩২ বার স্বর্ণের দাম সমন্বয় করা হয়েছে। যেখানে ১৭ বার দাম বাড়ানো হয়েছে, আর কমানো হয়েছে ১৫ বার। আর ২০২৩ সালে দাম সমন্বয় করা হয়েছিল ২৯ বার।এমএইচ
    যে কোনো দেশ থেকেই আলু ও পেঁয়াজ আমদানি করা যাবে: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী
     আলু ও পেঁয়াজের আমদানিতে আইপি অনুমোদন দেয়া হয়েছে জানিয়ে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু বলেছেন, যে কোনো আমদানিকারক এখন যে কোনো দেশ থেকে চাইলেই পেঁয়াজ ও আলু আমদানি করতে পারবেন। শনিবার (১৩ জুলাই) রাজধানীর কারওয়ানবাজারে টিসিবি অডিটোরিয়ামে জাতীয় রফতানি ট্রফি ২০২১-২০২২ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি। গত ৬ মাসে মজুতদারি করে কোনো পণ্যে কেউ কারসাজি করতে পারেনি দাবি করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভারি বৃষ্টির কারণে দেশের ১৮ জেলা তলিয়ে গেছে। এতে পণ্য আসতে সমস্যা হচ্ছে, যা সাময়িক। তবে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলে সমস্যা সমাধানের জন্য কাজ করা হবে। এছাড়া চাইলেই এখন যে কোনো দেশ থেকে পেঁয়াজ ও আলু আমদানি করা যাবে। জাতীয় রফতানি ট্রফি ২০২১-২০২২ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। ছবি: সংগৃহীত দেশের গার্মেন্টস খাতে নির্ভরশীলতা কমিয়ে কৃষি ও চামড়া খাতে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে জানিয়ে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, রফতানি বাণিজ্যসহ সরকারের সব কর্মকাণ্ডের লক্ষ্য দেশের বেকারত্ব দূর করা। এজন্য শুধু গার্মেন্টস খাতের ওপর নির্ভর করলে চলবে না। তাই দেশের গার্মেন্টস খাতে নির্ভরশীলতা কমিয়ে কৃষি ও চামড়া খাতে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। এ সময়ে রফতানি বাড়ানো ছাড়া আর কোনো বিকল্প রাস্তা নেই। তাই সব রফতানিকারকের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে তথ্যভান্ডার তৈরির কথাও জানান তিনি।   প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশকে ম্যানুফ্যাকচারিং হাব তৈরিতে সহায়তা করতে আগ্রহ দেখিয়েছে চীনের ব্যবসায়ীরা। এছাড়া কোরিয়া, সিঙ্গাপুরসহ আরবের দেশগুলোর সঙ্গে বিনিয়োগ বাড়াতে কাজ করছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি ভবিষ্যতে ইউরোপসহ পূর্ব ও দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে রফতানি বাণিজ্য বাড়ানো হবে। এসময় বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, রফতানির হিসাব জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) করে, রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) শুধু তা প্রকাশ করে। এখন থেকে এনবিআরের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট রফতানিকারকদের সঙ্গে সরাসরি তথ্য নিয়ে কাজ করবে ইপিবির পরিসংখ্যান বিভাগ। তাহলে রফতানি তথ্য নিয়ে আর বিভ্রান্তি তৈরি হবে না আগামীতে।এমএইচ
    বৃষ্টি-ব্লকেডের অজুহাতে লাগামহীন নিত্যপণ্যের বাজার
    বৃষ্টি ও কোটাবিরোধী ‘বাংলা ব্লকেড’ অজুহাত দেখিয়ে ফের নিত্যপণ্যের বাজার লাগামহীন। এসব অজুহাতে সরবরাহ ঠিক থাকলেও বাড়ানো হয়েছে ডাল, আলু ও ডিমসহ সকল পণ্যের দাম।বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) রাতে রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।বাজার ঘুরে দেখা যায়, সপ্তাহের ব্যবধানে ৪৫-৫০ টাকার প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ৭০-৭৫ টাকায়, গত সপ্তাহের ১৩৫ টাকা কেজি মশুর ডাল বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায় এবং গত সপ্তাহের ১৪০টাকা ডজন ফার্মের ডিম কিনতে হচ্ছে ১৫০-১৫৫ টাকায়। প্রতি কেজি কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ২০০-২৫০ টাকা, যা আগে ১৬০-১৮০ টাকা ছিল। প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১১০-১২৫ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগেও ৯৫-১১০ টাকা ছিল।খুচরা বাজারে ৬০ টাকার নিচে মিলছে না কোন সবজি। গত সপ্তাহের ৫০ টাকার পেঁপে ৬০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। একইভাবে প্রতি কেজি লতি বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা। যা সপ্তাহ আগে ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। প্রতি কেজি করলার দাম ৬০-৮০ টাকা থেকে বেড়ে ১০০-১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বরবটির কেজি ৬০-৭০ টাকা থেকে বেড়ে ১০০-১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ২৩০ টাকা কেজি। যা ৭ দিন আগেও ২১০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।এদিকে খুচরা বাজারে এক সপ্তাহ আগের ১৭০ টাকা কেজির ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায়। দেশি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৬৫০-৭০০ টাকা। প্রতি কেজি গরুর মাংস ৭৬০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া প্রতি কেজি রুই মাছ ৩৫০-৪৫০ টাকায়, মৃগেল ২৫০-৩৫০, পাঙাশ ১৯০-২২০, চিংড়ি প্রতি কেজি ৭০০-১০০০ টাকায়, বোয়াল মাছ প্রতি কেজি ৮০০-১২০০ টাকা, কাতল ৩০০-৪০০, পাবদা ৪০০-৫০০ টাকায় এবং তেলাপিয়া ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।কারওয়ান বাজারে পণ্য কিনতে আসা মো. রাতুল হাসান বলেন, বাজারে সব পণ্যের সরবরাহ পর্যাপ্ত থাকলেও নিত্য নতুন অজুহাত দিয়ে পণ্যের দাম বাড়িয়ে নাজেহাল করা হচ্ছে। মাসের বাজেট সপ্তাহে ব্যয় হয়ে যাচ্ছে। পরিস্থিতি এমন এখন ডাল, ডিম ও আলুভর্তা করে ভাত খাবো তাও ভাবতে পারি না। যেন এসব দেখার কেউ নেই।একই বাজারের খুচরা বিক্রেতা শাহিন আলী বলেন, এখানে কারসাজি নেই। বৃষ্টিতে খেতের নেক সবজি নষ্ট হয়ে গেছে। এছাড়া কাদার কারণে মাঠ থেকে সবজি সরবরাহ কম হচ্ছে। সেই সঙ্গে ছাত্রদের বাংলা ব্লকেডের কারণে পরিবহণ ব্যবস্থায় সমস্যা হচ্ছে। ফলে সবজির দাম বেড়ে যাচ্ছে।এসএফ
