এইমাত্র
  • মহাখালীতে অবরোধ, ঢাকার সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ
  • কোটা আন্দোলনে গিয়ে নাশকতার মামলায় কারাগারে দুই শিক্ষার্থী
  • পরিস্থিতি বুঝে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে: প্রতিমন্ত্রী পলক
  • জয়পুরহাটে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া
  • বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া
  • মেসিকে ক্ষমা চাইতে বলায় ক্রীড়া কর্মকর্তা বরখাস্ত
  • ভারতীয় ভিসা সেন্টার ও মার্কিন দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা
  • বিভিন্ন স্থানে মোবাইল ইন্টারনেটে ধীরগতি
  • যাত্রাবাড়ীতে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষ, ২ পথচারী গুলিবিদ্ধ
  • বেরোবি শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন
  • আজ বৃহস্পতিবার, ৩ শ্রাবণ, ১৪৩১ | ১৮ জুলাই, ২০২৪
    আন্তর্জাতিক

    স্বামী বাইরে থাকলেই বন্ধুর সঙ্গে চলতো রোম্যান্স!

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০২৪, ০২:২২ পিএম
    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০২৪, ০২:২২ পিএম

    স্বামী বাইরে থাকলেই বন্ধুর সঙ্গে চলতো রোম্যান্স!

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০২৪, ০২:২২ পিএম

    যেহেতু সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করতেন তাই দিনের বেশিরভাগ সময়ই কাটত বাড়ির বাইরে। তবে ঘটনার দিন হুট করে অসময়ে ছুটি পেয়ে, স্ত্রীকে চমকে দিতে কিছু না জানিয়েই চলে যান বাড়িতে। কিন্তু বাড়িতে গিয়ে যে এমন দৃশ্য দেখতে হবে, তা কখনো কল্পনাও করেননি তিনি। নিজের স্ত্রীকে যে অবস্থায় দেখতে পেলেন, তাতে আর রাগ সামলাতে পারেননি। বাড়িতে তিন সন্তান থাকা সত্ত্বেও তার আড়ালে যে এতকিছু চলছিল, বুঝতে পারেননি স্বামী।

    ঘটনাটি ভারতের উত্তরপ্রদেশের নয়ডার বিরোন্দা গ্রামের। স্ত্রী ও তার প্রেমিকের বিরুদ্ধে স্বামীকে খুনের অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ জানিয়েছে, বন্ধুর সঙ্গে স্ত্রীকে বেডরুমে অসংলগ্ন অবস্থায় দেখতে পেয়েছিলেন স্বামী। তারপরই হাতাহাতি শুরু হয়। অভিযুক্ত দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

    কয়েক বছর আগে মধ্যপ্রদেশের বাসিন্দা মহেশের সঙ্গে বিয়ে হয় পূজার। তাদের তিন সন্তানও হয়। মহেশ আগে নয়ডায় টয়লেট ক্লিনারের কাজ করতেন। কয়েকদিন আগে বন্ধু প্রহ্লাদ তাকে সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করার পরামর্শ দেন। রাজিও হন মহেশ। প্রহ্লাদই তাকে গ্রেটার নয়ডার একটি কোম্পানিতে নিরাপত্তারক্ষীর চাকরি পেতে সাহায্য করেন।

    পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সেই প্রহ্লাদের সঙ্গেই শারীরিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে মহেশের স্ত্রীর। ছেলেমেয়েরা স্কুলে গেলে আর মহেশ কাজে গেলে পূজা প্রহ্লাদকে বাড়িতে ডাকতেন বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। সব গোপনই ছিল। কিন্তু গত ২৩ জুন মহেশ কাউকে কিছু না জানিয়ে বাড়ি ফেরেন। আর বেডরুমের দরজা খুলতেই চমকে যান।

    মহেশ দেখেন তার স্ত্রী তার বন্ধুর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় রয়েছেন। এরপরই প্রহ্লাদকে নিশানা করে চিৎকার করতে শুরু করেন তিনি। তখন প্রহ্লাদ মহেশের ঘরে থাকা একটি কাঁচি দেখতে পান। অভিযোগ, সেটি দিয়েই মহেশকে খুন করেন প্রহ্লাদ ও পূজা। পেটে ও বুকে তারা ততক্ষণ ধরে কাঁচি মারতে থাকেন, যতক্ষণ পর্যন্ত না মহেশের মৃত্যু হয়। এ ঘটনার পর তারা দুজনই ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান। পরে পুলিশ দুজনকেই গ্রেপ্তার করে।

    এবি

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…