    পুঁজিবাজারে সূচকের সঙ্গে লেনদেন কমেছে
    সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) পুঁজিবাজারে সূচকের পতনের মধ্যে দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ও অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেন কমেছে।ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এতথ্য জানা গেছে।বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, বৃহস্পতিবার ডিএসই প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৬১ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ৫০৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১১ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১৫ পয়েন্ট কমে যথাক্রমে ১২১৯ ও ১৯৫৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে।এদিন ডিএসইতে ৬৬৪ কোটি ২৮ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। যা আগের কার্যদিবসের চেয়ে প্রায় ৩০৩ কোটি টাকার লেনদেন কমেছে। আগেরদিন ডিএসইতে ৯৬৭ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছিল।  বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৩৯৭টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। এগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৩৬টি কোম্পানির, কমেছে ৩৪৩টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের দর।এদিন লেনদেনের শীর্ষে থাকা ১০ প্রতিষ্ঠান হলো-সী পার্ল, সালভো কেমিক্যাল, অরিয়ন ইনফিউশন, লাভেলো আইসক্রিম, আলিফ ইন্ডাস্ট্রি, আফতাব অটো, ওয়াইমেক্স, গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল, সান লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও দেশবন্ধু পলিমার।অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১২৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৫ হাজার ৭৫৭ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৬৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৪৩টির, কমেছে ২১২টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১২টির কোম্পানির শেয়ার দর।বৃহস্পতিবার সিএসইতে ৯ কোটি ১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিনের চেয়ে ৩৩ কোটি টাকার লেনদেন কমেছে। আগের দিন সিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৪২ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।এসএফ
    লাগামহীন পেঁয়াজের বাজার, দফায় দফায় বাড়ছে দাম
    গত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে অস্থিরতা বিরাজ করছে পেঁয়াজের বাজারে। কোরবানির ঈদের আগে থেকে দফায় দফায় বেড়ে চলেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটির দাম।বাজার ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব থাকা সংশ্লিষ্টরা যেন কোনোভাবেই ঊর্ধ্বমুখী এ পণ্যটির দামের লাগাম টেনে ধরতে পারছেন না।পেঁয়াজের দাম প্রতিনিয়ত বাড়তে থাকার কারণ হিসেবে সরবরাহ সংকটের কথা বলছেন বিক্রেতারা। যদিও রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে সরবরাহের সংকট দেখা যায়নি। বরং ক্রেতারা এর পেছনে ব্যবসায়ীদের অসাধু মনোভাবকে দায়ী করছেন।সোমবার (৮ জুলাই) রাজধানীর কারওয়ান বাজার ও পশ্চিম রাজাবাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারগুলোতে পেঁয়াজের কোনো সংকট নেই। প্রতিটি দোকানেই সাধারণ সময়ের মতোই যথেষ্ট পরিমাণ পেঁয়াজ রয়েছে। দাম বাড়ায় পেঁয়াজ বিক্রি কিছুটা কমলেও চাহিদায় বড় ধরনের পরিবর্তন আসেনি।কারওয়ান বাজারের পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রেতারা জানান, বর্তমানে প্রতিপাল্লা (পাঁচ কেজি) পাবনা ও রাজশাহীর পেঁয়াজ ৫২০ টাকা থেকে ৫৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ফরিদপুরের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০০ টাকা থেকে ৫১০ টাকা। আর ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৯০ থেকে ৫০০ টাকা পাল্লা।এক সপ্তাহ আগে এ বাজারেই প্রতিপাল্লা পাবনা ও রাজশাহীর পেঁয়াজ ৪৬০ টাকা, ফরিদপুরের পেঁয়াজ ৪২০ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজ ৪৪০ টাকা বিক্রি হয়েছিল। অর্থাৎ গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় সব ধরনের পেঁয়াজের দাম পাল্লায় ৫০ থেকে ৯০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। কেজি হিসেবে বেড়েছে ৫ টাকা থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত।কোরবানির ঈদের আগে এ বাজারে প্রতিপাল্লা পাবনা ও রাজশাহীর পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ৪০০ টাকা, ফরিদপুরের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ৩৮০ টাকা ও ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ৩৫০ টাকায়।পাইকারি বাজারের তুলনায় খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম আরও অনেক বেশি। পশ্চিম রাজাবাজারে বর্তমানে প্রতিকেজি পাবনার পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ১০০ টাকা এবং ঈদের আগে ছিল ৯০ টাকা।দফায় দফায় পেঁয়াজের দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে কারওয়ান বাজারের পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রেতা নুরুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, এখন বাজারে যে পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে সেটি হালি পেঁয়াজ। এ পেঁয়াজ আরও ৪-৫ মাস আগে কৃষক ঘরে তুলেছেন। এ পেঁয়াজ এখন শেষের দিকে। তাই কৃষক হাটে পেঁয়াজ কম বিক্রি করছেন। এ কৃষকদের কাছ থেকেই আড়তদাররা পেঁয়াজ কিনে আনেন। তাদের কাছ থেকে আমরা পাইকারি বিক্রেতারা কিনি। আমাদের কাছ থেকে কেনে খুচরা বিক্রেতারা।এছাড়া গত কয়েকদিন বৃষ্টির কারণে কৃষক তার পেঁয়াজ হাটে কম বিক্রি করছেন। যার কারণে বাজারে সরবরাহের সংকট তৈরি হয়েছে। দামও বেশ খানিকটা বেড়েছে। গত দুদিন বৃষ্টি না থাকায় পেঁয়াজের দাম কিছুটা স্থির হয়েছে। কিছুটা হয়তো কমবেও। তবে পেঁয়াজের দাম অনেক কমার সম্ভাবনা নেই। যদি বাইরে থেকে পেঁয়াজ আমদানি হয় তাহলে পেঁয়াজের দাম আবার আগের অবস্থায় আসতে পারে। নাহলে আবার পেঁয়াজের মৌসুম না আসা পর্যন্ত এভাবেই থাকবে।মিঠু নামে আরেক বিক্রেতা বলেন, ভারতেই পেঁয়াজের দাম বেশি। যার কারণে বাংলাদেশে আসা ভারতীয় পেঁয়াজের দামও বেশি। নতুন দেশি পেঁয়াজ না আসা পর্যন্ত ভারতীয় পেঁয়াজের দাম এমনই ৯০-১০০ টাকা থাকবে।পশ্চিম রাজাবাজারের মুদি দোকানদার মো. রুবেল বলেন, ঈদের আগে থেকে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। আড়তদাররা বলছেনু, সরবরাহ কম, তাই দাম বেশি। আসল কারণ জানি না। আমরা আড়ত থেকে দুই এক বস্তা পেঁয়াজ কিনে আনি। যদি আড়তে পেঁয়াজের দাম কমে তাহলে আমরাও কম দাম বিক্রি করতে পারবো।এদিকে পেঁয়াজের দাম বাড়ার জন্য অসাধু ব্যবসায়ীদের দায়ী করছেন ক্রেতারা। তাদের দাবি, বড় বড় ব্যবসায়ীরা অতি মুনাফার লোভে সিন্ডিকেট করে পেঁয়াজের দাম বাড়াচ্ছেন। এতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস ওঠার অবস্থা। চাহিদার তুলনায় তাদের কম পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে।কারওয়ান বাজারে পেঁয়াজ কিনতে এসেছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী ফেরদৌস রহমান। একটি পাইকারি দোকান থেকে ৫২০ টাক দরে এক পাল্লা পেঁয়াজ কিনেছেন তিনি।  তিনি বাংলানিউজকে বলেন, দুই সপ্তাহ আগে ৩৪০ টাকা দরে পেঁয়াজ কিনেছি। আজ কিনতে হলো ৫২০ টাকা দিয়ে। দুই সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম এত বেশি বাড়ার কথা না। এর পেছনে নিশ্চয়ই কোনো অদৃশ্য সিন্ডিকেট কাজ করছে। সরকারের উচিত সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনা করে এ বাজার সিন্ডিকেটকে থামানো। নাহলে মানুষ এক সময় তার মৌলিক অধিকার পূরণে ব্যর্থ হবে। এখনই বাজার করতে গিয়ে মানুষের নাভিশ্বাস উঠে যাচ্ছে।সামশ তাবরিজ নামে আরেক ক্রেতা বলেন, প্রতিদিন রান্নায় পেঁয়াজ প্রয়োজন হয়। চাইলেও এটিকে বাদ দেওয়া যায় না। কিন্তু যেভাবে দাম বাড়ছে তাতে পেঁয়াজ না খাওয়া ছাড়া উপায় নেই। এখনই চাহিদার তুলনায় অর্ধেক কিনতে হচ্ছে। শুধু পেঁয়াজ নয়, আলু, কাঁচা মরিচসহ প্রতিটি নিত্যপণ্যের দামই এখন সাধারণ ক্রেতাদের নাগালের বাইরে চলে গেছে।এদিকে বেশ কয়েক সপ্তাহ বাড়তি দামের পর কিছুটা কমেছে ডিমের দাম। বর্তমানে কারওয়ান বাজারে প্রতিহালি লাল ডিম ৪৮ টাকা ও সাদা ডিম ৪৪ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, যা এক সপ্তাহ আগেও যথাক্রমে ৫০ ও ৪৬ টাকা ছিল। ঈদের আগে ছিল যথাক্রমে ৬০ টাকা ও ৫৫ টাকা।এসএফ

    শিক্ষাঙ্গন

    সব দেখুন
    বেরোবি শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন
    রংপুরে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আবু সাঈদ নিহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) আবু মারুফ হোসেন মামলা এবং তদন্ত কমিটির বিষয়টি নিশ্চিত করেন।এদিকে মঙ্গলবারের সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের ওপর হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, সরকারি কাজে বাধার অভিযোগ এনে অজ্ঞাতদের নামে তাজহাট থানায় মামলা করেছে পুলিশ। তাজহাট থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক বিভুতি ভূষণ বাদী হয়ে এ মামলা করেন।এ ঘটনায় রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অ্যাডমিন) সায়েকুজ্জামান ফারুকীকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় পীরগঞ্জের বাবনপুরে আবু সাঈদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। জানাজায় আবু সাঈদের বিক্ষুব্ধ সহপাঠী, বন্ধু, শিক্ষক, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও স্থানীয়রা অংশ নেন।আবু সাঈদের মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশকে দায়ী করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচি শেষে কালো ব্যাচ পড়ে মৌন মিছিল করেন তারা।বেলা ২টার দিকে বেগম রোকেয়া ১নং গেটকে ‘শহিদ আবু সাঈদ তোরণ’ নামে নামকরণ ও ৬ দফা দাবিতে বিক্ষোভ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।  বিশ্ববিদ্যালয়ের ২নং গেটে আবু সাঈদের গায়েবানা জানাজা শেষে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ শেষে এই দাবি করেন তারা। পরে তারা সাংবাদিকদের জানান, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পদত্যাগ, অবিলম্বে  নির্বিচারে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, নিহত আবু সাঈদের পরিবারকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ১নং গেটকে ‘শহিদ আবু সাঈদ তোরণ’ নামে নামকরণ করতে হবে এবং সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে সন্ত্রাস ও দখলদারিত্বমুক্ত ক্যাম্পাস নিশ্চিত করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি বিজন কুমার চাকী বলেন, ‘আবু সাঈদের মৃত্যুতে আমরা দুঃখিত ব্যথিত লজ্জিত। আমরা বিচার চাই, সুস্ঠু তদন্ত করে অভিযুক্তকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানাই।’বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ মন্ডল বলেন, ‘যেই গুলি করে আমাদের ছাত্রকে হত্যা করেছে তাদের শাস্তি চাই।’  এদিকে আবু সাঈদের মৃত্যুতে নগরীর বিভিন্ন স্থানে গায়েবানা জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।এআই 
    আবু সাঈদের পরিবারের পাশে থাকবে বেরোবি: ভিসি হাসিবুর রশীদ
    কোটা সংস্কারের আন্দোলন চলাকালে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ইংরেজি বিভাগের ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থী আবু সাঈদ নিহত হওয়ার ঘটনায় গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ হাসিবুর রশীদ। বুধবার (১৭ জুলাই) দেয়া এক শোক বার্তায় তিনি শহিদ আবু সাঈদের পরিবারের পাশে থাকবে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় বলে জানান তিনিশোক বার্তায় উপাচার্য বলেন, সম্ভাবনাময়ী উদীয়মান এমন একজন তরুণের নিহত হওয়ার ঘটনা খুবই মর্মান্তিক এবং বেদনাদায়ক। এই ঘটনা সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে এর সাথে জড়িত দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।তিনি বলেন, আবু সাঈদের মৃত্যুতে তার পরিবারের যে অপূরণীয় ক্ষতি হলো তা আর কোনো দিন পূরণ সম্ভব নয়। কিন্তু আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে যতটুকু সম্ভব তার পরিবারের পাশে থাকবো। তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।এআই
    কোটা আন্দোলনে নিহতদের স্মরণে জবির ছাত্রী হলে মোমবাতি প্রজ্বলন
    কোটা সংস্কার আন্দোলনে হামলায় নিহত ও আহতদের স্মরণে মোমবাতি প্রজ্বলন কর্মসূচির আয়োজন করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রী হলের শিক্ষার্থীরা।বুধবার (১৭ জুলাই) রাত সাড়ে ১০টার দিকে হলের নিচ তলায় এই মোমবাতি প্রজ্বলন কর্মসূচী পালন করা হয়।এই সময় শিক্ষার্থীরা কোটা আন্দোলনে নিহত ও আহতদের স্মরণে কিছু সময় নিরবতা পালন করে। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা "আগুনের পরশমণি, ছোঁয়াও প্রানে... এ জীবন পূর্ণ করো" গানটি একত্রে পরিবেশন করে।এ বিষয়ে রোকসানা তৃষ্ণা নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, মোমবাতি প্রজ্বলন করেছি আমরা নিহত ও আহতদের উদ্দেশ্যে। যাদেরকে নির্মমভাবে খুন করা হয়েছে রাস্তায়। আমরা চাই না আমাদের কোনো ভাই বোনকে আর হত্যা করা হোক।আরেক শিক্ষার্থী মোছাঃ মোকছেদা মিতু বলেন, আমার যে সকল ভাই ও বোন ন্যায্য অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথ রঞ্জিত করেছে সকল ভাইদের স্মরণে আমরা আজকে হলে এই কর্মসূচির আয়োজন করেছি। তাদের এই রক্ত বৃথা যাবে না। আমাদের বিজয় একদিন হবেই। ইনশাআল্লাহ।প্রসঙ্গত, গতকাল কোটা সংস্কার আন্দোলনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪জন শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ হয় এবং অনেকেই আহত হয়।এআই 
    কোটা আন্দোলনে সর্বভারতীয় ছাত্র জোটের সংহতি
    চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেছে সর্বভারতীয় ছাত্র জোট (এআইএসএ)। গতকাল মঙ্গলবার ছাত্র সংগঠের জোটটির সভাপতি নিলাসিস বোস এবং সাধারণ সম্পাদক প্রসেনজিৎ কুমার স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা বাংলাদেশের কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সম্পূর্ণ সংহতি জ্ঞাপন করছি। আমরা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী এবং তরুণদের বিশেষ করে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের নেতাদের পাশে আছি। যারা আহত এবং আটক হয়েছেন তাদের পাশে আছি।’‘সরকারি চাকরিতে প্রবেশে বৈষম্যমূলক কোটা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় এবং রাস্তায় আন্দোলন করছে বাংলাদেশে কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। আন্দোলন চলার সময় শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশ এবং সরকার দলীয় সংগঠন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ইট-পাটকেল, রোড এবং লাঠি সোটা নিয়ে হামলা চালায়।’    শিক্ষার্থী এবং তরুণরা সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটার বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছে। মুক্তিযোদ্ধা কোটা ছাড়াও নারী, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, প্রতিবন্ধী কোটাসহ জেলা কোটাও রয়েছে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের বিধি-১ শাখা নবম গ্রেড এবং ১০ম থেকে ১৩তম গ্রেড পর্যন্ত সরাসরি নিয়োগে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করে একটি পরিপত্র জারি করা করে। ফলে সরকারি চাকরিতে ১০ শতাংশ নারী কোটা, ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা এবং ১০ শতাংশ জেলা কোটা বাতিল হয়ে যায়। পরে ওই পরিপত্র চ্যালেঞ্জ করে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও প্রজন্ম কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের সভাপতি অহিদুল ইসলাম তুষারসহ সাত জন হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করে। ওই রিটের শুনানি শেষে গত ৫ জুন সরকারের জারি করা পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। এতে সরকারি চাকরিতে আবারও কোটা ফিরে আসে। এরপর থেকেই এই আন্দোলন নিয়ে উত্তেজনা বাড়তে থাকে। সূত্র: ইনডিপেনডেন্ট টিভি।এফএস

    তথ্য-প্রযুক্তি

    সব দেখুন
    চাঁদে মিলল গুহা, থাকতে পারবে মানুষ
    পৃথিবীর খুব কাছে থাকা চাঁদের অনেক রহস্যই এখনো আমাদের  কাছে আজও অজানা রয়ে গেছে। সম্প্রতি ইতালির একদল বিজ্ঞানী এই প্রথম চাঁদের মাটিতে একটি গুহার খোঁজ পেয়েছেন। এই গুহা ভবিষ্যতে মহাকাশচারীদের হোটেল হিসেবে ব্যবহার করা যাবে বলেও ধারণা করছেন তাঁরা। ধারনা করা হচ্ছে, এই গুহা চাঁদের মাটি থেকে অন্তত ১০০ মিটার গভীর। গুহার জায়গায় স্থায়ী বসতি গড়ে মানুষ থাকা শুরু করতে পারবে বলেও ধারনা করছেন বিজ্ঞানীরা। তাদের মতে, এমন শত শত গুহা চাঁদে থাকতে পারে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, আজ থেকে ৫৫ বছর আগে চাঁদের ঠিক যে জায়গাতে অ্যাপোলো-১১ এর মহাকাশযান নেমেছিল, সেখান থেকে জায়গাটি ৪০০ কিলোমটার দূরে। ইতালির একদল বিজ্ঞানীদের নেতৃত্বে সম্প্রতি এক গবেষণায় এই তথ্য জানা যায়। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার লুনার রিকনেইস্যান্স অরবিটার (এলআরও) নামক এক রাডার থেকে তথ্য সংগ্রহ করে এই গবেষণা চালানো হয়। সোমবার নেচার অ্যাস্ট্রনমি নামক এক জার্নালে সোমবার এ সংক্রান্ত একটি আর্টিকেল প্রকাশিত হয়। তাতে বলা হয়, গুহাটি ৪৫ মিটার প্রস্থ। গুহাটি ১৪টি টেনিস কোর্টের সমান।চাঁদে বসতি স্থাপনের জন্য চেষ্টা করছে বেশ কয়েকটি দেশ। সেখানে স্থায়ী বসতি চাইছে তারা। কিন্তু এ জন্য সেখানে বসবাসকারীদের রেডিয়েশন, অত্যধিক তাপমাত্রা ও চাঁদের আবহাওয়া থেকে রক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে।এ ব্যাপারে ব্রিটিশ মহাকাশচারী হেলেন শারমান বিবিসিকে বলেন, চাঁদে যে গুহা পাওয়া গেল, ‘এটি একটি দারুণ খবর। সেখানে আরও গুহা থাকতে পারে। আশা করছি, আগামী ২০–৩০ বছরের মধ্যে মানুষ চাঁদে বাস শুরু করতে পারবে। কিন্তু এই গুহায় থাকলে কিন্তু বের হয়ে আসার ব্যবস্থা রাখতে হবে।’  বিজ্ঞানীদের ধারনা, আজ থেকে শত শত কোটি বছর আগে চাঁদে লাভার উদ্‌গিরণ হয়। এটি সেই লাভার মুখ হতে পারে।এবি 
    বিভিন্ন স্থানে মোবাইল ইন্টারনেটে ধীরগতি
    রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থানে মোবাইল ইন্টারনেটের গতি কমে গেছে। বিশেষ ক‌রে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহবাগ, পল্টন এলাকায় গ্রাহক‌দের কাছ থেকে ইন্টারনেটের গ‌তি কমার তথ্য মিলেছে।বুধবার (১৭ জুলাই) সকাল থেকে দেশের প্রায় সব মোবাইল অপারেটরের গ্রাহকরা এমন তথ্য দিয়েছেন।কেউ কেউ ফেসবুক ও মেসেঞ্জারেও প্রবেশ করতে পারলেও কো‌নো বার্তা, ছ‌বি ও ভি‌ডিও পোস্ট করা যা‌চ্ছে। শুধু তাই নয়, ফেসবুক হালনাগাদ পোস্ট পাওয়া যা‌চ্ছে না। ঘুরেফিরে ঘণ্টাখা‌নেক বা তার চে‌য়ে বে‌শি সময় আগে করা পো‌স্টই সাম‌নে আস‌ছে।জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকায় মোহাম্মদ ইমরান না‌মে গ্রামীণ ফোনের এক ইন্টারনেট ব্যবহারকারী জানান, হঠাৎ ক‌রে ইন্টারনেট গতি ক‌মে গে‌ছে। ফেসবুক ও মেসেঞ্জার ব্যবহার করা যা‌চ্ছে না।পেশাগত দায়িত্ব পালনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ তার আশপাশের এলাকায় থাকা গণমাধ্যমকর্মী‌রা জানান, চলমান কোটা বিরোধী আন্দোল‌নের তথ্য অফিসে পাঠা‌তে খুব সমস্যা হ‌চ্ছে। বুধবার দুপুরের পর থেকে হঠাৎ ইন্টারনেট গ‌তি ক‌মে গে‌ছে। যার কারণে তা‌দের পেশাগত দায়িত্ব পালনে সমস্যা হ‌চ্ছে।এছাড়াও চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানেও মোবাইল ইন্টারনেটের গতি কমে গেছে। তবে ঠিক কি কারণে মোবাইল ইন্টারনেটের গতি কমে গেছে তা এখনো জানা যায় নি।আরইউ
    মোবাইল ইন্টারনেটের ধীরগতিতে ফেসবুক ব্যবহারে সমস্যা
    হঠাৎ মোবাইল ইন্টারনেটের গতি কমেছে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে। অনেকেই ফেসবুক-মেসেঞ্জারে প্রবেশ করতে পারছেন না। প্রবেশ করলেও বার্তা বা ছবি পোস্ট করতে পারছেন না। অন্যদের পোস্টে ক্লিক করেও বার্তা বা ছবি দেখা যাচ্ছে না। ফেসবুকে হালনাগাদ পোস্টও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুর থেকে প্রায় সব মোবাইল অপারেটরের ইন্টারনেটে ধীরগতি দেখা গেছে। পাশাপাশি ফেসবুক ও মেসেঞ্জার ব্যবহারেও সমস্যা হচ্ছে।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হলের সামনে থাকা নাসির নামে এক শিক্ষার্থী জানান, মঙ্গলবার রাতে ভিপিএনের (ভার্চ্যুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক) মাধ্যমে মোবাইল ফোনে ধীরগতিতে ফেসবুক ও মেসেঞ্জার ব্যবহার করা গেলেও এখন তা সম্ভব হচ্ছে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানেও একই ধরনের সমস্যা হচ্ছে।গুলিস্তানের ফায়ার সার্ভিস মোড় এবং চানখাঁরপুলেও একই অবস্থা বলে জানান সানজানা ও অর্ণব নামের দুই শিক্ষার্থী। জানা গেছে, মিরপুর থেকেও ফেসবুক ও মেসেঞ্জার ঠিকমতো ব্যবহার করা যাচ্ছে না।মিরপুরের বাসিন্দা রায়হান নামের এক শিক্ষার্থী জানান, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহার করে ফেসবুক ও মেসেঞ্জার ব্যবহার করা যাচ্ছে। কিন্তু মোবাইল ইন্টারনেটের মাধ্যমে সমস্যা হচ্ছে।পরিচয় গোপন রাখার শর্তে একজন ইন্টারনেট যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন, আইআইজি বা অপারেটরের মাধ্যমে যেকোনো ওয়েবসাইটে প্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। শুধু তা-ই নয়, সংশ্লিষ্ট সরকারি নিয়ন্ত্রক সংস্থা চাইলে নিজস্ব প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত বিভিন্ন ওয়েবসাইটের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। তিনি আরও জানান, ইন্টারনেটের গতি কম থাকলে ফেসবুকের নিজস্ব অ্যালগোরিদম অনেক সময় হালনাগাদ পোস্টগুলো কম দেখায়।এসএফ 
    কম্পিউটার কিবোর্ডের অক্ষরগুলো এলোমেলো থাকে কেন
      টাইপ করার জন্য কিবোর্ডে কোথায় কোন অক্ষর আছে তা মনে রাখতে হয়। এটা কিন্তু সহজ কোনো বিষয় নয়। কারণ কিবোর্ডে বর্ণমালাগুলো এলোমেলো থাকে।তাই এগুলো মনে রাখতে প্রচুর অনুশীলন করতে হয়। কিবোর্ডের অক্ষরগুলো সাধারণ বর্ণনানুক্রমিক অনুসারে সাজানো হলে মানুষের এত অনুশীলনের প্রয়োজন হতো না। তাহলে কেন অক্ষরগুলো এলোমেলোভাবে রেখে কিবোর্ড তৈরি করা হয়। সাধারণত আমরা যে কিবোর্ড ব্যবহার করি তার নাম হলো কোয়ার্টি। এই কিবোর্ডের বাম পাশে Q, W, E, R, T ও Y–এই ছয়টি ইংরেজি অক্ষর পাশাপাশি থাকে। এই ছয় অক্ষরবিন্যাস থেকে কিবোর্ডটির নামকরণ কোয়ার্টি। কোয়ার্টি কিবোর্ডের সঙ্গে ১৮৭০ সালে তৈরি করা প্রথম টাইপরাইটারের সম্পর্ক রয়েছে। ক্রিস্টোফার ল্যাথাম শোলেস প্রথম ব্যবহারযোগ্য ‘রেমিংটন মডেল ১’ টাইপরাইটার তৈরি করেন। তাঁর তৈরি প্রথম টাইপরাইটারের অক্ষরগুলো বর্ণানুক্রমিক ছিল। তবে এই টাইপরাইটারে দ্রুত টাইপ করার সময় এর কি গুলো আটকে যেত। কারণ এর রডগুলোর প্রায়ই একটি আরেকটির সঙ্গে সংঘর্ষ হতো। তাই এই টাইপরাইটারে ধীর গতিতে টাইপ করতে হতো।  ফাউন্ড্রি শোলেস তাঁর সহকর্মী কার্লোস গ্লিডেন ও আমোস ডেন্সমোর নামে এক শিক্ষাবিদের সঙ্গে মিলে এই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেন। তাঁরা কিবোর্ডের অক্ষরগুলো এমনভাবে সাজান যেন এগুলোর রড একে অপরের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত না হয়। ফলে তাঁরা টাইপরাইটারের অক্ষরগুলো কোয়ার্টি বিন্যাসে সাজান। ১৯৭৮ সালে এই কোয়ার্টি কিবোর্ডের পেটেন্ট হয়। টাইপরাইটারের জন্য এই বিন্যাসকেই মানদণ্ড হিসেবে ধরা হয়। যারা টাইপরাইটারে লিখতেন তাঁরা এই বিন্যাসেই অভ্যস্ত হয়ে যান। এরপর রেমিংটন ২মডেলের টাইপরাইটারের জনপ্রিয়তার মাধ্যমে টাইপরাইটারের জন্য এই বিন্যাস একেবারেপাকাপোক্ত হয়ে যায়। পরে কম্পিউটারে টাইপের জন্য কিবোর্ড তৈরি করা হলে এতেও অক্ষরের একই ক্রম অনুসরণ করা হয়। কারণ এত দিনে সবাই এই বিন্যাসেই অভ্যস্ত হয়ে গেছে। আর কিছুদিন অনুশীলনের পরই কোয়ার্টি কিবোর্ডে দ্রুত টাইপ করা যায়। তাই এখনো সর্বজনীনভাবে এই বিন্যাসের কিবোর্ডই ব্যবহার করা হয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন ধরনের কিবোর্ড তৈরি করা হয়েছে। আঙুলের আরাম ও দ্রুত টাইপিংয়ের জন্য ডভোরাকের মতো বেশ কিছু কিবোর্ড বাজারে এসেছে। তবে কোয়ার্টি কিবোর্ডের জনপ্রিয়তার ধারেকাছে কোনোটি যেতে পারেনি। তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়াএমএইচ
    জেমস ওয়েব টেলিস্কোপে ধরা পড়লো যমজ গ্যালাক্সির ছবি
    জেমস ওয়েব টেলিস্কোপের তোলা একটি ছবি প্রকাশ করেছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। তাতে যমজ বা একে অপরের সাথে জোড়া লাগা দুটি গ্যালাক্সি দেখা যাচ্ছে। প্রচুর গ্যাস, ধূলিকণা এবং কোটি কোটি গ্রহ-উপগ্রহ ও নক্ষত্রের সমাহারকে গ্যালাক্সি বলা হয়। মহাকর্ষ বলের প্রভাবে গ্যালাক্সির মধ্যে এই সব কিছু এক সঙ্গে আবদ্ধ থাকে। নাসা যে দুটি গ্যালাক্সির ছবি প্রকাশ করেছে, তার একটির নাম দেয়া হয়েছে পেঙ্গুইন। কারণ গ্যালাক্সিটি দেখতে অনেকটা পেঙ্গুইনের মতোই। আরেকটি ডিমের মতো দেখতে। তাই এর নাম ডিম।  ছবিটি প্রকাশ করা হয়েছে গত শুক্রবার (১২ জুলাই)। এদিন ছিল জেমস ওয়েব টেলিস্কোপের মহাকাশের ছবি তোলার কাজের দুই বছর পূর্তির দিন। ২০২১ সালের ২৫ ডিসেম্বর মহাকাশের পথে উড়াল দেয় বিশ্বের বৃহত্তম ও সবচেয়ে শক্তিশালী টেলিস্কোপ- জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপ। প্রায় এক মাসের যাত্রা শেষে ২০২২ সালের ২৪ জানুয়ারি পৃথিবী থেকে ১০ লাখ মাইলের দূরের নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছাতে সক্ষম হয় এটি। এরপর জুলাইয়ে নিজের কাজ শুরু করে সে। আরও পড়ুন: বৃহস্পতির উপগ্রহে প্রাণের অনুকূল পরিবেশ, ধরা পড়ল জেমস ওয়েব টেলিস্কোপে জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের প্রথম পূর্ণাঙ্গ রঙিন ছবি প্রকাশ করা হয় ২০২২ সালের ১২ই জুলাই। তখন থেকেই মহাবিশ্বের নিত্যনতুন দৃশ্য দেখে আসছে হাবল টেলিস্কোপের এই উত্তরসূরী। গত দুই বছরে এই দূরবীক্ষণ যন্ত্রের তোলা বহু বিস্ময়কর ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। সবশেষ প্রকাশ করা হলো যমজ গ্যালাক্সির ছবি। যমজ গ্যালাক্সি এমন এক জোড়া জ্বলজ্বলে গ্যালাক্সি, যাদেরকে একে অপরের সাথে আলিঙ্গনরত দেখা যাচ্ছে। অর্থাৎ ক্রমেই একটি অপরটির সঙ্গে মিশে যাচ্ছে। এই জোড়া গ্যালাক্সি ৩২৬ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। এক আলোকবর্ষ ৫.৮ ট্রিলিয়ন মাইলের সমান। নাসা বলছে, কয়েক মিলিয়ন বছর ধরে পরস্পরের সঙ্গে এভাবে জট পাকিয়ে রয়েছে পেঙ্গুইন ও ডিম। জেমস ওয়েব টেলিস্কোপের পাঠানো ছবিতে স্পষ্ট, প্রায় সংযুক্ত গ্যালাক্সি দুটি নীল তারকা ও গ্যাসের কুয়াশা দ্বারা বেষ্টিত। মহাকাশ বিজ্ঞানীরা আরও বলছেন, এক সময় একক গ্যালাক্সিতে পরিণত হবে পেঙ্গুইন ও ডিম। ৪০০ কোটি বছর পর একদিন আমাদের এই মিল্কিওয়ে গ্যালাক্সি এবং অ্যান্ড্রোমিডা গ্যালাক্সিও একই মিথস্ক্রিয়ায় একক গ্যালাক্সিতে পরিণত হবে।   প্রিমিয়ার অবজারভেটরি জেমস ওয়েবের ইনফ্রারেড আলোর তরঙ্গদৈর্ঘ্য মহাবিশ্বের অভূতপূর্ব সব চিত্র পাঠাচ্ছে, যা আগে মানুষ কখনও দেখেনি। জেমস ওয়েব বর্তমানে পৃথিবী থেকে ১০ লাখ মাইল (১৬ লাখ কিলোমিটার) দুরে অবস্থান করছে।  নাসার বিজ্ঞানী মার্ক ক্ল্যাম্পিন বলেছেন, মাত্র দুই বছরে, জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপ মহাবিশ্ব সম্পর্কে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে অনেক পরিবর্তন ঘটিয়ে দিয়েছে, যা বৈপ্লবিক। সূত্র: আল জাজিরা। 
    সারাদেশে আজ থাকতে পারে ইন্টারনেটে ধীরগতি
    রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য কক্সবাজারে দেশের প্রথম সাবমেরিন কেবল (সিমিউই-৪) আজ সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ১২ ঘণ্টা আংশিকভাবে বন্ধ থাকবে। এর ফলে দেশে নিরবচ্ছিন্ন ইন্টারনেট ব্যবস্থাপনায় কিছুটা ধীরগতি হতে পারে।শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকেলে বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলস কোম্পানি লিমিটেড পিএলসি (বিএসসিপিএলসি) সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সাবমেরিন কেবল (সিমিউই-৪) সিস্টেমের সিঙ্গাপুর প্রান্তে কনসোর্টিয়াম কর্তৃক গৃহীত রক্ষণাবেক্ষণ কাজ করার জন্য শনিবার (১৩ জুলাই) সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত প্রায় ১২ ঘণ্টা এ কেবলের মাধ্যমে সংযুক্ত সার্কিটগুলো আংশিক বন্ধ থাকবে। এ কারণে দেশের বিভিন্ন জায়গায় নিরবচ্ছিন্ন ইন্টারনেট সেবা ব্যাহত হতে পারে।এতে গ্রাহকদের সাময়িক অসুবিধার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছে বিএসসিপিএলসি। তবে এই সময় কুয়াকাটায় দেশের দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবল (সিমিউই-৫) যথারীতি চালু থাকবে বলেও সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিপিএলসি) সিমিউই-৪ এবং সিমিউই-৫ নামের দুটি আন্তর্জাতিক সাবমেরিন কেবল কনসোর্টিয়ামের (কোম্পানি) সদস্য। কেবল দুটির মাধ্যমে বাংলাদেশের ইন্টারনেট এবং আন্তর্জাতিক ভয়েস ট্র্যাফিক চলছে। প্রসঙ্গত, ২০০৬ সালে বাংলাদেশ প্রথম সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হয়। এটি প্রায় ৮০০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ সরবরাহ করে থাকে।আরইউ

    আইন-আদালত

    সব দেখুন
    কোটা আন্দোলনকারী ১১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা
    চাঁপাইনবাবগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী ১১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।এরমধ্যে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ আরও ১০০ জন অজ্ঞাতপরিচয়ের আসামি করে মামলাটি করেছেবুধবার (১৭ জুলাই) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মেহেদী হাসান।ওসি মো. মেহেদী হাসান জানান, দুটি ককটেল উদ্ধার করেছে পুলিশ। এরপরই ১২ জনের নাম উল্লেখ করে ও ১০০ জন অজ্ঞাতপরিচয়ের আসামি করে মামলা করা হয়েছে।এ ঘটনায় রাত ১০টা পর্যন্ত কাউকে আটক করা যায়নি।তবে কখন ও কোথায় থেকে ককটেলগুলো উদ্ধার করা হয়েছে তা নিশ্চিত করেননি ওসি মো. মেহেদী হাসান।এফএস

    প্রবাস

    সব দেখুন
    ইতালিতে স্পন্সর ভিসায় জালিয়াতি, বাংলাদেশিসহ গ্রেফতার ৪৪
    ইতালিতে স্পন্সর ভিসা জালিয়াতির অভিযোগে ৪৪ জনকে গ্রেফতার করেছে দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এরমধ্যে ইতালি নাগরিকের পাশাপাশি আছেন বাংলাদেশিসহ বেশ কয়েকজন এশীয় ও আফ্রিকান।ইতালিতে স্পন্সর ভিসায় জালিয়াতি। মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে তালিকার বাইরের অযোগ্য প্রার্থীরা পাচ্ছেন সুযোগ। সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সম্মেলনে এমন তথ্য দেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনি।তিনি জানান, এই প্রক্রিয়ায় জড়িতরা মানি লন্ডারিংয়েও জড়িত। প্রধানমন্ত্রীর এমন অভিযোগের পর নড়েচড়ে বসে দেশটির পুলিশ প্রশাসন ও গোয়েন্দারা।এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত বুধবার (১০ জুলাই) রাত থেকে শুরু হয় অভিযান। অত্যন্ত গোপনীয় এ অভিযানে দেশটির বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেফতার করা হয় ৪৪ জনকে। এরমধ্যে ১৩ জনকে কারাগারে, ২৪ জনকে গৃহবন্দী এবং সাত জনকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়।তদন্তে চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়ার কথা জানিয়েছে ইতালির পুলিশ প্রশাসন ও প্রসিকিউটররা। নাপলির পাশে সালের্নোতে অস্তিত্বহীন ও ভুয়া তথ্যে বিপুল অর্থের বিনিময়ে প্রায় আড়াই হাজার স্পন্সর ভিসা দেয়া হয়েছে। চক্রের সঙ্গে সরকারি আমলারাও জড়িত বলে জানা গেছে। অভিযানে দালালদের কাছ থেকে নগদ প্রায় ছয় মিলিয়ন অবৈধ ইউরো জব্দ করা হয়েছে। অভিযান আরও জোরদার করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।গ্রেফতার ৪৪ জনের মধ্যে বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি রয়েছে বলে জানা গেছে। ইতালির স্পন্সর ভিসা জালিয়াতির প্রধান টার্গেট বাংলাদেশিরা। দালালের খপ্পরে পড়ে সর্বস্বান্ত হচ্ছেন অনেক অভিবাসন প্রত্যাশী। তাই অবৈধ লেনদেন এবং দালাল চক্রের খপ্পরে না পড়ার পরামর্শ ইতালি প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটির।এসএফ

    লাইফস্টাইল

    সব দেখুন
    জেনে নিন আজকের রাশিফল ১৮ জুলাই ২০২৪
    আজ বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪। ভাগ্যরেখা অনুযায়ী আপনার আজকের দিনটি কেমন কাটতে পারে? ব্যক্তি, পারিবারিক ও কর্মক্ষেত্র সম্পর্কে কী বলছে জ্যোতিষশাস্ত্র? এ বিষয়গুলো সম্পর্কে যারা দিনের শুরুতেই কিছুটা ধারণা নিয়ে রাখতে চান তারা একবার পড়ে নিতে পারেন আজকের রাশিফল।মেষ (২১ মার্চ - ২০ এপ্রিল)কোনো সংঘাতমূলক ঘটনায় হঠাৎ আহত হলে দ্রুত প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে নিন। আপনার শারীরিক শক্তি বজায় রাখার জন্য খেলাধুলায় অংশগ্রহণ করুন। বেশি খরচ করা এবং সন্দেহজনক বড় আর্থিক পরিকল্পনা এড়িয়ে চলুন। আপনার রসিক স্বভাব সামাজিক অনুষ্ঠানে আপনাকে জনপ্রিয় করে তুলবে। কোন আকস্মিক বার্তা আপনাকে মিষ্টি স্বপ্ন দেখাবে। কাজের ব্যাপারে উদ্যোগী হতে হবে। সামাজিক সম্মান পাবেন।  বৃষ (২১ এপ্রিল - ২১ মে)গানবাজনার প্রতি আগ্রহ বাড়তে পারে। কোনও আত্মীয়কে নিয়ে বিবাদ হতে পারে। নিজেকে খেলাধুলায় নিয়োজিত করুন। আজ, আপনার ভাইবোনরা আপনার কাছে আর্থিক সহায়তা চাইতে পারে। স্ত্রী এবং বাচ্চারা অতিরিক্ত স্নেহ এবং যত্নবান হবে। আপনি আজ রোমান্টিক স্পর্শ অনুভব করবেন। যারা প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় বসছেন তাদের শান্ত থাকা প্রয়োজন। পরীক্ষার ভয়কে আপনাকে বিচলিত করতে দেবেন না। আপনার উদ্যম নিশ্চয়ই ইতিবাচক ফল আনবে। বিবাহিত জীবন শুভ।মিথুন (২২ মে - ২১ জুন)রক্তচাপের ব্যাপারে একটু সাবধান থাকুন। অশান্তি থেকে দূরে থাকুন। উপযুক্ত কাজ করার জন্য শক্তি সঞ্চয় করুন। আজ, আপনার ভাইবোন আপনার কাছ থেকে ঋণ নিতে পারেন। বাড়িতে মানুষের সঙ্গে আপনি উত্তেজনাপূর্ণ এবং ভিন্ন কিছু করতে পারেন। আপনি আপনার প্রেমিকার মন্তব্যে অত্যন্ত সংবেদনশীল হবেন। আপনার আবেগ নিয়ন্ত্রণে রাখুন এবং পরিস্থিতি খারাপ হয় এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন। জীবনসঙ্গী আজ অত্যন্ত সহায়ক হবে। কর্কট (২২ জুন - ২২ জুলাই)আপনি পদক্ষেপ গ্রহণ করার ফলে আপনার দীর্ঘদিনের সমস্যার সমাধান হবে। চিকিৎসার খরচ বাড়তে পারে। সঙ্গীতে সাফল্য পেতে পারেন।আপনি আজ আপনার মায়ের পক্ষ থেকে আর্থিক সুবিধা পেতে পারেন। কেবলমাত্র স্পষ্টভাবে সমস্যাগুলো উপলব্ধি করার দ্বারাই আপনি আপনার স্ত্রীকে মানসিক সহায়তা প্রদান করতে পারেন। ভালোবাসা আজ অত্যন্ত সুখের হবে। কর্মক্ষেত্রে জিনিসগুলি আপনার পক্ষে থাকবে বলে মনে হয়।  সিংহ (২৩ জুলাই - ২৩ আগস্ট)আজ স্বাস্থ্য সুন্দর থাকবে। গাড়ি একটু সাবধানে চালান। অর্শ-জাতীয় রোগ বাড়তে পারে। পড়াশোনার ক্ষেত্রে সুনাম বাড়তে পারে। প্রতিবেশীদের সঙ্গে বিবাদে না যাওয়াই ভাল হবে। কিছু নির্দিষ্ট কাজ হতাশাব্যঞ্জক অর্থনৈতিক অবস্থার জন্য থমকে যেতে পারে। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সুন্দর ভালোবাসার মুহূর্ত কাটান। কর্মক্ষেত্রে আজ আপনি আপনার কিছু ভালো কাজের জন্য সম্মানিত হবেন। আপনার একজন পুরনো বন্ধুর সঙ্গে দেখা হতে পারে। আপনার স্ত্রীর সঙ্গে আপনার পুরনো সুন্দর স্মৃতিগুলো আজ আবার নতুন হয়ে উঠবে। কন্যা (২৪ আগস্ট – ২৩ সেপ্টেম্বর)আপনার পরিচিত মানুষের মাধ্যমে উপার্জনের নতুন উৎস সৃষ্টি হবে। আপনার ভালোবাসার কারও সঙ্গে যোগাযোগের অভাব আপনাকে হতাশাগ্রস্ত করবে। আপনার সঙ্গীর কাছ থেকে মানসিক ব্ল্যাকমেল এড়িয়ে চলুন। ব্যবসা সম্পর্কিত কথা কাউকে বলবেন না। যদি আপনি সেটা করেন তাহলে আপনি বড় সমস্যার মধ্যে পড়তে পারেন।  তুলা (২৪ সেপ্টেম্বর – ২৩ অক্টোবর)সকাল থেকে বাতের যন্ত্রণা বাড়তে পারে। কাজের ব্যাপারে খুব ভাল যোগাযোগ হতে পারে। আশাবাদী হোন এবং উজ্জ্বল দিকটি দেখুন।  আর্থিক অবস্থা উন্নত হবে। বন্ধুরা সন্ধ্যাবেলার জন্য আকর্ষণীয় কিছু পরিকল্পনা করে আপনার দিনটি উজ্জ্বল করে তুলবে। আপনাদের সম্পর্কের সমস্ত অভিযোগ এবং বিদ্বেষ আজ বিলুপ্ত হয়ে যাবে। নিজেকে প্রকাশ করারও এটি ভালো সময়। আপনার রসবোধ আপনার শ্রেষ্ঠ সম্পদ হতে পারে।  বৃশ্চিক (২৪ অক্টোবর – ২২ নভেম্বর)স্বাস্থ্যের যত্ন প্রয়োজন। অর্থসংক্রান্ত বিষয়ে কোনো মামলায় জড়িত থাকলে আদালত আজ আপনার পক্ষে সিদ্ধান্ত নেবে। একঘেয়ে এবং অস্থির দিনে বন্ধু এবং স্ত্রী আপনার জন্য আরাম এবং খুশি বয়ে নিয়ে আসবে। যারা শিল্প এবং নাটকের সঙ্গে জড়িত আছেন তারা তাদের সৃষ্টিশীলতা সেরা স্তরে নিয়ে যাওয়ার জন্য বেশ কিছু নতুন সুযোগ পাবেন। আজ দিনটি সত্যিই আপনার জন্য শুভ হতে পারে। ধনু (২৩ নভেম্বর – ২১ ডিসেম্বর)বাড়িতে চুরির সম্ভাবনা রয়েছে, সাবধান থাকুন। দাম্পত্য কলহের কারণে মনঃকষ্ট। মানসিক চাপ প্রতিহত করার চেষ্টা করুন। ধ্যান এবং যোগ আপনার মানসিক দৃঢ়তা বৃদ্ধি করবে। আপনি আজ অজানা উৎস থেকে অর্থ অর্জন করতে পাররেন যা আপনার অনেক আর্থিক সমস্যার সমাধান করবে। পিতামাতার স্বাস্থ্যের উন্নতি হবে। আপনার কঠোর পরিশ্রম কর্মক্ষেত্রে আজ ফল প্রদর্শন করবে। আজকে আপনি সব কাজ ছেড়ে সেইসব কাজ করতে পছন্দ করবেন যেগুলো আপনি শৈশবকালে করতে পছন্দ করতেন। স্ত্রীর প্রতি কোমল হোন।মকর (২২ ডিসেম্বর – ২০ জানুয়ারি)আপনার মাধুর্যতা এবং ব্যক্তিত্ব আপনাকে কিছু নতুন বন্ধু তৈরি করতে সাহায্য করবে। অতীতের সুখস্মৃতি আপনাকে ব্যস্ত করে রাখবে। কোনো বন্ধুর কাছ থেকে মূল্যবান সমর্থন আপনাকে পেশাদার বিষয়ে সাহায্য করবে। আজ দিনটি আপনার জন্য চ্যালেঞ্জ আনতে চলেছে। কুম্ভ (২১ জানুয়ারি – ১৮ ফেব্রুয়ারি)আপনার উদ্দীপনা বাড়িয়ে তুলতে চেষ্টা করুন। বেশি খরচ করা এবং সন্দেহজনক আর্থিক পরিকল্পনা এড়িয়ে চলুন। আপনার অতিরিক্ত সময় শিশুদের সাহচর্য উপভোগ করতে ব্যয় করুন। আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনি আপনার সৃজনশীলতা হারিয়ে ফেলেছেন এবং এর ফলে আপনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ অত্যন্ত কঠিন হচ্ছে। আজ, আপনি আপনার স্ত্রীর প্রেমের মধ্য দিয়ে আপনার জীবনের সব কষ্ট ভুলে যাবেন। মীন (১৯ ফেব্রুয়ারি – ২০ মার্চ)কিছু আমোদপ্রমোদের জন্য অফিস থেকে তাড়াতাড়ি বেরোতে চেষ্টা করুন। আজ ঘরে আপনার উচিত অন্যদের অসন্তুষ্ট না করা এবং আপনার পারিবারিক প্রয়োজনের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া। আপনার ধারালো পর্যবেক্ষণ আপনাকে অন্যদের থাকে এগিয়ে রাখতে সাহায্য করবে। বিবাহিত জীবন সুখের হবে।এবি 

    Loading…